banglanewspaper

নিজস্ব প্রতিনিধি: স্পর্শকাতর স্থানে হাত দেয়ার পর বাসে এক যুবককে পিটিয়েছেন এক কলেজ ছাত্রী। রাজধানীর ফার্মগেটের এই ঘটনার একটি ভিডিও ফেসবুকে ভাইরাল হয়েছে।

ভিডিওতে দেখা যায়, সাদা কলেজ ড্রেস পড়া ছাত্রী বাসে একজনকে চড়থাপ্পড় মারছেন। এসময় তিনি ক্ষুব্ধ কণ্ঠে বলেন, ‘তোকে আমি মেরেই ফেলব। তুই এখন আমার কলেজের সামনে।’

গণপরিবহনে নারীরা প্রায়ই হয়রানির শিকার হন। এক জরিপে দেখা গেছে, ৯৪ শতাংশ নারীই বাসে যৌন  হয়রানির শিকার। কিন্তু নিরবে সহ্য করে যান ৮০ শতাংশ। 

তবে এই কলেজ ছাত্রী চুপ থাকতে রাজি ছিলেন না। তাকে হয়রানি করা মাত্র ফুঁসে উঠেন। চড় থাপ্পরে জানান প্রতিবাদ।

এ সময় বাসে থাকা যাত্রীরা যুবককে অনুরোধে জানায় তিনি যেন দুঃখিত বলে ছাত্রীর পায়ে ধরেন। কিন্তু তাতে রাজি ছিলেন না ওই তরুণী। বলতে থাকেন ‘মেয়েদের গায়ে হাত দিবেন, লুচ্চামি করবেন আবার পা ধরে মাফ চাবেন তা তো হবে না।’

ভিডিওতে দেখা যায়, নীল শার্টপড়া ছেলেটাকে কয়েকজন টেনে হিঁচড়ে সিট থেকে জোর করে তুলছেন। মধ্যবয়স্ক একজন ব্যাক্তি ওই ছাত্রী মা বলে সম্বোধন করে বলেন, ‘মা অনেক হয়েছে ওকে (বখাটে) মাফ করে দেও।’

এই ভিডিওটি প্রকাশ পাওয়ার পর ভিডিওটির নিচে কমেন্ট করে শত শত মানুষ। রণক মাহমুদ নামে একজন লিখেন, ‘এই যুগে এখন এমন ডার্টি মাইন্ড এর লোক আছে ভাবতেই অবাক লাগে, পাবলিক বাস টাকে বেডরুম মনে করে.. অসভ্যতা ছেড়ে সকলেই শিক্ষা নিন.. গুড সিস্টার।’

সাবিনা ইয়াসমিন লিখেছেন, ‘ভালো হইছে এগুলোকে এ রকম ভাবেই গণধোলাই দেওয়া উচিত। অনেক সাহসী মেয়েটা...।’

সাইফুর রহমান শোভন লিখেন, ‘ধন্যবাদ ছোট বোনটিকে... সাহস করে প্রতিবাদ করায়... অনেক মেয়ে এইরকম পরিস্থিতিতে পরে কিন্তু লজ্জায় ভয়ে প্রতিবাদ করে না।’

ঘটনাস্থল তেঁজগাও থানার অধীনে। তবে থানায় কোনো অভিযোগ পড়েনি। জানতে চাইলে ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. মাজহারুল ইসলাম বলেন, ‘এমন অভিযোগ নিয়ে থানায় কেউ আসেনি।’

তেজগাঁও ট্রাফিক জোনের সহকারী কমিশনার (এসি) হারুন-অর-রশিদ বলেন, ‘ফেসবুকে দেখেছি। এই বিষয়ে খোঁজ নেওয়ার চেষ্টা চলছে।’

ট্যাগ: bdnewshour24 অনেক সাহসী মেয়ে এসি হারুন-অর-রশিদ