banglanewspaper

প্রিয়জনের সঙ্গে ঈদের আনন্দ ভাগাভাগি করতে শত বাধা, ভোগান্তি, বিড়ম্বনা উপেক্ষা করে কমলাপুর রেল স্টেশনে ভিড় করছেন টিকিট প্রত্যাশীরা। মধ্যরাত আবার কেউ কাক ডাকা ভোরে এসেছেন কমলাপুরে। সোনার হরিণ নামক রেলের টিকিট পেতে কাউন্টারের সামনে লাইনে দাঁড়িয়ে অপেক্ষা করছেন টিকিট প্রত্যাশীরা।

শুক্রবার (১১ আগস্ট) সকাল ৮টা থেকে শুরু হয়েছে ঈদের অগ্রিম টিকিট বিক্রি। আজ দেওয়া হচ্ছে ২০ আগস্টের টিকিট।

ঈদের অগ্রিম টিকিট পেতে কমলাপুর এখন যেন এক জনসমুদ্র। টিকিট পেতে কমলাপুরে সকাল থেকেই ছিল মানুষের উপচে পড়া ভিড়। ২৬টি কাউন্টার থেকে এই টিকিট দেয়া হচ্ছে। প্রতিটি কাউন্টারের সামনে থেকে টিকিট প্রত্যাশী মানুষের দীর্ঘ লাইন একে-বেকে গিয়ে ঠেকেছে স্টেশনের বাহিরের দিকে।

কাউন্টার সামনে শুধু টিকিট প্রত্যাশী মানুষ আর মানুষ। ই লাইনে কেউ দাঁড়িয়েছেন গতকাল সন্ধ্যায়-রাতে, কেউবা আজ ভোরে এসে যুক্ত হয়েছেন। সকাল ৮টায় টিকিট বিক্রি শুরু হওয়ার সময় এ লাইন দীর্ঘ হয়ে একে বেকে প্লাটফর্মের বাহিরের রাস্তায় চলে গেছে।

কমলাপুর স্টেশন ম্যানেজার সীতাংশু চক্রবর্তী বলেন, ‘সকাল ৮টা থেকে ২৬টি কাউন্টারে আগামী ২০ আগস্টের টিকিট বিক্রি হচ্ছে। মানুষ সুশৃঙ্খলভাবে লাইনে দাঁড়িয়ে টিকিট সংগ্রহ করছেন। তবে সকাল থেকেই টিকিট প্রত্যাশী মানুষের উপচে পড়া ভিড়। যদিও আমাদের সম্পদ সীমিত, এরমধ্যেই আমরা চেষ্টা করে যাচ্ছি। ট্রেনর অগ্রিম টিকিট বিক্রিতে যেন কোন ধরনের অপ্রীতিকর ঘটনা না ঘটে সে লক্ষ্যে আইনশৃংখলা বাহিনীসহ রেলওয়ের নিজস্ব বাহিনী তৎপর রয়েছেন।’

ট্যাগ: banglanewspaper কমলাপুর