banglanewspaper

ঢাবি প্রতিনিধি: ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অমর একুশে হলের ডাইনিং পরিচালনায় ব্যপক অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে হল শাখা ছাত্রলীগের প্রচার সম্পাদক আহসান শুভর বিরুদ্ধে।

হল সূত্রে জানা যায়, আহসান শুভ ডাইনিং এর দায়িত্ব পালনকালে ব্যপক অনিয়ম করেছেন। অনিয়ম ও নিম্ন মানের খাবার পরিবেশনের কারণে পূর্বের তুলনায় ডাইনিংয়ে সদস্যা প্রায় অর্ধেকে নেমে আসে বলে জানা যায়।

হল শাখা ছাত্রলীগের এ প্রচার সম্পাদক আহসান শুভ এপ্রিল থেকে ডাইনিয়ের সেক্রেটারী হিসেবে দায়িত্ব পালন করা শুরু করেন। এসময় ডাইনিংয়ে টাকা না দিয়েও শুভর ঘণিষ্ঠ জনেরা ডাইনিংয়ে নিয়মিত খাবার খেতেন বলে অভিযোগ পাওয়া যায়।

হলের নতুন কমিটি নির্বাচন করা হলেও রমযানের আগে তাদের দায়িত্ব দেয়া হবে না জানা যায়।

নতুন কমিটি হলে শুভ রমযানের আগে তাদের দায়িত্ব তুলে না দিয়ে বিভিন্ন অযুহাত তুলে ধরেন। এ বিষয়ে শুভ প্রথমে বলেন, কমিটির সবাই নতুন। রমযানের সময় অনেক কাজ করতে হয়। যা তারা পারবে না। তাই হলের হাউজ টিউটর স্যার আমাকে অনুরোধ করেছে রমযানেও দায়িত্ব পালন করার জন্য। কিন্তু সূত্রে জানা যায়, ডাইনিংয়ে দায়িত্ব পালনের জন্য নতুন কমিটি দেয়া হলেও শুভ বিভিন্ন ধরণের টালবাহানা শুরু করেন। নতুন কমিটি রমযানে দায়িত্ব পালন করতে পারবে না হাউজ টিউটরদের কাছে অভিযোগ দেন। এমনকি এটা নিয়ে ডাইনিংয়ের দায়িত্বপ্রাপ্ত হাউজ টিউটরের সাথে মিটিংয়ে বাগবিতন্ডা হয় শুভর সাথে ।

ফিস্টের সময় ডাইনিংয়ের মেম্বার না এমন নেতারা ডাইনিংয়ে খাবার খান। এছাড়াও হলে বিভিন্ন নেতার রুমে ডাইনিং থেকে অবৈধধভাবে খাবার যায় বলে অভিযোগ আছে। এতে করে ডাইনিংয়ে খাবারের মান কমে যায়। এতে শিক্ষার্থীদের মাজে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়। তারা ডাইনিংয়ে টাকা না দিয়ে বাইরে খেতে বাধ্য হচ্ছেন বলে জানা যায়। বাইরে খাবার খাওয়ায় শিক্ষার্থীদের মাসিক ব্যয় বেড়ে যাওয়ার পাশাপশি বিভিন্ন ধরণের স্বাস্থ্য ঝুঁকি দেখা দিচ্ছে। এছাড়াও রমযানে সেহরী খাওয়া নিয়ে শিক্ষার্থীরা বিভিন্ন ধরণের সমস্যায় পড়ছেন বলে জানা যায়।

ডাইনিংয়ে টাকা না দিয়ে বিভিন্ন সময় বিভিন্ন জনে খাবার খাওয়ার কথা স্বীকার করেন শুভ। তিনি এবিষয়ে কর্তৃপক্ষের কাছে অভিযোগ করেছেন বলে জানান প্রতিবেদককে। কিন্তু হলের  হাউজ টিউটর সূত্রে জানা যায়, ডাইনিংয়ে কেউ টাকা না দিয়ে খাবার খান এ ধরণের কোন অভিযোগ পাননি তারা। এবিষয়ে মিথ্যা কথা বলার কারণ জিঙ্গেস করলে শুভ প্রতিবেদককে বলেন, আপনি আমাকে কথার মাধ্যমে বিভ্রান্ত করার চেষ্টা করছেন। যারা টাকা না দিয়ে ডাইনিংয়ে খায় তাদের কারো সাথে ঘনিষ্ঠতার বিষয় অস্বীকার করেন শুভ। তবে যারা ডাইনিংয়ে যারা খাবার খান তিনি তাদের কারো নাম বলতে অস্বীকার করেন।

দায়িত্ব না দিলে নতুন কমিটি দিয়ে তাদের কেন অপমানিত করা হয়েছে এবিষয়ে অভিযোগ তুলেন শিক্ষার্থীরা।

দায়িত্ব দিলে রমযানে পালন করতে পারবেন বলে জানান, নতুন কমিটির সদস্যরা। কিন্তু দায়িত্ব না দিলে কেন কমিটি গঠন করা হলো এ নিয়ে প্রশ্ন তুলেন শিক্ষার্থীরা। নতুন কমিটি গঠনেও শুভর বিরুদ্ধে কারচুপির অভিযোগ রয়েছে।

হলের আবাসিক শিক্ষক ড. মো. জাভীদ ইকবাল বাঙালীকে না জানিয়েই মিটিং ডাকেন ডাইনিং ম্যানেজার। এতে শুভ নিজের অনুগতদের কমিটিতে আনেন বলে অভিযোগ পাওয়া যায়।

আবাসিক শিক্ষক ড. মো. জাভীদ ইকবাল বাঙালী বলেন, বিভিন্ন সময়ে ডাইনিং নিয়ে বিভিন্ন কথা আমাদের কানে আসলেও এ বিষয়ে আমাদের কাছে কেউ অভিযোগ করেনি। অভিযোগ করলে আমরা অবশ্যই এবিষয়ে ব্যবস্থা নেব।

ট্যাগ: banglanewspaper ঢাবি