banglanewspaper

নিজস্ব প্রতিবেদক: ঈদের ঘোরাঘুরিতে বৃষ্টি বেশ বিরক্তিকর হয়ে ওঠে। তবে কোরবানি ঈদের দিন বৃষ্টিটা যেন আর্শীবাদ হয়ে দেখা দেয়। পশুর রক্ত-বর্জ্য সব ধুয়ে মুছে পরিষ্কার হয় রাস্তা-ঘাট। আবার নামাজের সময় দেখা দেয় বিপত্তি। আগামীকাল সেই বৃষ্টিরই আভাস দিয়েছে আবহাওয়া অধিদপ্তর। 

সাগরে লঘুচাপ এবং সক্রিয় মৌসুমী বায়ুর প্রভাবে ঈদের দিন বৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে। বর্ষার দুই মাস শেষ হলেও মৌসুমী বায়ু সক্রিয় রয়েছে। আবার ভাদ্রের কয়েক দিন দেশজুড়ে তাপপ্রবাহ বয়ে গেছে। কাজেই বৃষ্টিটা স্বস্তি বয়ে আনতে পারে। বৃষ্টির কারণে অস্বস্তিকর গরম কমেছে। এমন অবস্থা আরো কয়েক দিন চলবে বলে জানায় আবহাওয়া অধিদপ্তর। 

জ্যেষ্ঠ আবহাওয়াবিদ আব্দুল মান্নান বলেন, সাগরে এখন একটি লঘুচাপ রয়েছে। এটি উপকূলের দিকে এগিয়ে আসছে। এটি আরও ঘনীভূত হওয়ার সম্ভাবনাও রয়েছে। ইতিমধ্যে অনেক এলাকায় বৃষ্টি হচ্ছে। এই প্রবণতা থাকলে বুধবার ঈদের দিন বৃষ্টি বাড়তে পারে। সেক্ষেত্রে দেশের দক্ষিণাঞ্চলে, বিশেষ করে খুলনা, বরিশাল, সিলেট ও চট্টগ্রাম বিভাগে হালকা থেকে মাঝারি ধরনের বৃষ্টি হতে পারে। আবার কোথাও ভারী বর্ষণের সম্ভাবনাও উড়িয়ে দেয়া যায় না।

তিনি জানান, উত্তর বঙ্গোপসাগরে যে লঘুচাপের সৃষ্টি হয়েছে তার প্রভাবে ঝড়ো হাওয়ার শঙ্কা আছে। ইতিমধ্যে চট্টগ্রাম, কক্সবাজার, মংলা ও পায়রা সমুদ্র বন্দরকে তিন নম্বর স্থানীয় সতর্ক সংকেত দেখিয়ে যেতে বলা হয়েছে। মঙ্গলবার পরিস্থিতির উন্নতি হলে এ সতর্কতা নামিয়ে নিতে বলা হবে।

আজকের আবহাওয়ার পূর্বাভাসে বলা হয়েছে, খুলনা, বরিশাল, ঢাকা, চট্টগ্রাম, সিলেট, ময়মনসিংহ ও রংপুর বিভাগের অনেক জায়গায় এবং রাজশাহী বিভাগের কিছু কিছু জায়গায় অস্থায়ী দমকা হাওয়াসহ হালকা থেকে মাঝারি বৃষ্টি অথবা বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে। সেই সঙ্গে দেশের কোথাও কোথাও মাঝারি থেকে ভারি বর্ষণ হতে পারে। পরের ৪৮ ঘণ্টায় বৃষ্টির প্রবণতা বাড়ত পারে। 

ট্যাগ: banglanewspaper ঈদের দিন