banglanewspaper

পদ্মাসেতুর নির্মাণকাজ দুই বছর পিছিয়ে যাওয়ার কারণ উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, বেআইনিভাবে ড. ইউনূস গ্রামীণ ব্যাংকের এমডি ছিলেন। আইনি লড়াইয়ে তিনি যখন এমডি থাকতে পারছেন না তখন আমার কাছে আমেরিকার বিভিন্ন অ্যাম্বাসেডর আসতেন। তারা হুমকি দিতেন যে, ড. ইউনূসকে গ্রামীণ ব্যাংকের এমডি পদ থেকে সরালে পদ্মাসেতু হবে না।’

‘পদ্মাসেতুর অর্থায়ন বন্ধ করেছে ড. ইউনূস। কোনো মানুষের মধ্যে দেশপ্রেম থাকলে কেউ দেশের এত বড় সর্বনাশ করতে পারে? সুদের টাকায় যিনি ধনী হতে পারেন তার ভেতর দেশপ্রেম থাকবে না এটিই স্বাভাবিক।’

পদ্মাপাড়ের মাওয়া প্রান্তে এক সুধি সমাবেশে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা রোববার দুপুরে এ কথা বলেন।

শেখ হাসিনা বলেন, ‘৯৬ সালে আমরা যখন ক্ষমতায় আসি তখন মোবাইল খাতকে বেসরকারি খাতে ছেড়ে দিই। ওই সময় ড. ইউনূস এসে আমার কাছে বললেন, তাকে একটা ফোন দিলে তিনি ব্যবসা করতে চান। তিনি বললেন, এই ফোন কোম্পানি থেকে লাভের টাকা গ্রামীণ ব্যাংকে যাবে এবং এই টাকায় দরিদ্র মানুষেরা উপকার পাবেন। আমরা তিনটা কোম্পানিকে ফোন দিই, ড. ইউনূসকে দিলাম গ্রামীণ ফোন। কিন্তু এই ফোনের লভ্যাংশের একটা টাকাও গ্রামীণ ব্যাংক পাই নাই।’

বেআইনিভাবে ড. ইউনূস গ্রামীণ ব্যাংকের এমডি ছিলেন উল্লেখ করে শেখ হাসিনা বলেন, ‘আইনে আছে ৬০ বছর বয়স পর্যন্ত যে কেউ এমডি থাকতে পারবেন। ৭০ পেরিয়ে যাচ্ছে তখনও ড. ইউনূস গ্রামীণ ব্যাংকের এমডি। এই ব্যাংকটা সরকারি পয়সায় করা। ৯৮ সালের বন্যায় এই ব্যাংকটি খুব বিপদে পড়ে। আমরা গ্রামীণ ব্যাংককে ৪০০ কোটি টাকা দিয়েছিলাম। সবচেয়ে দুর্ভাগ্য ৭০ বছর বয়সেও তিনি এমডি। কোনো অনুমোদন ছাড়াই তিনি এমডির পদ দখল করে থাকলেন। প্রতিমাসে সরকারি বেতনও নেন। তখন বাংলাদেশ ব্যাংক থেকে ড. ইউনূসকে চিঠি দিয়ে বলা হলো, আপনি বেআইনিভাবে এমডি পদে থাকতে পারবেন না।’

তিনি বলেন, ‘আমরা ড. ইউনূসকে অসম্মান করতে চাইনি। অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত ও পররাষ্ট্র বিষয়ক উপদেষ্টা গওহর রিজভী দেখা করলেন। তারা প্রস্তাব দিলেন, আপনি এমডি পদ থেকে সরে যান। আমরা আপনাকে গ্রামীণ ব্যাংকের ইমেরিটাস উপদেষ্টা করে রাখব। ড. ইউনূস এ প্রস্তাব মানলেন না। তিনি মামলা করে দিলেন।’

‘একটা মামলা হলো বাংলাদেশ ব্যাংকের বিরুদ্ধে। আরেকটা মামলা হলো অর্থমন্ত্রীসহ অন্যদের বিরুদ্ধে। কিন্তু মামলায় ড. ইউনূস হেরে গেলেন। ড. ইউনূস যে ১০ বছর অতিরিক্ত বেতন নিয়েছেন কোর্ট চাইলে তা ফেরত নিতে পারত। কিন্তু আমাদের দিক থেকে কোনো দাবি ছিল না। কোর্ট ড. ইউনূসকে বলে দিল, আপনি থাকতে পারেন না।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘ড. ইউনূস ক্ষেপে গেলেন। হিলারি ক্লিনটন ওইসময়ে আমেরিকার পররাষ্ট্রমন্ত্রী। তিনি আমাকে ফোন করলেন, ড. ইউনূসকে যেন গ্রামীণ ব্যাংকের এমডি হিসেবে রাখি। আমি বললাম, আইনে এটা নেই। আমি কী করে রাখব? ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী টনি ব্লেয়ার তার স্ত্রী শেরি ব্লেয়ার আমাকে ফোন করলেন। এভাবে আরও অনেকেই। কিন্তু এটি তো আইনে পড়ে না। আইনের বাইরে আমরা কী করব? তাছাড়া আইন সংশোধন করব? সেই প্রস্তাবও তো আমাদের কেউ দেয়নি।’

শেখ হাসিনা বলেন, ‘ড. ইউনূস মামলায় হেরে যাওয়ার পর অনেকেই আমার কাছে আসতেন। অনেক সময় আমেরিকান অ্যাম্বাসেডর যারা আছেন তারা এসেও হুমকি দিতেন, ইউনূসকে এমডি পদ থেকে সরালে পদ্মাসেতু হবে না। অনেক দিক থেকে হুমকি ছিল।’

‘কিন্তু আমার প্রশ্ন নোবেল প্রাইজ যিনি পেয়েছেন তিনি কেন ব্যাংকের এমডির পদ ছাড়তে পারেন না। সেই জায়গায় এত লোভ কেন’

‘এরপর আমাদের পত্রিকার স্বনামধন্য এক এডিটর ও ইউনূস হিলারির সঙ্গে দেখা করলেন। হিলারি সব কথা শুনে ওয়ার্ল্ড ব্যাংকের প্রধানকে বলে দেন যেন পদ্মাসেতু নির্মাণে বাংলাদেশকে কোনো টাকা দেওয়া না হয়। ওয়ার্ল্ড ব্যাংক এই টাকা বন্ধ করে দিয়েছিল। এর পেছনে ছিল ড. ইউনূস’ বলেন প্রধানমন্ত্রী।

ট্যাগ: bdnewshour24 অর্থমন্ত্রী আমেরিকা প্রধানমন্ত্রী