banglanewspaper

এ বছর শান্তিতে নোবেল পুরস্কার পেয়েছেন ধর্ষণবিরোধী কর্মী ইয়াজেদি তরুণী নাদিয়া মুরাদ এবং কঙ্গোর চিকিৎসক ডেনিস মুকওয়েজি। শুক্রবার শান্তিতে নোবেল ঘোষণা করা হয়।

নাদিয়া ও মুকাওয়েজি উভয়েই যুদ্ধবিধ্বস্ত এলাকায় ধর্ষণ প্রতিরোধে কাজ করে যাচ্ছেন। নোবেল কমিটি জানিয়েছে, ডেনিস মুকওয়েজি ও তার টিম যুদ্ধবিধ্বস্ত কঙ্গোয় হতাহতদের চিকিৎসার ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রেখেছেন।

অন্যদিকে, নাদিয়া মুরাদ ইরাকের ইয়াজিদি সম্প্রদায়ের সদস্য, যাকে আইএস জঙ্গিরা আটকে রেখে যৌন দাসী হিসেবে ব্যবহার করেছে।  

চলতি বছর শান্তিতে নোবেলের জন্য ৩৩১ ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠান মনোনিত হয়েছিল। যা ২০১৬ সালের পর সবচেয়ে বেশি। ২০১৬ সালে শান্তিতে নোবেল পুরস্কারের জন্য মনোনয়ন পেয়েছিলো ৩৭৬ ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠান।

এর আগে চলতি বছরে চিকিৎসা, রসায়ন ও পদার্থ বিজ্ঞানে নোবেল পুরস্কার ঘোষণা করা হয়। এনজাইম বা উৎসেচক গবেষণায় নতুন আবিষ্কারের জন্য এবার রসায়নে নোবেল পেয়েছেন যুক্তরাষ্ট্রের ফ্রান্সেস এইচ আর্নল্ড এবং জর্জ পি স্মিথ ও ব্রিটেনের স্যার গ্রেগরি পি উইনটার।

লেজার পদার্থবিদ্যায় বিশেষ আবিষ্কারের জন্য এবার নোবেল পুরস্কার পেয়েছেন যুক্তরাষ্ট্রের পদার্থবিজ্ঞানী আর্থার  আশকিন, ফরাসী পদার্থবিজ্ঞানী জিরার্ড ম্যুরো ও কানাডার ডোনা স্ট্রিকল্যান্ড।  ক্যানসার নিয়ে গবেষণায় চিকিৎসায় নোবেল জিতেছেন জেমস পি অ্যালিসন ও তাসুকু হোনজোর।

১৯০১ সালে বিজ্ঞানী আলফ্রেড নোবেলের নামানুসারে নোবেল পুরস্কার প্রবর্তিত হয়। ওই বছর থেকে সারা পৃথিবীর বিভিন্ন ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানকে সফল এবং অনন্য সাধারণ গবেষণা ও উদ্ভাবন এবং মানবকল্যাণমূলক কর্মকাণ্ডের জন্য এই পুরস্কার প্রদান করা হচ্ছে।

মোট ছয়টি বিষয়ে নোবেল পুরস্কার প্রদান করা হয়। বিষয়গুলো হল- পদার্থবিজ্ঞান, রসায়ন, চিকিৎসা শাস্ত্র, অর্থনীতি, সাহিত্য এবং শান্তি। নোবেল পুরস্কারকে এ সকল ক্ষেত্রে বিশ্বের সবচেয়ে সম্মানজনক পদক হিসেবে বিবেচনা করা হয়। নোবেল পুরস্কারপ্রাপ্তদেরকে ইংরেজিতে নোবেল লরিয়েট বলা হয়।

সুয়েডীয় বিজ্ঞানী আলফ্রেড নোবেলের ১৮৯৫ সালে করে যাওয়া একটি উইল এর মর্মানুসারে নোবেল পুরস্কার প্রচলন করা হয়। নোবেল মৃত্যুর পূর্বে উইলের মাধ্যমে এই পুরস্কার প্রদানের ঘোষণা করে যান। শুধুমাত্র শান্তিতে নোবেল পুরস্কার প্রদান করা হয় নরওয়ের অসলো থেকে। বাকি ক্ষেত্রে স্টকহোম, সুইডেনে এই পুরস্কার প্রদান অনুষ্ঠান আয়োজন করা হয়।

অর্থনীতি ছাড়া অন্য বিষয়গুলোতে ১৯০১ সাল থেকে পুরস্কার প্রদান করা হচ্ছে, কিন্তু অর্থনীতিতে পুরস্কার প্রদান শুরু হয়েছে ১৯৬৯ সালে। আলফ্রেড নোবেল তার উইলে অর্থনীতির কথা উল্লেখ করেননি। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের জন্য ১৯৪০ থেকে ১৯৪২ সাল পর্যন্ত পুরস্কার প্রদান বন্ধ ছিল।

প্রত্যেক বছর পুরস্কারপ্রাপ্তদের প্রত্যেক একটি স্বর্ণপদক, একটি সনদ ও নোবেল ফাউন্ডেশন কর্তৃক অর্থ পেয়ে থাকেন। ২০১২ খ্রিস্টাব্দে এই অর্থের পরিমাণ ছিল ৮০ লক্ষ সুইডিশ ক্রোনা। নোবেল পুরস্কার মৃত কাউকে দেয়া হয় না। লরিয়েটকে অবশ্যই পুরস্কার প্রদানের সময় জীবিত থাকতে হবে। কিন্তু এর কিছু ব্যতিক্রম আছে। খুব বেশি অবদান এর জন্য মরনত্তোর পুরস্কার দেয়া হয়।

ট্যাগ: Banglanewspaper শান্তি নোবেল ধর্ষণবিরোধী