banglanewspaper

আমরা সবাই সুস্থ থাকতে চাই। সুস্থ থাকতে আমাদের সঠিক খাওয়া, নিয়মতান্ত্রিক জীবনযাপনের পাশাপাশি নিয়মিত ব্যায়াম করা প্রয়োজন।

অনেকেই জানতে চায় কোন বয়সে ব্যায়াম শুরু করতে হয়? আসলে ব্যায়ামের জন্য কোনো নির্দিষ্ট বয়স নেই।তবে ১৫ বছরের পর থেকে ৬০ বছর পর্যন্ত সব সুস্থ নারী-পুরুষ ব্যায়াম করতে পারবেন।

নিয়মিত ব্যায়ামের উপকারিতা অনেক বেশি। ব্যায়ামের ফলে আমাদের শরীরের রক্ত সঞ্চালন বৃদ্ধি পায়, শরীরের ওজন কমে, ত্বক ভালো থাকে, রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করে, কর্মক্ষমতা বাড়িয়ে দেয়, ভাল ঘুম হয়, মানসিক চাপ কমে, কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করা ছাড়াও আরও অনেক সমস্যার সমাধান হয়।

আমাদের সুস্থ শরীর এবং মনের জন্য ব্যায়াম অনেক গুরুত্বপূর্ণ। অনেকেই বলেন, আমরা এতো ব্যস্ত থাকি ব্যায়াম করার জন্য সময় নেই। অাবার অনেকেই আছেন সারাদিনে তেমন কাজ করেন না, তবুও তাদের ব্যায়াম করার সময় হয় না। কিন্তু কাজের কথা হচ্ছে প্রতিদিনের ব্যস্ততার মাঝেও কিছুটা সময় ব্যায়াম করার জন্য বের করা উচিত।

জিমে গিয়ে ব্যায়াম করার  করার ইচ্ছা, সময় এবং সামর্থ্য সবার থাকে না। আর তাই শিখে নিন ঘরে করা যায় এমন কিছু হালকা ব্যায়াম করার। 

সোজা হয়ে দাঁড়িয়ে পেছনের দিকে পা তুলে হাত দিয়ে ধরে রাখুন।

১০ সেকেন্ড এক পা এভাবে রেখে ছেড়ে দিয়ে অন্য পা তুলে ধরুন।

এভাবে প্রতিদিন ২০ বার করুন প্রতি পা ৩ বার করে করার পর ৩০ সেকেন্ড বিরতি নিন।

সোজা হয়ে দাঁড়ান ঘাড়ের পেছনে হাত দিয়ে নিচের দিকে ঝুঁকে আসুন, যতোদূর সম্ভব।

এভাবে ১০ বার করুন।

দাঁড়িয়ে দুই হাত কোমরে রেখে মাথা ডানে, বায়ে, সামনে এবং পেছনে এভাবে ১২ বার ঘোরান।

সোজা হয়ে শুয়ে মাথার পেছনে দুই হাত রেখে ওঠার চেষ্টা করুন, খেয়াল রাখবেন পা ভাঁজ করবেন না।

এভাবে ৮ বার করুন।

যেকোনো যোগব্যায়াম করার সময়ই কিছু বিষয় মাথায় রাখুন।

সকালে হালকা কিছু খেয়ে ব্যায়াম করুন।

ব্যায়াম করার সময় আরামদায়ক পোশাক পরুন।

প্রথমেই বেশি সময় নিয়ে কঠিন ব্যায়াম করার  করবেন না। ধীরে ধীরে ব্যায়ামের সময় বাড়ান।

ব্যায়ামের কিছু বই এবং সিডি পাওয়া যায়। এগুলো দেখে নিতে পারেন।

নিয়মিত কিছুক্ষণ ব্যায়াম করুন। দেহ-মনে সুস্থ থাকুন।

ট্যাগ: