banglanewspaper

শাহেদুল ইসলাম, ইবি: ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ে (ইবি) শিক্ষক সমিতির সাধারণ সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। সভায় শিক্ষক নিয়োগের ক্ষেত্রে ইউজিসির অভিন্ন শিক্ষক নীতিমালা প্রত্যাখ্যানসহ আরো ১১ টি গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। 

সোমবার বেলা সাড়ে ১২ টায় বিশ^বিদ্যালয়ের বীরশ্রেষ্ঠ হামিদুর রহমান মিলনায়তনে শিক্ষক সমিতির এক সাধারণ সভা অনুষ্ঠিত হয়। সমিতির সাধারণ সম্পাদক প্রফেসর ড. অলী উল্যাহ এর সঞ্চলনায় সভায় সভাপতিত্ব করেন শিক্ষক সমিতির সভাপতি প্রফেসর ড. মিজানুর রহমান। সভায় বক্তব্য রাখেন প্রফেসর ড. আব্দুল মুঈদ, প্রফেসর ড. কামাল উদ্দিন, প্রফেসর ড. এম এয়াকুব আলী, প্রফেসর ড. আব্দুল লতিফ, প্রফেসর ড. ফারুকুজ্জামান খান, প্রফেসর ড. আনোয়ার হোসেন, প্রফেসর ড. আহসান উল্লাহ ফয়সাল, প্রফেসর ড. মতিনুর রহমান প্রমূখ।

এসময় সাধারণ সভায় বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ সিন্ধান্ত গৃহীত হয়। গৃহীত সিন্ধান্তগুলোর মধ্যে বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশন (ইউজিসি) কর্তৃক জারীকৃত শিক্ষক নিয়োগ নীতিমালা প্রত্যাখ্যান, শিক্ষকদের চাকুরীরত অবস্থায় প্রাপ্ত সুবিধা অবসরকালীন সময়ে কর্তন, সেশন বেনিফিট পুণরায় চালুকরণ, সরকার কর্তৃক ঘোষিত পাঁচ শতাংশ সুদে লোন শিক্ষকদের ক্ষেত্রে চালুকরণ, কল্যাণ তহবিলের সুযোগ বৃদ্ধিকরণ, বিশ^বিদ্যালয়ের ফান্ড থেকে গৃহিত লোনের লভ্যাংশ পাঁচ শতাংশ নির্ধারণ, স্বাস্থ্যবীমার মানোন্নয়ন ও ইসলামী স্বাস্থ্যবীমার সাথে চুক্তিকরণ, শিক্ষকদের জন্য পরিবহন সুবিধা বৃদ্ধিকরণ, সহযোগী অধ্যাপক ও অধ্যাপক পদের পদোন্নতি ডিউ তারিখ থেকে কার্যকরকরণ, প্রভাষক ও সহাকারী অধ্যাপকদের এম.ফিল ও পিএইচডি ডিগ্রীর জন্য অনর্জিত ইনক্রিমেন্ট পুনর্বহাল বিষয়ে সিন্ধান্ত গৃহীত হয়।

এদিকে প্রগতিশীল শিক্ষকদের একাংশ অভিযোগ করে বলেন, ‘ শিক্ষক সমিতি কোরাম পুরোন হওয়ার আগেই সভা শুরু করেছেন। এছাড়া সাধারণ সভা আহবান করার ৭২ ঘন্টা আগে চিঠি ইস্যু করতে হয় কিন্ত শিক্ষক সমিতি ২০ ঘন্টা আগে চিঠি ইস্যুসহ নির্দিষ্ট সময়ের দেড়ঘন্টা অনুষ্ঠান শুরু করে তারা নিয়ম ভঙ্গ করেছে।’

এবিষয়ে ইবি শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক প্রফেসর ড. অলী উল্যাহ বলেন, ‘সভাপতি-সাধারণ সম্পাদক চাইলেই যেকোন সময় সাধারণ সভা আহবান করতে পারে। শিক্ষক সমিতির নীতমালায় ৭২ ঘন্টা আগে চিঠি ইস্যুর কথা নেই। সাধারণ সভার কোরাম পুরণ না হওয়াতে সভা শুরু করতে আমাদের একটু বিলম্ব হয়েছে।’ 

এদিকে অভিযোগ ভিত্তিহীন দাবী করে শিক্ষক সমিতির সভাপতি প্রফেসর ড. মিজানুর রহমান বলেন,‘ সভায় শিক্ষকদের স্বার্থ সংশ্লিষ্ট বিষয়সহ বিশ^বিদ্যালয়ের ভাবমূর্তি রক্ষার জন্য বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে আলোচনা করা হয়। এখানে সরকার বা বিশ^বিদ্যালয় প্রশাসনের বিরুদ্ধে কোনো প্রকার সমালোচনা করা হয়নি। সভায় উপস্থিত সকলে স্বাধীনভাবে মত প্রকাশ করেছেন। কারো কোন অভিযোগ থাকলে সেটা আমাদের সাথে আলোচনা করতে পারে।’
 

ট্যাগ: Banglanewspaper ইউজিসির অভিন্ন নীতিমালা