banglanewspaper

প্রথম দেখার মতোই প্রথম সেক্সের অভিজ্ঞতাও রোমহর্ষক। প্রথমবার ডেটিংয়ে যাওয়ার আগে যেমন সার্বিক প্রস্তুতি নিতে হয়, তেমনই প্রথম সেক্সের আগেও নিজেকে তৈরি করতে হয়। ডি-ডে বলে কথা! প্রথম সেক্সের আগে কীভাবে নিজেকে প্রস্তুত করবেন, পরামর্শ দিয়েছেন বিশেষজ্ঞরা। দেখে নিন তার সংকলন।

মানসিক প্রস্তুতি নিন: প্রথম সেক্সের আগে মানসিক প্রস্তুতি নিতে হবে। অনেক তরুণ-তরুণী আছে, যারা মানসিক প্রস্তুতি না নিয়ে ঝোঁকের বশে হঠাৎ করে সেক্স করে ফেলে। তার পর অপরাধভোগে ভুগতে থাকে। এমনটা যেন না হয়।

কারণ, প্রথম সেক্সের সঙ্গে যে অতুলনীয় ভাল লাগা জড়িয়ে থাকে, তা উপভোগ করতে গেলে আগাম মানসিক প্রস্তুতি দরকার বৈকি! এক্ষেত্রে সেক্সের আগে প্রস্তুতি হিসাবে পর্নোগ্রাফি দেখতে পারেন, পর্ন সাহিত্য পড়তে পারেন বা যাদের সেক্সের অভিজ্ঞতা আছে, তাদের সঙ্গে আলোচনা করতে পারেন।

নিজেকে ওই জায়গায় রেখে কল্পনা করুন। দেখবেন, ব্যাপারটা অনেক সোজা হয়ে গিয়েছে। সেক্সের সময় আর ভয় বা সংশয় থাকছে না।

প্রোটেকশন তৈরি রাখুন: ঝোঁকের বশে প্রোটেকশন না নিয়েই যারা সেক্স করে, তাদের ক্ষেত্রে অবাঞ্ছিত গর্ভধারণের আশঙ্কা থাকে এবং সেটা হয়ও।

প্রথম সেক্সের পরই বাচ্চা এসে যাওয়াটা মোটেই কাঙ্ক্ষিত নয়, বিশেষত অবিবাহিত যুগলদের ক্ষেত্রে। তাই বিছানায় যাওয়ার আগে প্রোটেকশন তৈরি রাখতে হবে। ছেলেদের ক্ষেত্রে কন্ডোম তৈরি রাখতে হবে। নইলে সেক্সের কয়েকদিন আগে থেকেই মেয়েদের পিল খাওয়া শুরু করতে হবে। পিলের কোর্স সম্পূর্ণ করতে হবে, তা হলে শারীরিক ক্ষতি হওয়ার ভয় থাকবে না।

আজকাল ফিমেল কন্ডোমও বাজারে এসে গেছে। তাও ব্যবহার করা যেতে পারে। এগুলো একান্তই ভুলে গেলে সেক্স করার ৭২ ঘণ্টার ভিতর আই-পিল খেয়ে নিতে হবে।

লুব্রিক্যান্ট রাখা ভাল: প্রথমবার সেক্সের সময় অনেক মেয়েরই যোনিপথ ঠিকঠাক পিচ্ছিল হয় না। এর কারণ, টেনশনের চোটে যোনি পিচ্ছিল হওয়া বন্ধ হয়ে যায়। ফলে, সঙ্গমের সময় খুব ব্যথা লাগে। এমন পরিস্থিতি এড়াতে লুব্রিক্যান্ট ব্যবহার করা যায়।

ওষুধের দোকান ছাড়াও অনলাইনে তা কিনতে পাওয়া যায়। সেক্সের সময় যদি মনে হয়, যোনিপথ খসখসে হয়ে রয়েছে, তা হলে প্রয়োজন মতো লুব্রিক্যান্ট লাগিয়ে নিলেই মুশকিল আসান হবে। অ্যানাল সেক্স করতে চাইলে লুব্রিক্যান্ট খুব ভাল কাজ দেয়।

পজিশন নিয়ে পরীক্ষা-নিরীক্ষা করুন: সমীক্ষায় দেখা গিয়েছে, আমাদের দেশে অধিকাংশ যুগলই মিশনারি পজিশনে সেক্স করে। অর্থাৎ নারী চিৎ হয়ে পা ফাঁক করে শুয়ে থাকে আর পুরুষ তার উপর শুয়ে সেক্স করে। এর বাইরেও অজস্র সেক্স পজিশন আছে।

যেমন ফেস অফ পজিশন (পারস্পরিক সামনাসামনি মুখ করে বসা), স্পুন পজিশন (নারী কাত হয়ে শুয়ে থাকে, পুরুষ পিছন থেকে পুশ করে), ডগি পজিশন (নারী হামাগুড়ি দেওয়ার ভঙ্গিতে থাকে, পুরুষ পিছন থেকে পুশ করে), সিক্সটি নাইন পজিশন (পুরুষ নীচে শুয়ে থাকে আর নারী উপরে উঠে শোয়।

এই পজিশনে পুরুষের পেনিস থাকে নারীর মুখের সামনে আর আর নারীর যোনি থাকে পুরুষের মুখের সামনে। ফলে ওরাল সেক্সে সুবিধা হয়) ইত্যাদি।

পারস্পরিক পছন্দকে সম্মান করুন: প্রথমবার সেক্সের সময় পারস্পরিক পছন্দকে সম্মান জানানো জরুরি। নইলে চিরকালের মতো ভুল বোঝাবুঝি হতে পারে। তা থেকে সম্পর্ক ভেঙে যাওয়াটাও বিচিত্র নয়।

ধরা যাক, সেক্সের সময় আপনি প্রেমিকার স্তনে, গালে খুব জোরে কামড়ে দিচ্ছেন। তাতে আপনার প্রেমিকা খুব ব্যথা পাচ্ছে এবং ব্যাপারটা পছন্দ করছে না। তখন আপনার উচিত সেটা না করা। মাসিকের সময় যদি আপনার প্রেমিকা সেক্স করতে না চায়, তা হলে বাধ্য করা উচিত নয়।

কারণ, মাসিকের সময় সেক্স করলে সংক্রমণের ভয় থাকে। আবার কোনও পুরুষ যদি তার সঙ্গিনীকে ওরাল করে দিতে না চায়, তা হলে সেক্ষেত্রেও মেয়েটির উচিত জোরাজুরি করা থেকে বিরত থাকা।

ট্যাগ: Banglanewspaper প্রথম সেক্স মেয়েদের করণীয়