banglanewspaper

তৌহিদুজ্জামান তন্ময়: সকল জল্পনা-কল্পনা আর অপেক্ষার অবসান ঘটিয়ে অবশেষে বাংলাদেশে চালু হলো বিশ্বব্যাপী অর্থ স্থানান্তরের অনলাইন প্ল্যাটফর্ম পেপালের জুম সার্ভিস।

বৃহস্পতিবার (১৯ অক্টোবর) রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে প্রধানমন্ত্রীর তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয় ‘পেপ্যাল‍+জুম সার্ভিস অ্যান্ড ফ্রিল্যান্সার কনফারেন্স’ শীর্ষক অনুষ্ঠানে এই সেবার উদ্বোধন করেন।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে সজীব ওয়াজেদ জয় বলেন, এ সেবা চালুর মাধ্যমে দেশের তরুণদের মেধা, নতুন নতুন চিন্তাধারা ও সৃজনশীল মনোভাব দেশকে এগিয়ে নিতে সহায়তা করবে। শুরু থেকেই বর্তমান সরকার সরকারি বিভিন্ন সেবা অনলাইনে সহজে দেওয়ার জন্য কাজ করছে। তারই অংশ হিসেবে আজ পেপালের যাত্রা শুরু হল। এ সময় তিনি মহৎ এই উদ্যোগের সঙ্গে জড়িত সংশ্লিষ্ট সবাইকে ধন্যবাদ জানান।

জয় বলেন, প্রবাসীরা এখন থেকে ঝামেলাহীনভাবে বাংলাদেশে টাকা পাঠাতে পারেন। এই টাকা দুই ঘন্টার মধ্যে আপনার একাউন্টে চলে আসবে। সাধারণত চল্লিশ মিনিট লাগে, তবে সর্বোচ্চ দুই ঘন্টা। হয়তো কিছু ক্ষেত্রে কয়েক মিনিটের মধ্যেও চলে আসবে। পেপ্যালে টাকা পাঠাতে বাৎসরিক কোনো ফি নেই বলেও জানান জয়।

তিনি বলেন, ডিজিটাল বাংলাদেশের আরো একধাপ এগিয়ে নেওয়ার জন্য চলতি বছরেই আমাদের সরকার ফোরজি চালু করতে যাচ্ছে। ভবিষ্যতে ফাইভজি কিংবা সিক্সজির মতো সেবা এলেও আমরা সেটাতে অগ্রসর হবো।

সজীব ওয়াজেদ বলেন, ২০১৮ সালের মধ্যে দেশের সব ইউনিয়নকে ‘ইনফো সরকার ৩’ প্রকল্পের আওতায় ফিক্সড ব্রডব্যান্ডের মধ্যে আনা হবে। এ ছাড়া ইন্টারনেটের দাম প্রতিবছর কমানোর আশ্বাস এবং চলতি বছরের মধ্যে ফোরজি চালুর ঘোষণাও দেন তিনি। 

তিনি বলেন, এক হাজার ডলারের নিচে আনলে পাঁচ ডলার দিতে হবে। এক হাজার ডলারের উপরে আনলে এখানে কোন ফি নাই। এই টাকা আপনি সপ্তাহে সাত দিন চব্বিশ ঘন্টা পাঠাতে পারবেন।

অনুষ্ঠানে সভাপতির বক্তব্যে তথ্য ও যোগাযোগপ্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনায়েদ আহমেদ পলক বলেন, বিশ্বের বিভিন্ন দেশের মতো বাংলাদেশেও আপাতত পেপ্যালের জুম সার্ভিসের মাধ্যমে আমাদের ফ্রিল্যান্সার ও প্রবাসী বাংলাদেশিরা অর্থ পাঠাতে (ইনবাউন্ড) পারবেন। তবে দেশ থেকে অর্থ বিদেশে পাঠানো যাবে না। প্রধানমন্ত্রীর আইসিটি বিষয়ক উপদেষ্টার নেতৃত্বে পর্যায়ক্রমে আউটবাউন্ডসহ পরিপূর্ণ পেপ্যাল সেবা চালু করতে আমাদের উদ্যোগ অব্যাহত থাকবে।

বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর ফজলে কবির বলেন, এই সেবা চালুর ফলে বাংলাদেশের পাঁচ লাখ ফ্রিল্যান্সার উপকৃত হবেন।

সোনালী ব্যাংক, রূপালী ব্যাংক, অগ্রণী ব্যাংক, জনতা ব্যাংক, সোস্যাল ইসলামী ব্যাংক, উত্তরা ব্যাংক, পূবালী ব্যাংক, সিটি ব্যাংক ও ইসলামী ব্যাংকে প্রাথমিকভাবে এই সেবা চালু হচ্ছে।

অনুষ্ঠানে ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি ইমরান আহমেদ, তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের সচিব সুবীর কিশোর চৌধুরী বক্তব্য দেন।

অনুষ্ঠানে তথ্য ও যোগাযোগপ্রযুক্তি বিভাগের লার্নিং অ্যান্ড আর্নিং প্রকল্প থেকে বাছাই করা দুই হাজার ফ্রিল্যান্সার অংশ নেন। তাদের মধ্যে ১৬ জনকে পুরস্কৃত করা হয়।

ভিডিও-

ট্যাগ: