banglanewspaper

বিড়াল দারুণ এক প্রাণী, বুদ্ধিমান আর ভয়হীন। কিন্তু খেয়াল করে দেখেছেন কি, কুকুর পানি ভালোবাসলেও বিড়াল যে পানি দেখলেই দূরে সরে যায়!

শুধু কুকুর নয়, অনেক প্রাণীই আছে, যেগুলো সাঁতার কাটতে রীতিমতো ভালোবাসে। কিন্তু বিড়াল জলাধার বা বাথটাব থেকে শত হাত তফাতে থাকাই শ্রেয় মনে করে। পানির ব্যাপারে বিড়ালের এ ভীতির কারণ কী? 

সম্প্রতি পশু আচরণবিষয়ক বিশেষজ্ঞ ও যুক্তরাষ্ট্রের কর্নেল বিশ্ববিদ্যালয়ের পশুচিকিৎসা বিভাগের সাবেক পরিচালক কেলি বোলেন এর কারণ নিয়ে কথা বলেছেন। তিনি জানান, এর একটি কারণ হতে পারে বিড়ালের লোমের ধরন এমন যে এটি পানিতে ভেজানোর ক্ষেত্রে অনুকূল নয়। বিড়ালের লোম ভিজে গেলে শুকাতে অনেক সময় লাগে, যা একে অস্বস্তিকর অনুভূতি দেয়। অন্যদিকে কুকুরের লোমের ধরনটাই এমন যে তা সহজেই শুকিয়ে যায়, ফলে পানিতে কুকুরের অস্বস্তি হয় না।

পানিতে সাঁতার কাটার ব্যাপারেও বিড়ালের অস্বস্তি লক্ষণীয়, কিন্তু কুকুরের তা নেই। কিছু কিছু কুকুর তো এতই ভালো সাঁতার কাটে যে সেগুলোকে ‘ওয়াটার ডগ’ বলা হয়। এ প্রসঙ্গে বোলেন জানান, বিড়ালের থাবার গঠন এমন যে তা শক্ত যেকোনো কিছুর ওপরে নিয়ন্ত্রণ রাখতে সক্ষম, কিন্তু পানিতে ব্যবহারের জন্য অনুকূল নয়। কুকুরের থাবার গঠন আবার এমন যে তা পানিতে সাঁতার কাটার সময় কোনো অসুবিধার সৃষ্টি করে না।

এসব কারণের বাইরেও বোলেন বলেন, কুকুর বিড়ালের অনেক আগে থেকেই পানির সঙ্গে পরিচিত। বিড়াল স্বভাবগতভাবেই একটু শীতকাতুরে।

ট্যাগ: bdnewshour24 কুকুর বিড়াল