banglanewspaper

শ্রীপুর (গাজীপুর) প্রতিনিধি: গাজীপুর সদর উপজেলার হোতাপাড়া এলাকায় চলতি মাসের অর্ধেক বেতনের দাবীতে ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়ক ৬ঘন্টা অবরোধ করে বিক্ষোভ করছেন অ্যালিগেন্ট গ্রুপের শ্রমিকরা।

 ১২ মভশুক্রবার সকাল ১০টা থেকে বিকেল ৪টা পর্যন্ত সড়ক অবরোধ করে রাখেন তাঁরা। পরে গাজীপুর নবনির্বাচিত সিটি মেয়র জাহাঙ্গীর আলম শ্রমিকদের দাবী আদায়ের ব্যাপারে আশ্বাস দিলে তারা অবরোধ তুলে নেয়।
 
দীর্ঘ সময় অবরোধের কারণে ঈদে ঘরে ফেরা যাত্রীসহ ওই মহাসড়কের চলাচলকারীদের  বেশ বিপাকে পড়তে হয়েছে।

কারখানা ফিনিশিং বিভাগের শ্রমিক নাদিম, জাহাঙ্গীর, মোজাহিদুল ও ফিরোজ জানান, জুলাই মাসের বেতন আগস্টের প্রথম সপ্তাহে পেয়ে বাসা ভাড়া, দোকান খরচ ও অন্যান্য জায়গায় খরচ হয়ে গিয়েছে। আর যে পরিমাণ বোনাস দিচ্ছে তা দিয়ে পরিবার পরিজন নিয়ে ঈদে খরচ করা সম্ভব নয়। এখন যে তারা ঈদ উপলক্ষ্যে পরিবারের সদস্যদের জন্য কেনাকাটা করবেন ওই পরিমাণ টাকা তাদের হাতে নেই। তাই তারা কারখানা কর্তৃপক্ষকে আগষ্ট মাসের ১৫দিনের বেতন পরিশোধের অনুরোধ জানিয়েছিলেন। কিন্তু কর্তৃপক্ষ শ্রমিকদের সাথে কোন আলোচনা না করেই বেতন না দেয়ার ব্যাপারে তাদের সিদ্ধান্তে অটল থাকায় তাঁরা আন্দোলনে নামে।

কারখানার ফিনিশিং বিভাগের শ্রমিক সাথী আক্তার জানান, চার মাস হলো কারখানার ফিনিশিং বিভাগে চাকরী নিয়েছেন। অল্প দিন চাকুরী হওয়ায় ঈদে বোনাস পাবেননা বলে জানিয়েছেন কারখানা কর্তৃপক্ষ। কিন্তু তিন সন্তানের জননী সাথী আক্তার ১৫দিনের বেতন না পেলে কিভাবে সন্তানদের ঈদে কাপড় কিনে দিবেন সে কথা বলতে বলতে কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন।
শুক্রবার সকাল থেকেই নিজেদের দাবী আদায়ের জন্য এই কারখানার কর্মরত কয়েকহাজার শ্রমিক ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কে হোতাপাড়া এলাকায় লাঠিসোঠা নিয়ে সকাল থেকেই অবস্থান করে। অবরোধে কবলে সকাল থেকেই ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়ক স্থবির হয়ে পরে এসময় গাজীপুরের সদর উপজেলার সালনা থেকে  শ্রীপুরের গড়গড়িয়া মাষ্টারবাড়ী পর্যন্ত ২০কিলোমিটার এলাকায় যানজটের সৃষ্টি হয়। এসময় উত্তেজিত শ্রমিকরা কয়েকটি যানবাহন ও হোতাপাড়ায় অবস্থিত একটি সংবাদকর্মীদের অফিসে হামলা চালায়।
 
পরিবার ও স্বজন নিয়ে ঈদের ছুটি কাটাতে ঢাকার ব্যবসায়ী আমিনুল ইসলাম সকালে ঢাকা থেকে ময়মনসিংহের ঈশ্বরগঞ্জের উদ্দেশ্যে রওনা দিয়েছেন। কিন্তু যানজটে আটকে রয়েছেন বিকেল পর্যন্ত,প্রচন্ড গরমে তার শিশু সন্তান অসুস্থ হয়ে পড়েছে।

অপরযাত্রী জানান, সাত মাসের সন্তান নিয়ে গরমে অতিষ্ঠ হয়ে বাসের ভেতরেও বসে থাকা যাচ্ছে না আর তীব্র গরমে বাইরেও যাওয়া যাচ্ছে না।

প্রবাসী আশরাফুল ইসলাম মালয়েশিয়া থেকে দেশে এসেছেন মায়ের চিকিৎসা করাতে। গাজীপুরের বোর্ড বাজার থেকে মাকে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়ার জন্য বাড়ি থেকে বের হলেও যানজটে আটকে আছেন। দীর্ঘ সময় যানজটে আটকে তার মায়ের শারিরীক অসুস্থতা আরো বেড়েছে বলে তিনি জানান।

শেরপুর থেকে কোরবানীর গরু নিয়ে রাজধানী ঢাকায় যাচ্ছিলেন শহিদুল ইসলাম নামের এক গরু ব্যবসায়ী। তিনি জানান, সকাল ৯টা থেকে যানজটে আটকে আছেন। তীব্র রোদে গরু গুলো হাঁপিয়ে উঠেছে। এখন আশপাশ থেকে পানি এনে গরু উপরে ছিটিয়ে দিচ্ছি।

আলম এশিয়া পরিবহনের বাস চালক শরিফুল ইসলাম জানান, ময়মনসিংহ থেকে সকাল সাড়ে ৮টায় রওনা দিয়েছিলাম। মহাসড়কের ভবানীপুর পার হওয়ার যানজটে আটক পড়লে সকল যাত্রীরা নেমে যাওয়ায় গাড়ি ঘুড়িয়ে এখন আবার ময়মনসিংহের উদ্দেশ্যে রওনা দিয়েছি।

ময়মনসিংহের গৌরীপুর থেকে ডিম নিয়ে চট্টগ্রামের উদ্দেশ্যে রওনা দিয়েছেন ট্রাক চালক আফজাল হোসেন। তিনি জানান, সকাল ১০টা থেকে যানজটে আটকে আছেন। প্রচন্ড গরমে গাড়িতেই তার  ডিম নষ্ট হয়ে যাচ্ছে বলে  জানান তিনি।

এ্যালিগেন্স গ্রুপের সিনিয়র জেনারেল ম্যানেজার বজলুর রহমান জানান,প্রশাসন ও শ্রমিকদের সাথে আলোচনা করে চলতি মাসের ১০দিনের বেতন ঈদের আগেই পরিশোধের সিদ্ধান্ত হয়েছে।

হোতাপাড়া গিভেন্সী গ্রুপের শিল্প পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) হাবিব ইস্কান্দার জানান, কারখানা কর্তৃপক্ষের সাথে একাধিকবার আলোচনা করা হয়েছে। শ্রমিকদের দাবীগুলো খুব গুরুত্বের সাথে দেখা হচ্ছে।

গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনের মেয়র জাহাঙ্গীর আলম জানান,কারখানার মালিকপক্ষের সাথে আলোচনা করে শ্রমিকদের পাওনা পরিশোধের আশ্বাস দেয়ায় তাঁরা মহাসড়ক থেকে অবরোধ তুলে নেয়।

গাজীপুর ট্রাফিক বিভাগের সহকারী পুলিশ সুপার সালেহ উদ্দিন আহমেদ জানান,মহাসড়ক অবরোধে ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়ক স্থবির হয়ে পরে, এ সময় সড়কের উভয় পাশের ২০কিলোমিটার এলাকায় যানজটের সৃষ্টি হয়  এতে ভোগান্তিতে পরে কয়েক হাজার লোক।
 

ট্যাগ: Banglanewspaper ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়ক