banglanewspaper

নিজস্ব প্রতিবেদক [] আজ মহানবমী। বাঙালির প্রানের উৎসবের আজ অদ্যন্তই শেষ রজনী। তবু শেষ রজনীর ভোরেই যেন বাঙালির মনের ডাক দিচ্ছে ‘একটু থেকো মা’। এইতো আর ক’দিন। তারপরেই তুমি যাবে শ্বশুরবাড়ি সামলাতে। আমরা নেমে পড়ব আমাদের বোঝাপড়াতে।

দশভুজা দুর্গার আরাধনার পাশাপাশি দেবীকে বিদায় জানানোর আয়োজনে ভক্তকুল থাকবেন বিষণ্ন। আজ মণ্ডপে মণ্ডপে প্রধান আকর্ষণ থাকবে আরতি প্রতিযোগিতা। রাতকে উজ্জ্বল করে ভক্তরা মেতে উঠবেন নানা ঢঙে আরতি নিবেদনে। একই সঙ্গে দিনভর চলবে চণ্ডীপাঠ। থাকবে ভক্তদের কীর্তনবন্দনা।

আজ এক দিনে মহানবমী ও বিজয়া দশমী অনুষ্ঠিত হবে। সকাল ৭টা ৩৩ মিনিট ৭ সেকেন্ডের মধ্যে মহানবমী কল্পারম্ভ ও মহানবমীর বিহিত পূজা, সকাল ৯টা ৫৭ মিনিট ২১ সেকেন্ডের মধ্যে দশমীর বিহিত পূজা ও দর্পণ নিরঞ্জন। দুপুর ১২টায় ঢাকেশ্বরী জাতীয় মন্দিরে স্বেচ্ছায় রক্তদান, বিকেল ৪টায় অঞ্জলি, প্রসাদ বিতরণ ও সন্ধ্যায় ভোগ আরতি।

শুকবার (১৯ অক্টোবর) প্রতিমা বিসর্জন। এ দিন বিকেলে ঢাকেশ্বরী জাতীয় মন্দির থেকে বিজয়ার শোভাযাত্রা বের করা হবে। এই শোভাযাত্রার মধ্য দিয়ে শেষ হবে বাঙালির পরম কাঙ্ক্ষিত শারোদোৎসব।

এদিকে বুধবার ভক্তি আর শ্রদ্ধায় রামকৃষ্ণ মঠ ও মিশনে আরতি, অঞ্জলি প্রদান ও প্রসাদ বিতরণের মধ্য দিয়ে উদযাপিত হলো কুমারী পূজা। এদিন অষ্টমীর বিশেষ আকর্ষণ ছিল কুমারী পূজা। দেবী দুর্গার প্রতীক হিসেবে কুমারী কন্যাকে মাতৃরূপে অঞ্জলি দেয় সনাতন ধর্মাবলম্বীরা, যার নাম কুমারী পূজা। সাধারণত ১৬ বছরের কম বয়সী কন্যা শিশুদের মধ্য থেকে ‘দেবীত্বের লণ বিচার করে’ কুমারী নির্বাচন করেন পুরোহিতরা। এ উপলক্ষে আজ সরকারি ছুটি।

বুধবার রাজধানীর রামকৃষ্ণ মিশনে বেলা ১১টায় কুমারী পূজা শুরু হয়। এর আগে কুমারী কন্যাকে স্নান করিয়ে নতুন পোশাক, ফুলের মালা ও অলঙ্কারে সাজানো হয়। কুমারী পূজার ১৬টি উপকরণ দিয়ে শুরু হয় পূজার আচার। এরপর অগ্নি, জল, বস্ত্র, পুষ্প ও বায়ু এই পাঁচ উপকরণে দেয়া হয় ‘কুমারী মায়ের’ পূজা। অর্ঘ্য নিবেদনের পর দেবীর গলায় পরানো হয় পুষ্পমাল্য। পূজা শেষে প্রধান পূজারি আরতি দেন এবং তাকে প্রণাম করেন।

ট্যাগ: bdnewshour24 পূজা