banglanewspaper

মনিরুল ইসলাম মনি: বাংলাদেশ প্রেস ইনস্টিটিউটের (পিআইবি) মহাপরিচালক শাহ আলমগীরকে শুভেচ্চা জানিয়েছেন প্রতিষ্ঠানটির শিক্ষার্থীরা।  

সরকারের পক্ষ থেকে পিআইবির মহাপরিচালক হিসেবে শাহ আলমগীর এর  চুক্তিভিত্তিক নিয়োগের মেয়াদ আরও এক বছর  বাড়ানো হয়েছে। এ উপলক্ষে বুধবার দুপুরে ছাত্র-ছাত্রীরা তাকে শুভেচ্ছা জানিয়েছেন। এসময় উপস্থিত ছিলেন একে আজাদ, ফাহিম মোনায়েম, লালন সেখ, জাহিদা পারভেজ ছন্দা, জামিল খান, মনিরুল ইসলাম মনি, তাহামিনা তালুকদার। এছাড়া পিআইবির কোর্স কো-অডিনেটর শায়লা আকতার।

২০১৩ সালেই ৭ জুলাই পিআইবির মহাপরিচালক পদে যোগ দেন শাহ আলমগীর। চুক্তিভিত্তিক নিয়োগ শেষ হওয়ার পরে প্রথমবার ১ বছরের জন্য, পরে ২ বছর এবং পরে আরো ২ বছরের জন্য পুনরায় নিয়োগ দেয়া হয় তাকে। গত ৭ জুলাই পাঁচবছর পূরণ করার পরে এবার আরও  একবার তাকে ১ বছরের জন্য নিয়োগ দেয়া হলো।

শাহ আলমগীরের সাংবাদিকতা শুরু অবজারভার গ্রুপের ‘কিশোর বাংলা’ পত্রিকা দিয়ে। এরপর কাজ করেন দৈনিক জনতা, বাংলার বাণী, দৈনিক আজাদ  ও দৈনিক সংবাদে। প্রথম আলো প্রকাশের সময় তিনি যুগ্ম বার্তা সম্পাদক হিসেবে যোগ দেন। সেখান থেকে  চ্যানেল আই।

তিনি ছিলেন চ্যানেল আইয়ের প্রধান বার্তা সম্পাদক। কাজ করেছেন একুশে টেলিভিশনে, হেড অব নিউজ হিসেবে। পরিচালক (বার্তা) ছিলেন যমুনা টেলিভিশনে। মাছরাঙায় ছিলেন বার্তা প্রধান। সবশেষ এশিয়ান টিভিতে, ছিলেন প্রধান নির্বাহী ও প্রধান সম্পাদক।

সাংবাদিক ইউনিয়নের সঙ্গে শাহ আলমগীর সক্রিয়ভাবে জড়িয়ে আছেন। তিনি ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের দু-দুবার বিপুল ভোটে সভাপতি নির্বাচিত হন।

শাহ আলমগীরের বাড়ি ব্রাহ্মণবাড়ীয়া জেলার নবীনগরে। তবে বাবার চাকরির সুবাদে পড়াশোনার  সময়টা কাটে বৃহত্তর ময়মনসিংহে। গৌরীপুর কলেজ থেকে ইন্টারমিডিয়েট পাস করে চলে আসেন ঢাকায়।

ভর্তি হন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে। বাংলা সাহিত্যে অনার্স ও মাস্টার্স করেন। সাংবাদিকতায় ডিপ্লোমা করেছেন মস্কো ইনস্টিটিউট অব জার্নালিজম থেকে। শাহ আলমগীর চলচ্চিত্রের সঙ্গেও একসময় যুক্ত ছিলেন। যৌথ প্রযোজনার  জনপ্রিয় বাংলা সিনেমা অবিচারের সহকারি পরিচালক হিসেবে কাজ করেন।

শাহ আলমগীরের স্ত্রী ফৌজিয়া বেগম একটি ফার্মাসিউটিক্যাল কোম্পানিতে কর্মরত। ছেলে আশিকুল আলম ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে বিবিএ পড়ছেন। আর ‘এ’ লেভেলের ফার্স্ট পার্ট পরীক্ষা দিয়েছেন মেয়ে অর্চি অনন্যা।

ট্যাগ: Banglanewspaper bdnewshour24শাহ আলমগীর