banglanewspaper

বসন্ত থেকেই গরম শুরু। এ সময়ে শরীর থেকে ঘামের সঙ্গে পানি ও লবণ বের হয়ে যায়। তাই শরীর যেন পানিশূন্য হয়ে না পড়ে, সেদিকে লক্ষ্য রাখতে হয়।

যা খাবেন : এ সময় প্রতিদিন ২-৩ লিটার বিশুদ্ধ পানি বা পানীয় পান করতে হবে। ওরস্যালাইন ও ডাবের পানি লবণের চাহিদা পূরণ করে। বাজারে অনেক দেশি ফল আছে। বাঙ্গি, তরমুজ, কাঁকুড়, ডালিম, খিরা, শসা, পানিসমৃদ্ধ ফল। এগুলো বেশি বেশি খাওয়া যায়।

লেবু ও তোকমার শরবত গ্রহণ অনেক উপকারী। শিশুরা যেন এসব পানীয় গ্রহণ করে সেদিকে অভিভাবকরা লক্ষ্য রাখুন। লাউ, শিম, চাল কুমড়ার রান্না করা তরকারি খাবেন। দুপুরে ও রাতে খাবারে সালাদ, টক-মিষ্টি চাটনি খাবেন।

প্রতিদিন সম্ভব হলে টকদই খান। প্রস্রাবের রং হলুদ, বিবর্ণ বা ঘন হলেই বুঝবেন দেহে পানিস্বল্পতা হয়েছে। জন্ডিস বা হেপাটাইটিস হলেও প্রস্রাবের এ রং হয়।

যা খাবেন না : চর্বিযুক্ত, তৈলাক্ত, ভাজা-পোড়া ও গুরুপাক খাবার গ্রহণ এ সময় এড়িয়ে চলুন। অ্যালকোহলযুক্ত, বেভারেজ পানিস্বল্পতা সৃষ্টি করে। যারা ঘরের বাইরে রোদে কাজ করেন তারা বোতলে পানীয়জল রাখবেন। খোলা আবহাওয়ার বা রাস্তার পাশের শবরত পান করবেন না।

গরম চা ও কফি এ সময় এড়িয়ে চলাই ভালো। বিনা প্রয়োজনে সকাল ১০টা থেকে বিকাল ৫টা পর্যন্ত রোদে বের না হওয়াই ভালো। যারা ক্ষেত-খামারে কাজ করেন তারা কাজের ফাঁকে ফাঁকে ছায়ায় পর্যাপ্ত বিশ্রাম নেবেন।

 

 

ট্যাগ: bdnewshour24 গরম