banglanewspaper

নিজস্ব প্রতিনিধি: আজ বৃহস্পতিবার ঢাকায় নামছেন খ্রিষ্টান সম্প্রদায়ের সর্বোচ্চ ধর্মগুরু ভ্যাটিকান সিটির রাষ্ট্রপ্রধান পোপ ফ্রান্সিস। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বিশেষ আমন্ত্রণে তিন দিনের সফরে তিনি ঢাকায় নামছেন। তাকে দুপুর তিনটায় হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে স্বাগত জানাবেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ। 

২৬৬তম এই পোপ বিমানবন্দর থেকে প্রথমেই যাবেন সাভারে জাতীয় স্মৃতিসৌধে। এরপর ধানমণ্ডির ৩২ নম্বরে বঙ্গবন্ধু স্মৃতি জাদুঘরে। তিনি জাতির পিতার প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ করবেন। 

আগামীকাল শুক্রবার সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে খ্রিষ্টধর্মাবলম্বীদের সমাবেশে বক্তৃতা ছাড়াও একাধিক সমাবেশে বক্তব্য দেবেন পোপ। বৈঠক করবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে। পরিচালনা করবেন আন্তঃধর্মীয় প্রার্থনা সভা। এরই মধ্যে সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে চিরায়ত বাংলার ঐতিহ্যের প্রতীক কুঁড়েঘরের আদলে ছনের তৈরি আসন স্থাপন করা হয়েছে। 

এ আসনে বসেই পোপ ফ্রান্সিস যাজকদের অভিষেক অনুষ্ঠান পরিচালনা করবেন, শান্তির বাণী শোনাবেন খ্রিষ্টান সম্প্রদায়ের ভক্তকুলসহ লাখো মানুষের উদ্দেশে।

মিয়ানমারের রাজনৈতিক-সামাজিক কঠোর বাস্তবতা ও স্পর্শকাতরতার কারণে পোপ ফ্রান্সিস সেখানে তার ভাষণে ‘রোহিঙ্গা’ শব্দটি উচ্চারণ করেননি। তবে তার ভাষণে মিয়ানমারের সব ধর্মসম্প্রদায়ের মানুষের ঐক্য ও সম্প্রীতির পথে সমাধানের কথা জোরালোভাবে বলেছেন। আগে ভ্যাটিকান থেকে দেওয়া বিবৃতিতে তিনি রোহিঙ্গা নির্যাতনের নিন্দা করেছেন এবং তাদের ‘ভাই ও বোন’ বলে উল্লেখ করেছেন।

প্রসঙ্গত, তিরিশ বছর আগে ১৯৮৬ সালে পোপ দ্বিতীয় জন পল এবং ১৯৭০ সালে প্রলয়ঙ্করী উপকূলীয় সাইক্লোন-জলোচ্ছ্বাসের পটভূমিতে পোপ ষষ্ঠ পল এসেছিলেন বাংলাদেশে। পোপ ফ্রান্সিস এই ভূখণ্ডে তৃতীয় পোপ। 

ট্যাগ: Banglanewspaper ঢাকায় পা রাখছেন পোপ জাতীয় স্মৃতিসৌধ ও বঙ্গবন্ধু স্মৃতি জাদুঘর