banglanewspaper

নিউজ ডেস্ক: পদত্যাগ করলেন প্রধান বিচারপতি এস কে সিনহা? শুক্রবার স্থানীয় সময় সকাল ১০ টায় সিঙ্গাপুর থেকে কানাডার উদ্দেশে রওনা হওয়ার পূর্বে তিনি পদত্যাগ করেন বলে তার পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে।
 
রাষ্ট্রপতি বরাবর তিনি এ পদত্যাগ পত্র পাঠিয়েছেন বলে ওই পারিবারিক সূত্র জানায়। তবে প্রধান বিচারপতির পদত্যাগের এ বিষয়টি সরকারের কোন মহল থেকে নিশ্চিত করা হয়নি। এখন সংবিধানের ৯৭ অনুচ্ছেদ অনুযায়ী পরবর্তী প্রধান বিচারপতি নিয়োগ দিতে হবে বলে আইন বিশেষজ্ঞরা জানিয়েছেন।

দেশের কয়েকটি সংবাদপত্রে প্রকাশিত প্রতিবেদন থেকে জানা যায়, গতকাল সিঙ্গাপুর থেকে কানাডা রওনা হওয়ার আগে প্রধান বিচারপতি এসকে সিনহা পদত্যাগপত্রে সই করেন। তার পারিবারিক সূত্রে এই তথ্য জানা যায়। এ ব্যাপারে সিনহার স্ত্রী ও তার ‍দুই মেয়ে ভূমিকা রাখেন।

বিচারপতি এস কে সিনহার ৩৯ দিনের ছুটি গতকাল শুক্রবার শেষ হয়েছে। তিনি বর্তমানে কানাডায় তার ছোট মেয়ের বাসায় অবস্থান করছেন।

গতকাল আইনমন্ত্রী আনিসুল হক জানান, প্রধান বিচারপতির ছুটির মেয়াদ বাড়ানোর বিষয়ে কোনো তথ্য তাদের কাছে নেই। প্রধান বিচারপতির ছুটির মেয়াদ না বাড়ালে আজ থেকে তিনি অনুপস্থিত গণ্য হবেন বলে জানান মন্ত্রী।

বিভিন্ন গণমাধ্যম সূত্রে জানা গেছে, প্রধান বিচারপতি গতকাল শুক্রবার সিঙ্গাপুর থেকে কানাডা গেছেন। এর আগে অস্ট্রেলিয়া থেকে গত সোমবার রাতে সিঙ্গাপুরে পৌঁছান তিনি। কানাডায় প্রধান বিচারপতির ছোট মেয়ে আশা সিনহা থাকেন।

সূত্র জানিয়েছে, পদত্যাগ কার্যকর হতে সময় লাগবে। এটি প্রথমে সুপ্রিমকোর্ট প্রশাসনের কাছে আসবে। তার পর সেটি আইন মন্ত্রণালয় হয়ে রাষ্ট্রপতির কাছে পৌঁছবে। রাষ্ট্রপতি তার পদত্যাগপত্র গ্রহণের পর পরবর্তী পদক্ষেপ নেবেন।

গত ১৩ অক্টোবর রাতে অস্ট্রেলিয়ার উদ্দেশে ঢাকা ছাড়েন প্রধান বিচারপতি। দেশ ছাড়ার আগে প্রধান বিচারপতি তার বাসভবনের সামনে উপস্থিত সাংবাদিকদের বলেন, ‘আমি অসুস্থ নয়। বিচার বিভাগের স্বার্থে ফিরে আসব। ষোড়শ সংশোধনী নিয়ে একটি মহল প্রধানমন্ত্রীকে ভুল বুঝিয়েছেন।’ তিনি একটি লিখিত বিবৃতিও সাংবাদিকদের দিয়ে যান। পরের দিন ১৪ অক্টোবর সুপ্রিমকোর্ট প্রশাসন থেকে একটি বিবৃতি প্রকাশ করা হয়। বিবৃতিতে বলা হয়, প্রধান বিচারপতির বিরুদ্ধে ১১টি অভিযোগ ওঠার পর তার কাছে ব্যাখ্যা চেয়ে কোনো সদুত্তর পাওয়া যায়নি। এ কারণে প্রধান বিচারপতির সঙ্গে বসতে চাননি আপিল বিভাগের বিচারপতিরা। এ অবস্থায় প্রধান বিচারপতির দেশে ফেরা নিয়ে ধূম্রজালের সৃষ্টি হয়।

গত সপ্তাহের প্রথম দিকে প্রধান বিচারপতি এসকে সিনহা একাই অস্ট্রেলিয়া থেকে সিঙ্গাপুরে আসেন। সেখানে উদ্ভূত পরিস্থিতির সমাধানের জন্য দফায় দফায় সমঝোতা বৈঠক করেন। বৈঠকে প্রধান বিচারপতি এসকে সিনহাসহ তৃতীয় একটি পক্ষও ছিল। বৈঠকে এসকে সিনহা ১১ অভিযোগের বিষয়টি নিষ্পত্তি করে সম্মানজনকভাবে দেশে ফিরে বিচারকার্য পরিচালনার জন্য এজলাসে বসতে চেয়েছিলেন। অন্যথায় পদত্যাগ করতে চান। সূত্রটি আরও জানায়, কিছু দিন আগে প্রধান বিচারপতি এসকে সিনহা তার এক ঘনিষ্ঠ সহযোগীর মাধ্যমে এ দেশ থেকে ই-মেইলযোগে পদত্যাগপত্রের খসড়া নেন। এরপর পদত্যাগপত্র তিনি নিজেই চূড়ান্ত করেন। পদত্যাগপত্রটি সঙ্গে করে তিনি সিঙ্গাপুরে আসেন।

ট্যাগ: