banglanewspaper

বেনাপোল প্রতিনিধি: যশোরের ঝিকরগাছা উপজেলার নির্বাসখোলা ইউনিয়নের নন্দীডুমুরিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে সকাল সাড়ে ৯টায় জাতীয় শোক দিবসের অনুষ্ঠান পন্ড করে দিয়েছেন ইউপি চেয়ারম্যান।

এসময় চেয়ারম্যানের চপেটাঘাত থেকে রেহাই পায়নি বিদ্যালয়ের সিলিপ কমিটির সভাপতি ও প্রধান শিক্ষকসহ অন্যান্য শিক্ষকরা।

নন্দীডুমুরিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সিলিপ কমিটির সভাপতি খায়রুজ্জামান জানান, সরকারি নির্দেশ মোতাবেক বিদ্যালয়ে জাতীয় শোক দিবসের অনুষ্ঠান চলছিল। বিদ্যালয়ের সহকারি শিক্ষক আব্দুল ওদুদ দিবসটির উপর আলোচনা করছিলেন।

এ সময় নির্বাসখোলা ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান ও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক নজরুল ইসলাম অনুষ্ঠানস্থলে প্রবেশ করে আমাকে (খায়রুজ্জামান) চপেটাঘাত করতে থাকেন। পরে চেয়ারম্যানের সাথে থাকা ৭ নং ওয়ার্ড মেম্বর হাফিজুর রহমান (মাস্টার) বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক তবিবর রহমান ও চেয়ারম্যানের অপরসঙ্গী কবির হোসেন শিক্ষক আব্দুল ওদুদকে মারপিট করে।

বিদ্যালয়ের পাশে চেয়ারম্যানের ‘বডিগার্ড’ খ্যাত মনিরুল ইসলাম পক্ষীয়রা দিবসটি পালনের জন্য মাইক বাজিয়ে রান্নার প্রস্তুতি নিচ্ছিল। বিদ্যালয় কর্তপক্ষ তাদের সাথে না করে পৃথক অনুষ্ঠান করার জন্যই চেয়ারম্যান ক্ষিপ্ত হয়ে এ ঘটনা ঘটান বলেও তিনি দাবী করেন।

এ বিষয়ে ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি মাস্টার আব্দুল খালেক জানান, ঘটনাটি সত্য। গ্রামবাসীর সাথে একত্রে অনুষ্ঠান না করায় চেয়ারম্যানের রাগ হয়েছে বলে তিনি মন্তব্য করেন। বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক তবিবর রহমানকে মারপিটকারী ইউনিয়নের ৭ নং ওয়ার্ডের মেম্বর হাফিজুর রহমান (মাস্টার) তাঁর সহকর্মীদের জানিয়েছেন ‘ওই স্কুলে খালেদা জিয়ার জন্মদিন পালন হচ্ছিল, তাই একটু ঘা দিলাম।

এ ঘটনায় নির্বাসখোলা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান নজরুল ইসলাম জানান, মারপিটের কোন ঘটনা ঘটেনি। তবে অনুষ্ঠানটি পৃথক করার জন্য আমি রেগে বন্ধ করে দিয়েছি।

ঝিকরগাছা থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কাজী কামাল হোসেন জানান, ‘আমার কাছে এ পর্যন্ত কেউ কোন অভিযোগ করেনি। অভিযোগ পেলে তদন্তপূর্বক আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা গ্রহন করব।’

ট্যাগ: Banglanewspaper ঝিকরগাছা