banglanewspaper

ভারতে আঘাত হেনেছে ঘূর্ণিঝড় তিতলি। ঘূর্ণিঝড়ের আঘাতে ওড়িষ্যার কাছাকাছি গোপালপুরে ভূমিধসের ঘটনা ঘটেছে বলে বৃহস্পতিবার নিশ্চিত করেছে আবহাওয়া দফতর। প্রায় তিন থেকে চার ঘণ্টা ভূমিধস হয়েছে। বিভিন্ন স্থানে গাছপালা এবং বৈদ্যুতিক খুঁটি উপড়ে গেছে এবং কুচা এলাকায় বহু বাড়ি-ঘর ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। স্থানীয় কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, গোপালপুর এবং বার্হামপুরসহ বেশ কিছু এলাকায় যোগাযোগ ব্যহত হচ্ছে।

বৃহস্পতিবার ভোর সাড়ে পাঁচটার দিকে ওড়িষ্যা ও অন্ধ্র প্রদেশের উপকূলে আছড়ে পড়ে ঘূর্ণিঝড় তিতলি। আবহাওয়া দফতর জানিয়েছে, বঙ্গোপসাগরের উপরে ঘোরাফেরা করা গভীর নিম্নচাপটি শক্তি বাড়িয়ে ঘূর্ণিঝড়ে পরিণত হয়েছে।

তিতলির প্রভাবে উড়িষ্যা উপকূলে বাতাসের একটানা গতিবেগ প্রতিঘণ্টায় সর্বোচ্চ ১৫০ কিলোমিটার। এর প্রভাবে ইতোমধ্যে উড়িষ্যার গোপালপুরে ভূমি ধস হয়েছে বলে জানিয়েছে ভারতীয় সংবাদ মাধ্যম এনডিটিভি। উপকূলীয় এলাকার পাঁচটি জেলা থেকে প্রায় তিন লাখ লোককে নিরাপদ দূরত্বে সরিয়ে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। প্রয়োজনে আরও লোককে সরিয়ে ফেলা হবে বলে জানিয়েছেন উড়িষ্যার মূখ্যমন্ত্রী নাভীন পাটনায়েক। সেসব এলাকার স্কুল কলেজ এবং অন্য সব দফতর বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। উচ্চ ক্ষমতা-সম্পন্ন এ ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাবে উড়িষ্যার গোপালপুর থেকে অন্ধ্র প্রদেশের কালিনগাপাতম পর্যন্ত পর্যন্ত এলাকায় ভূমি ধসের পূর্বাভাস দেয়া হয়েছে।

এদিকে বাংলাদেশের আবহাওয়া অধিদপ্তরের দেয়া তথ্য মতে, তিতলি কিছুক্ষণের মধ্যেই উড়িষ্যা উপকূল পার করবে। বাংলাদেশের উপকূলীয় অঞ্চলেও দুর্যোগের জন্য সর্বোচ্চ সতর্ক ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। কক্সবাজার, চট্টগ্রাম, মংলা ও পায়রা সমুদ্র বন্দরগুলোকে পুনোরায় চার নম্বর (৪নং) সতর্ক সংকেত দেখিয়ে যেতে বলা হয়েছে।

পাশাপাশি উত্তর বঙ্গোপসাগর ও গভীর সাগরে অবস্থানরত সব মাছ ধরার নৌকা ও ট্রলারকে পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত নিরাপদ আশ্রয়ে থাকতে বলা হয়েছে। এ ছাড়াও দেশের সকল অভ্যন্তরীণ নৌ চলাচল বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে।

ভারী বৃষ্টিতে বন্যার আশঙ্কায় ওড়িষ্যার প্রতিটি জেলায় সতর্কতা জারি করেছে প্রশাসন। মুখ্য সচিব এ পি পাধি জানিয়েছেন, দুর্যোগে একজনেরও যেন প্রাণহানি না হয়, তার জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছে রাজ্য। বিশেষ ত্রাণ কমিশনার বিপি শেট্টি জানিয়েছেন, বিপজ্জনক ও নিচু এলাকাগুলো থেকে বাসিন্দাদের সরিয়ে নেয়া ব্যবস্থা করা হয়েছে।

উদ্ধারকাজে সহায়তার জন্য প্রস্তুত রয়েছে ৩শটি মোটর বোট। জাতীয় বিপর্যয় মোকাবিলা বাহিনীর ৬টি দল, ওড়িষ্যার র্যাপিড অ্যাকশন ফোর্সের ১১টি দল ও দমকল বাহিনী তৈরি রাখা হয়েছে। ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাবে দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলে রেল সেবা ব্যহত হচ্ছে।

ট্যাগ: bdnewshour24 তিতলি ঘূর্ণিঝড়