banglanewspaper

বাংলাদেশ ক্রিকেট লিগের (বিসিএল) চূড়ান্ত পর্বের খেলায় দ্বিতীয় ইনিংসে মাত্র ৩৬ রানে ৯ উইকেট হারানোর পরও উল্টো ৫১ রানে জয় পেয়েছে বিসিবি উত্তরাঞ্চল। বিসিবির এ জয়ের নায়ক দুই ইনিংস মিলিয়ে ১১ উইকেট শিকার করা তাইজুল ইসলাম। ম্যাচ সেরাও হন তিনি।

বিকেএসপির তিন নম্বর গ্রাউন্ডে অনুষ্ঠিত ম্যাচে বিসিবি উত্তরাঞ্চল ফরহাদ হোসেনের শতকের ওপর ভর করে প্রথম ইনিংসে ৪৫৭ রান সংগ্রহ করে। জবাবে ওয়ালটন মধ্যাঞ্চল তাদের প্রথম ইনিংসে সংগ্রহ করে ২৭৮ রান। এ ইনিংসে জাতীয় দলের অলরাউন্ডার মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ ১৫৬ বল খেলে ১০৫ রান সংগ্রহ করে অপরাজিত থাকেন। রিয়াদ ছাড়া ওয়ালটনের অন্য ব্যাটসম্যানরা তাইজুলের সামনে দাঁড়াতেই পারেনি। তাইজুল ৮৮ রান খরচ করে একাই ছয় উইকেট নেন।

প্রথম ইনিংসে ১৭৯ রানে এগিয়ে থেকে দ্বিতীয় ইনিংসে ব্যাট করতে নেমে দারুণ ভাবে ব্যর্থ হয় উত্তরাঞ্চল। জাতীয় দলের স্পিনার ইলিয়াস সানীর স্পিন জাদুতে শুরু থেকেই নিয়মিত উইকেট হারায় বিসিবি। দলের টপ অর্ডারের ছয় ব্যাটসম্যানের মধ্যে চারজন রানের খাতা খেলার আগেই সাজঘরে ফেরেন। তারা হলেন- ওপেনার জুনায়েদ সিদ্দিকী,সানজামুল ইসলাম,হামিদুল ইসলাম ও নাসির হোসেন।

এছাড়া ফরহাদ হোসেন ২,নাঈম ইসলাম মাত্র ৭ রান করেন। মাত্র ১৬ রানেই ছয় উইকেট হারিয়ে চরম ব্যাটিং বিপর্যয়ে পড়ে বিসিবি। এরপর দলীয় ৩৬ রানের মধ্যে নয় উইকেট হারিয়ে সমুহ ভরাডুবির শঙ্কা জাগায় তারকায় ঠাসা দলটি। তবে শেষ পর্যায়ে ফরহাদ রেজা দলকে কিছুটা হলেও রক্ষা করেন। ৪২ বল খেলে ৪৯ রান সংগ্রহ করে দলকে এগিয়ে নেন তিনি।  তাইজুল ইসলাম করেন ১৪ রান। শেষ পর্যন্ত ৮৭ রানে গুটিয়ে যায় বিসিবি উত্তরাঞ্চল।

ওয়ালটনের ইলিয়াস সানী ৪৪ রান খরচ করে পাঁচ উইকেট নেন। এছাড়া শাহাদাত হোসেন ও মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ দুটি করে উইকেট নেন।

ফলে দুই ইনিংস মিলে ওয়ালটনের লক্ষ্য দাঁড়ায় ২৬৬ রান। সহজ জয়ের লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে মধ্যাঞ্চলের ইলিয়াস সানী ছাড়া কেউ সুবিধা করতে পারেনি। প্রথম ইনিংসে ছয় উইকেট পাওয়া তাইজুল ইসলাম দ্বিতীয় ইনিংসেও বল হাতে জ্বলে উঠেন। মাত্র ৮৯ রানে পাঁচটি উইকেট শিকার করেন তিনি। ব্যাট হাতে ওয়ালটনের পক্ষে ইলিয়াস সানী সর্বোচ্চ ৬০ রান করেন। শেষ পর্যন্ত ২১৫ রানে অলআউট হয় ওয়ালটন। আর বিসিবি উত্তরাঞ্চল জয়ী হয় ৫১ রানে।

ট্যাগ: