banglanewspaper

কেন্দুয়া (নেত্রকোণা) প্রতিনিধি: নেত্রকোণার কেন্দুয়া পৌর শহরের মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক বিলকিছ চৌধুরীকে কারণ দর্শানো নির্দেশ দিয়েছেন উপজেলা শিক্ষা অফিস। 
ওই বিদ্যালয়ের প্রথম শ্রেণি শিক্ষার্থী পূজা দেবনাথকে বেত্রাঘাতের অভিযোগে গতকাল এই কারণ দর্শানো নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

গত ৫ নভেম্বর স্কুল থেকে বাড়ি ফিরে তাকে প্রহার করার বিষয়টি অভিভাবককে জানায় পূজা। পূজা বাবা বিষয়টি বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতিকে জানিয়ে পূজাকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করান। এবং বিষয়টি লিখিত ভাবে উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা ও কেন্দুয়া থানা ওসিকে অবহিত করেন।
 গতকাল বৃহস্পতিবার ওই প্রধান শিক্ষকের অপসারণের দাবী করে ইউএনও’র মাধ্যমে জেলা প্রশাসকের বরাবর স্বারক লিপি দেয়া হয়েছে। এসময় আহত শিক্ষার্থী পূজা দেবনাথের বাবা বিশ্বজিৎ দেবনাথসহ অন্য অভিবাবক ও শিক্ষার্থীরা উপস্থিত ছিলেন। 

অপরদিকে ওইদিন স্কুল শেষে বিলকিছ চৌধুরীর নেতৃত্বে শিক্ষার্থীরা একটি মিছিল সহকারে উপজেলা নির্বাহী অফিসারের বরাবর একটি স্বারক লিপি প্রদান করেন। এসময় তারা স্লোগান তুলে বলে ‘মেডামকে যেতে দেবনা’ ‘মেডামের বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ মানি না’ মানব না’।

এবিষয়ে জানতে চাইলে প্রধান শিক্ষক বিলকিছ চৌধুরী জানান, আমি সব সময়ই মাতৃস্নেহে শিশুদের পাঠদান করি। বিদ্যালয়ে নতুন বেে  ওপর ওই মেয়েটি কলম দিয়ে আকাঁ-আখিঁ করছিল। তাকে বারণ করার চেষ্টা করলেও সে থামেনি। পরে আমি তাকে বারন করার জন্য আস্তে করে এক বার আঘাত করেছি। কিন্তু পরে দেখি কয়েকটি দাগ।

প্রধান শিক্ষকে কারণ দর্শানো বিষয়টি সত্যতা নিশ্চিত করে প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার জিয়াউল হক বলেন, তার বিরুদ্ধে অভিযোগ হওয়ার বিষয়টি আগামী তিন দিনের মধ্যে জবাব দিতে বলা হয়েছে। জবাব না পেলে আইনানুযাী ব্যবস্থা নেয়া হবে।

ট্যাগ: bdnewshour24 কেন্দুয়া