banglanewspaper

ভারতের পূর্বাঞ্চলীয় রাজ্য অন্ধ্র প্রদেশ ও উড়িষ্যা উপকূলে প্রচণ্ড শক্তিতে আছড়ে পড়েছে বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট ঘূর্ণিঝড় ‘তিতলি’। সেটি এখন পশ্চিমবঙ্গের সমুদ্র উপকূল হয়ে বাংলাদেশের খুলনার দিকে এগিয়ে আসছে। তিতলি মোকাবিলার জন্য সকল প্রস্তুতি নেয়া হয়েছে। উপকূলীয় ১৯ জেলার সরকারি সব কর্মকর্তা-কর্মচারীর সাপ্তাহিক ছুটি বাতিল করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (১১ অক্টোবর) সচিবালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণমন্ত্রী মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী এ তথ্য জানান।

মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরীও জানান, ঘূর্ণিঝড় তিতলি আজ ভোররাতে ভারতের ওডিশা ও অন্ধ্র উপকূল অতিক্রম করতে শুরু করেছে। তারপরও তাঁদের প্রস্তুতি অব্যাহত থাকবে। ইতিমধ্যে সংশ্লিষ্ট স্থানীয় প্রশাসনকে সতর্ক অবস্থায় রাখা হয়েছে। পর্যাপ্ত ত্রাণ মজুতও রাখা হয়েছে।’

তিনি বলেন, ‘ভারতে আঘাত হানার পর দুর্বল হয়ে পড়ছে ঘুর্ণিঝড়। বাংলাদেশের আর ভয়ের কোনো কারণ নেই। পরিস্থিতি বিবেচনায় স্থানীয় জনগণকে নিরাপদ আশ্রয়কেন্দ্রে সরিয়ে নিতে বলা হয়েছে। পরিস্থিতি মোকাবিলায় ৫৬ হাজার ভলান্টিয়ার প্রস্তুত রাখা হয়েছে।’

আতঙ্কিত না হওয়ার আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, আবহাওয়ার তথ্য জেনে ঘর থেকে বের হতে হবে। উপকূলীয় জেলাগুলোতে স্থাপন করা হয়েছে কন্ট্রোল রুম, মজুত রয়েছে পর্যাপ্ত খাদ্য।’

সংবাদ সম্মেলনে আরও উপস্থিত ছিলেন দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ সচিব মো. শাহ কামাল, ফায়ার সার্ভিস অ্যান্ড সিভিল ডিফেন্সের মহাপরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল আলী আহমেদ খান, সশস্ত্র বাহিনী বিভাগের ডিজি (অপারেশন অ্যান্ড প্ল্যান) ব্রিগেডিয়ার জেনারেল এজাজুল বারী চৌধুরী।
 

ট্যাগ: bdnewshour24 তিতলি ভারত