banglanewspaper

ফলের দোকানে সাজিয়ে রাখলে চকচকে উজ্জ্বল কমলা রঙের এই ফল স্পষ্ট ভাবেই তার উপস্থিতি জানান দেয়। আগে অবশ্য কমলা পুরোটায় বিদেশী ফলের তালিকায় ছিল। এখন আমাদের দেশের পাহাড়ি অঞ্চলে প্রচুর পরিমানে উৎপাদিত হয়। পর্যাপ্ত প্রাপ্তির কারণে দামটাও থাকে হাতের নাগালে। জনপ্রিয় এই ফলে পুষ্টিগুণ আছে অনেক। প্রতি ১০০ গ্রাম কমলাতে ৪৭ কিলোক্যালরি, পটাসিয়াম ১৮১ মিলিগ্রাম, কার্বোহাড্রেটস ১১.৭৫ গ্রাম, খাদ্য আঁশ ২.৪ গ্রাম এবং ভিটামিন এ ও সি আছে প্রচুর পরিমানে। সুস্বাদু কমলাতে থাকা পুষ্টি উপাদান আপনার শরীরে সৃষ্টি করে প্রতিরক্ষা দেয়াল। আসুন জেনে নেয়া যাক কমলায় আপনার স্বাস্থ্য উপকারী দিক সম্পর্কে-

- দৈনিক যতটুকু ভিটামিন ‘সি’ প্রয়োজন তার প্রায় সবটাই মাত্র একটি কমলা খেলেই পাওয়া সম্ভব।

- কমলায় থাকা শক্তি সরবরাহকারী চর্বিমুক্ত ক্যালরি দেহের শক্তি বৃদ্ধি করে। দূর্বলতা কাটিয়ে আপনাকে করে তোলে ঝরঝরা প্রাণবন্ত।

- কমলায় থাকা উচ্চ মানের ভিটামিন সি, যা ক্যানসার প্রতিরোধে কার্যকরী অ্যান্টিঅক্সিডেন্টের ভূমিকা বাড়াতে সাহায্য করে।

- দেহে পর্যাপ্ত রক্ত তৈরি করতে এবং দ্রুত ক্ষত সারাতে এর তুলনা হয় না।

- কমলা ভিটামিন বি ফোলেটের খুব ভালো উৎস। জন্মগত ত্রুটি এবং হৃদরোগ সারাতে ভালো কাজ করে।

- প্রতিদিনের প্রয়োজনীয় পটাসিয়ামের প্রায় ৭ ভাগ পূরণ করা সম্ভব একটি কমলা দিয়ে। যা শরীরের তরলের ভারসাম্য রক্ষার জন্য এটি খুব উপকারী।

- কমলাতে উপস্থিত অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট ত্বকের সজীবতা বজায় রাখে।

- কমলাতে উপস্থিত বিটা ক্যারোটিন সেল ড্যামেজ প্রতিরোধে সহায়তা করে।

- এর ক্যালসিয়াম দাঁত ও হাড় গঠনে সাহায্য করে। ম্যাগনেসিয়াম থাকায় ব্লাড প্রেসার নিয়ন্ত্রণে থাকে।

- পটাসিয়াম ইকেট্রোলাইট ব্যালেন্স বজায় রাখে এবং কার্ডিওভাস্কুলার সিস্টেম ভালো রাখতে সহায়তা করে।

- কমলাতে উপস্থিত লিমিনয়েড মুখ, ত্বক, ফুসফুস, পাকস্থলীকে কোমল রাখে এবং স্তন ক্যানসার প্রতিরোধে সহায়তা করে।

- ডায়াবেটিস প্রতিরোধ এবং ওজন কমাতেও সহায়তা করে।

- চোখের সুস্থতায় কমলায় থাকা ভিটামিন এ কার্যকরী ভূমিকা পালন করে।

ট্যাগ: