banglanewspaper

নিজস্ব প্রতিবেদক: ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে ওয়ানডে সিরিজ জিতল বাংলাদেশ। ব্যাটে বলে দুর্দান্তই ছিল বাংলাদেশ। তবে শেষদিকে ম্যাচটি ঠিকই উত্তেজনা ছড়িয়েছে। যে উত্তেজনাকে পাশ কাটিয়ে শেষ হাসি হেসেছে টাইগাররাই। ১৮ রানের জয়ে তিন ম্যাচের সিরিজে ওয়েস্ট ইন্ডিজকে ২-১ ব্যবধানে হারিয়ে সিরিজ জিতে নিল মাশরাফির দল।

বাংলাদেশের দেওয়া ৩০২ রানের লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে ২৮৩ রানে থেমে যায় স্বাগতিক ওয়েস্ট ইন্ডিজের ব্যাটিং ইনিংস। তবে মারমুখী ছিলেন ক্রিস গেইল। ৬৬ বলে ৬ বাউন্ডারি আর ৫ ছক্কায় ৭৩ রান করেন তিনি। শাই হোপ ৬৪ করলেও খরচ করেন ৯৪টি বল। শেষদিকে রভম্যান পাওয়েলের ৪১ বলে ৭৩ রানেই জয়ের সম্ভাবনা জেগেছিল ওয়েস্ট ইন্ডিজের। তবে শেষ রক্ষা হয়নি। বাংলাদেশের পক্ষে ২টি উইকেট পেয়েছেন মাশরাফি।

এর আগে সিরিজ নির্ধারণী শেষ ম্যাচের শুরুর অর্ধেকটা মন মতোই করতে পেরেছে বাংলাদেশ দল। রান বন্যার সেন্ট কিটস মাঠে রানের খোঁজে ধুঁকতে হয়নি বাংলাদেশি ব্যাটসম্যানদের। আগের দুই ম্যাচের ধারাবাহিকতা বজায় রেখে আবারও রান করেছেন তামিম ইকবাল। শেষদিকে ঝড় তুলেছেন মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ।

এই দুইয়ের ব্যাটে ভর করেই মূলত বড় সংগ্রহ দাঁড় করে টাইগাররা। প্রায় বছর দুয়েক পর দ্বিপাক্ষিক সিরিজ জয়ের লক্ষ্যে আগে ব্যাট করে বাংলাদেশের সংগ্রহ ৩০১ রান।

শনিবার সেন্ট কিটসের ওয়ার্নার পার্কে সিরিজ নির্ধারণী তৃতীয় ওয়ানডেতে টসে জিতে ব্যাটিংয়ে নেমে ধীরলয়ে শুরু করেন দুই ওপেনার তামিম ইকবাল এবং এনামুল হক বিজয়। নিজেকে প্রমাণের সুযোগ পেয়ে টানা তিন ম্যাচে ব্যর্থ হলেন বিজয়। দলীয় ৩৫ রানে  ৩১ বলে ১০ রান করে জেসন হোল্ডারের বলে পাওয়েলের তালুবন্দি হন তিনি। তামিমের সঙ্গী হন বিশ্বসেরা অল-রাউন্ডার সাকিব।

ধীরে ধীরে উইকেটে সেট হয়ে সাবলীল ব্যাটিং করতে থাকেন তামিম ইকবাল। ৬৬ বলে স্পর্শ করেন ৫০। দারুণ খেলতে খেলতে হুট করেই ক্যাচ তুলে দিলেন সাকিব আল হাসান। রান তোলার তাড়া কাজ করছিল তার মধ্যে, যেটা দলের জন্যও জরুরি। অফস্পিনার অ্যাশলে নার্সকে সুইপ করতে চেয়েছিলেন সাকিব। ব্যাটের কানায় লেগে চলে যায় কিমো পলের গ্লাভসে। ৪৪ বলে ৩৭ রান করে ফিরেন তিনি।

সাকিবের বিদায়ের সঙ্গে ভাঙে তামিমের সঙ্গে তার ৮১ রানের দারুণ একটি জুটি। এরপর তামিম ইকবালের সঙ্গী হন গত ম্যাচে নায়ক থেকে 'ভিলেন' হওয়া মুশফিক। ১৪ বলে ১ বাউন্ডারিতে ১২ রান করে নার্সের বলে বোল্ড হয়ে যান তিনি।

তবে ধারাবাহিকতার প্রতিশব্দ হয়ে ওঠা তামিম ইকবাল ক্যারিবীয় সফরে তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজে দুটি সেঞ্চুরি উপহার দেন। প্রথম ম্যাচে সেঞ্চুরির পর দ্বিতীয় ম্যাচে করেন হাফ সেঞ্চুরি। আজ সিরিজ নির্ধারণী শেষ ম্যাচে ১২০ বলে ৭ চার ২ ছক্কায় তুলে নেন ক্যারিয়ারের একাদশ সেঞ্চুরি। অবশ্য ১০৩ রানেই তিনি দেবেন্দ্র বিশুর বলে কায়রন পাওয়েলের তালুবন্দি হন।

রান তোলার তাড়ায় পাঁচ নম্বরে ব্যাটিংয়ে নেমেই ঝড় তোলেন অধিনায়ক মাশরাফি। ২৫ বলে ৪ বাউন্ডারি এবং ১ ওভার বাউন্ডারিতে ৩৬ রান করে জেসন হোল্ডারের বলে ক্রিস গেইলের হাতে ধরা পড়েন তিনি। এরপর ক্যারিয়ারের ১৯তম হাফ সেঞ্চুরি তুলে নেন মাহমুদ উল্লাহ রিয়াদ। ছক্কা মেরে ফিফটি করার পথে ৪৪ বল খেলেছেন রিয়াদ। মেরেছেন ৪টি চার এবং ২টি ছক্কা।

অন্যদিকে যথারীতি ব্যর্থ সাব্বির রহমান। ৯ বলে ১২ রান করে ক্যাচ তুলে দিয়ে প্যাভিলিয়নে ফিরেন। তবে আগের মতোই বিধ্বংসী মাহমুদ উল্লাহ। ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে ওয়ানডেতে নিজের সর্বোচ্চ স্কোর করে ফেলেন তিনি। শেষ পর্যন্ত ৪৯ বলে ৫ চার ৩ ছক্কায় অপরাজিত ৬৭ রান করে মাঠ ছাড়েন তিনি। মোসাদ্দেক ৫ বলে ১১* রান করে অবদান রাখেন। দলের স্কোর দাঁড়ায় ৫০ ওভারে ৬ উইকেটে ৩০১।

ট্যাগ: Banglanewspaper ওয়েস্ট ইন্ডিজ