banglanewspaper

মনির হোসেন জীবন, নিজস্ব প্রতিনিধি: স্বপ্ন ছিল আইনজীবী হওয়ার। পরিবার-স্বজনরাও সেই স্বপ্ন বাস্তবায়নের জন্য চালিয়েছে জোড় চেষ্টা। কিন্তু ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি পরীক্ষায় আইন বিষয় পেলেন না, পড়তে হলো রাষ্ট্রবিজ্ঞানে।

অনার্স করার সময়ই বিএনসিসি-তে নাম লেখান। তখন সেরা ১০ ক্যাডেটের একজন হিসেবে রাইডার ফ্লাইংয়ে সুযোগ পেয়ে যান। বিএনসিসি-তে থাকার সময় প্যারেড করেছেন; ধরেছেন অস্ত্রও। তাদের পোশাক, নিয়মশৃঙ্খলা দেখে তার মনে হলো এমন কিছু হবো, পুলিশ হবো। বিশ্ববিদ্যালয়ের পাঠ চুকিয়ে বিসিএস দিলেন, মেধার জোরে উত্তীর্ণ হলেন। বিসিএস ক্যাডারে তার প্রথম পছন্দই ছিল পুলিশ।

গল্পটি স্বপ্নের মতই সত্যিতে রুপান্তির হয়েছে সদ্য বদলি পূর্বক নিয়োগপ্রাপ্ত গাজীপুরের নতুন পুলিশ শামসুন্নাহারের। নারীরা যে বর্তমানে পুরুষের পাশাপাশি সকল ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে তারই উজ্জল দৃষ্টান্ত এসপি শামসুন্নাহার। অদম্য ইচ্ছাশক্তি ও এগিয়ে যাওয়ার প্রেরণাকে বুকে ধারণ করে সফলতার শীর্ষে যে পৌছানো যায় তারই এক বর্তমান প্রতিচ্ছবি এসপি শামসুন্নাহার। 

দেশের বহুল আলোচিত ও শিল্পনগরী হিসেবে পরিচিত গাজীপুর জেলা। বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনা ও  ঐতিহ্যের বাহন হিসেবে গাজীপুরের ব্যপকতা সর্বত্র। তাই এ জেলার আলোচিত বিষয় নিয়ে দেশবাসীর মনে সবসময় বাড়তি কৌতুহল কাজ করে। আর বর্তমানে গাজীপুরের নতুন পুলিশ সুপার শামসুন্নাহার নিয়োগপ্রাপ্ত হওয়ায় অনেক প্রশ্ন ভাবিয়ে তুলেছে অনেককে। 

এসপি শামসুন্নাহারের সংক্ষিপ্ত জীবনী তুলে ধরা হলো ‘বিডিনিউজ আওয়ার’ পাঠকদের জন্য।   

জন্মস্থান: ফরিদপুর সদর উপজেলার চর মাধবিয়া ইউনিয়নের ইসমাইল মুন্সীর ডাঙ্গী। তার বাবা শামসুল হক ও মা আমেনা বেগম। চার ভাই-বোনের মধ্যে সবার বড় শামসুন্নাহার।

চাকুরীতে যোগদান: ২০০১ সালে বিসিএস পাশ করে সহকারী পুলিশ সুপার হিসেবে বাংলাদেশ পুলিশ সার্ভিসে যোগদান করে মানিকগঞ্জ, ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ, পুলিশ সদর দপ্তর, ট্যুরিস্ট পুলিশসহ বাংলাদেশ পুলিশের বিভিন্ন ইউনিটে সফলতার সাথে দায়িত্ব পালন করেছেন।

বিদেশে চাকুরীর অভিজ্ঞতা: ২০১১-২০১৪ পর্যন্ত জাতিসংঘের শাখা অফিস ইতালীতে উচ্চ পদস্থ কর্মকর্তা হিসেবে সফলতার সাথে দায়িত্ব পালন করেন। ২০০৯-২০১০ পর্যন্ত পূর্ব তিমুরে জাতিসংঘ মিশনের মাধ্যমে পূর্ব তিমুর জাতীয় পুলিশের মানব সম্পদ উন্নয়ন কর্মকান্ডে সফলতার সাথে দায়িত্ব পালন করেন।

শিক্ষাগত যোগ্যতা: যুক্তরাজ্যের বার্মিংহাম বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ২০০৭ সালে এমবিএ ডিগ্রী লাভ করেন। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগ থেকে ২০০৫ সালে এমফীল, ১৯৯৮ সালে এমএসএস এবং ১৯৯৬ সালে বিএসএস ডিগ্রী লাভ করেন।

পদক প্রাপ্তি: জাতিসংঘে দীর্ঘদিন উচ্চ পদে সফলতার সাথে দায়িত্ব পালনের স্বীকৃতি স্বরূপ ০৭ বার জাতিসংঘ শান্তি পদক লাভ করেন। বাংলাদেশ পুলিশে দক্ষতার সঙ্গে দায়িত্ব পালনের স্বীকৃতিস্বরূপ প্রেসিডেন্ট পুলিশ মেডেল (পিপিএম) প্রাপ্ত হন। এ ছাড়া বাংলাদেশ পুলিশে দক্ষতার সাথে দায়িত্ব পালনের স্বীকৃতি স্বরূপ ০৩ বার আইজি ব্যাজ প্রাপ্ত হন।

বিদেশ ভ্রমন: পেশাগত ও ব্যাক্তিগত কারণে যুক্তরাষ্ট, যুক্তরাজ্য, ফ্রান্স, জার্মানী, ইতালী,ভ্যাটিকান সিটি, অষ্ট্রেলিয়া, পূর্ব তিমুর, সিংগাপুর, মালয়েশিয়া, ইন্দোনেশিয়া, সৌদি আরব, দুবাই, কাতারসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশে ভ্রমন করেছেন।

অবসর বিনোদন: পরিবারের সদস্যদের সাথে সময় কাটানো, গান গাওয়া এবং গান শোনা। 

২০১৫ সালের জুনে চাঁদপুরের পুলিশ সুপার হিসেবে যোগদান করেন শামসুন্নাহার। সৎ ও সাহসী পুলিশ কর্মকর্তা বলেই তার সুনাম রয়েছে পুলিশ বাহিনীতে। চাঁদপুরে ইতিমধ্যে মাদক, বাল্যবিবাহ ও নারী নির্যাতন রোধে অগ্রণী ভূমিকা রেখেছেন তিনি।

‘পুলিশ সপ্তাহ-২০১৬’ প্যারেডে প্রথম নারী হিসেবে নেতৃত্ব দিয়ে ইতিহাস গড়েন এসপি শামসুন্নাহার। মহানগর পুলিশ, রেঞ্জ পুলিশ, আর্মড পুলিশ ও র‌্যাবসহ পুলিশের ১৩টি দলের সহ¯্রাধিক সদস্যের প্যারেডে নেতৃত্ব¡ দিয়ে তিনি দেশজুড়ে প্রশংসিত হন। ২০১৭ সালেও পুলিশ সপ্তাহ প্যারেডে তিনি নেতৃত্ব দিয়েছেন।

বুধবার (১ আগস্ট) রাষ্ট্রপতির আদেশক্রমে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের উপসচিব ধনঞ্জয় কুমার দাস স্বাক্ষরিত এক আদেশে শামসুন্নাহারকে (পিপিএম) গাজীপুরের পুলিশ সুপার হিসেবে নিয়োগ করা হয়েছে।

ট্যাগ: Banglanewspaper নারী অগ্রগতি এসপি শামসুন্নাহার