banglanewspaper

আলফাজ সরকার আকাশ, শ্রীপুর (গাজীপুর) প্রতিনিধি: গাজীপুরের শ্রীপুর পৌর এলাকার গুরুত্বপূর্ণ একটি বাজার কেওয়া। কয়েকটি গ্রামের মানুষের অন্যতম ভরসাস্থল কালের স্বাক্ষী হিসেবে বটপাকুড়ের ছায়ায় আচ্ছাদিত এই হাটবাজারটি।সম্প্রতি বাজারের জমির দাম বৃদ্ধি পাওয়ায় স্থানীয় একটি ভূমি দস্যু চক্রের নজরে পরে বাজারটি। গত কয়েকদিন ধরে বাজারের সরকারী জমিতে ইটা বালু দিয়ে অভিনব কায়দায় ঘর নির্মাণের অভিযোগ রয়েছে রয়েছে চক্রটির বিরুদ্ধে। নির্মাণাধীন স্থাপনার সামনে টানানো হয়েছে একটি সাইনবোর্ড, যাতে লেখা রয়েছে পোষ্ট অফিসের জন্য নির্ধারিত স্থান সৌজন্যে শ্রীপুর পৌরসভা। 

যদিও পৌর মেয়র এ কাজে পৌরসভার কোন ধরনের সংশ্লিষ্টতা নেই জানিয়ে দ্রুত অবৈধ দখলদারদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার মাধ্যমে বাজারটির রক্ষায় প্রশাসনের নিকট আবেদন করেছেন।

স্থানীয়রা জানান,শত বছর আগে মাওনা-শ্রীপুর সড়কের কেওয়া এলাকায় সরকারী ১নং খাস খতিয়ানের এস এ ১৬২৭ দাগের জমিতে কেওয়া  বাজার গড়ে উঠে। প্রতিবছর শ্রীপুর পৌরসভা এই হাটবাজার ইজারা দিয়ে থাকে। সপ্তাহের দুই দিন এখানে সাপ্তাহিক হাট বসে। সবসময় কয়েকহাজার লোকের আনাগোনায় খুব অল্প সময়েই বাজারটি ব্যবসা বানিজ্যের অন্যতম একটি স্থানে পরিনত হয়েছে। বছর বছর বাজারের জমির দাম বৃদ্ধি পাওয়ায় পৌরসভার ৬ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর কামরুজ্জামান কামালের নেতৃত্বে কতিপয় ভূমিদস্যুদের সহায়তায় স্থানীয় একটি চক্রের নজরে পরে বাজারটি, তাঁরা বাজারটি দখলের উদ্দেশ্যে গত কয়েকদিন ধরে বাজারের খালি সরকারী জমিতে ইটা বালু দিয়ে স্থাপনা নির্মানের চেষ্টা চালাচ্ছে, আর এতে ক্ষোভে ফুঁসে উঠছে স্থানীয়রা।

স্থানীয় মেহেদী হাসান খোকন জানান,কেওয়া বাজারটি শত বছরের পুরোনো একটি বাজার, এই বাজারটিতে ছায়া আচ্ছাদিত করে রেখেছে কালের স্বাক্ষী একটি বটবৃক্ষ। কিন্তু প্রশাসনের নিরব ভূমিকায় বিভিন্ন ভাবে বাজারের অনেক জমি দখল হয়ে গেছে, কিন্তু এখন নতুনভাবে বাজারের অবশিষ্ট খালী জায়গায় স্থাপনা নির্মাণের কাজ চলছে কয়েকদিন ধরে। এটা একটি সরকারী সম্পত্তির উপর গড়ে উঠা বাজার,এই স্থাপনা নির্মাণ হলে বাজারটি আর অবশিষ্ট থাকবে না।তাই জনস্বার্থের কথা বিবেচনা করে অবৈধ দখল বন্ধ করা হোক।

স্থানীয় আনোয়ার হোসেন নামের এক সমাজসচেতন ব্যক্তি অভিযোগ করেন,এখানে এক সময় আনসার ভিডিপি ক্লাব ছিল, পরে ছিল একটি সরকারী পোষ্ট অফিস। কিন্তু জরাজীর্ণ পোষ্ট অফিসটি পরে অন্যত্র স্থানে সরিয়ে নেয়া হয়। সম্পূর্ণ ব্যক্তি স্বার্থে সরকারী এই জায়গাটি দখলের চেষ্টা চলছে। যেখানে অবৈধ দখলদাররা একটি শহীদ বেদী তুলে ফেলার চেষ্টা করে, পরে স্থানীয়দের প্রতিবাদে আবার পুণ:স্থাপন করেন।

কেওয়া বাজারে দীর্ঘ বিশ বছর ধরে পান বিক্রি করছেন আনোয়ার হোসেন নামের এক ব্যবসায়ী তিনি জানান,আমাকে গত দেড় মাস আগে বাজার থেকে তুলে দেয়া হয়েছে, আমি প্রতিবাদ করেও লাভ হয়নি।

বাজারের জমি দখলের বিষয়ে শ্রীপুর পৌরসভার ওয়ার্ড কাউন্সিলর কামরুজ্জামান কামাল জানান,এই জমিটির স্থানে ইতিপূর্বে একটি পোষ্ট অফিস ছিল, পরে তা জরাজীর্ণ থাকায় 

ঘরটি ভেঙ্গে পৌরসভার সৌজন্যে নতুন ভাবে নির্মাণ করে দেয়া হচ্ছে। তবে পৌরসভার মেয়র সহ অন্যান্য কর্মকর্তারা এই বিষয়টি অবগত আছেন কিনা এমন প্রশ্নের কোন উত্তর তিনি দিতে পারেননি।

তবে পোষ্ট অফিসের দায়িত্বপ্রাপ্ত রানী আক্তার জানান, তাকে কাউন্সিলর জানিয়েছেন এখানে তাকে কার্যক্রম চালানোর জন্য একটি কক্ষ দেয়া হবে, এর বেশী কিছু তিনি বলতে পারবেন না।

শ্রীপুর পৌরসভার মেয়র আনিছুর রহমান জানান,নানা ইতিহাসে সমৃদ্ধ সরকারী কেওয়া বাজারটি দীর্ঘদিন যাবৎ একটি চক্র অবৈধ দখলের চেষ্টা করছেন। সম্প্রতি পৌরসভার কেউ অবহিত না থাকার পরও একটি চক্র শুধু মাত্র ব্যক্তিস্বার্থে পৌরসভার নাম ব্যবহার করে সরকারী জমি দখলের চেষ্টা করছে। তিনি এ বিষয়টি অবহিত হয়েই বৃহস্পতিবার দুপুরে বাজারের জমিতে গড়ে উঠা অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদে প্রশাসনকে চিঠি দিয়েছেন।

এ বিষয়ে গাজীপুর জেলা প্রশাসক ড. দেওয়ান মোহাম্মদ হুমায়ুন কবীর জানান, বিষয়টি সম্পর্কে আমি অবগত নই। খবর নিয়ে প্রযোজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।
 

ট্যাগ: Banglanewspaper শ্রীপুর