banglanewspaper

নিজস্ব প্রতিনিধি: এমবিবিএস পরীক্ষার সফল সমাপ্তির পর ডাঃ সাহেদ ইমরান জনগণকে স্বাস্থ্যসেবা প্রদানের জন্য তাঁর সাথে জড়িত ছিলেন এবং বর্তমানে তাঁর নতুনত্ব¡, ভক্তি ও ক্ষমতা দ্বারা ঈশ্বরদী-আটঘরিয়া অঞ্চলের অনেক বড় কাজ করেছেন।

তার বাবা-মা উভয়েই শিক্ষক। ডাঃ সাহেদ ইমরান হলেন এস এম নিজাম উদ্দিন ও সাহেদা আরজুমান্দ বানুর একমাত্র পুত্র। তাঁর একমাত্র বোন নীনা আশরাফী পেশায় একজন ফার্মাসিস্ট।

খুব অল্প সময়ের মধ্যেই তিনি তার জাতীয় সংসদীয় আসন-৭১, নির্বাচনী এলাকা পাবনা-৪ (ঈশ্বরদী-আঘরিয়া) এর জনগণের প্রতি ভালোবাসা ও জনপ্রিয়তা অর্জন করেছেন। পেশাগত দিক থেকেও তার সিনিয়র ও জুনিয়র সহকর্মীদের মধ্যে তাঁর পেশাগত কাজের মধ্যেও জনপ্রিয়তা রয়েছে যা তাকে আরও ভাল কাজ করার প্রয়োজনীয় অনুপ্রেরণা দেয়।

কিন্তু ডাঃ সাহেদ ইমরান সমাজে নিপীড়িতদের সাহায্য করার জন্য স্বপ্ন দেখেন। অর্থের পেছনে চলার পরিবর্তে তিনি বিভিন্ন স্বাস্থ্য ও স্বাস্থ্য সমস্যা সম্পর্কে সচেতনতা সৃষ্টির জন্য তার বিনামূল্যে সময় উৎসর্গ করেন এবং বিভিন্ন গ্রামের গরীবদের চিকিৎসা ও সমাধান প্রদান করেন।

তিনি স্বাধিনতা চিকিৎসক পরিষদ (স্বাচিপ) এর একটি আঞ্চলিক কমিটির সদস্য এবং কেন্দ্রীয় সদস্য, উপ কমিটি, বিএমএ (বাংলাদেশ মেডিকেল এসোসিয়েশন)। তিনি মডারেটর হিসেবে অনলাইন গ্রুপ “আমরা শেখ হাসিনার সৈনিক” পরিচালনা কাজে নিযুক্ত ও গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেন। জাতীয় শোক দিবসসহ অন্যান্য জাতীয় দিবস পালনে ডাঃ সাহেদ ইমরান এর নেতৃত্বে অনেক স্বাস্থ্য ক্যাম্প এবং দরিদ্র জনগোষ্ঠীর সহায়তা প্রদান করে আসছেন।

তিনি দেশের বিভিন্ন জায়গায় সচেতনতা বৃদ্ধি ও সক্রিয়ভাবে অংশ নেওয়ার জন্য রাশ্মি (ক্যান্সার প্রতিরোধ ও সচেতনতার জন্য একটি সমিতি), হেলথ ভয়েস, ডক্টরস ভয়েস, অডিয়েন্স (স্বাস্থ্য সম্পর্কিত প্লাটফর্ম), নিরাময় নামে কিছু স্বেচ্ছাসেবী প্রতিষ্ঠানের সাথে যুক্ত। তিনি ডিজিটাল ভিত্তিক স্বাস্থ্যসেবা এবং লাইফ স্টাইল সংক্রান্ত পরিসেবা প্রদানে “যত্ন” নামে অ্যাপস ভিত্তিক একটি সেবা প্রতিষ্ঠান গড়েছেন, যাতে মানুষ সহজ ও তার দোরগোড়ায় স্বাস্থ্য সেবা গ্রহণ করতে পারে।

পরিচালক ও উপস্থাপক হিসেবে এটিএন বাংলায় “হেলথ শো” নামক প্রোগ্রামের জন্য তিনি দেশের বিশিষ্ট চিকিৎসকদের স্বাস্থ্য ও স্বাস্থ্য সম্পর্কিত বিস্তৃৃত বিষয়গুলিতে কথা বলতে আমন্ত্রণ জানান। এখন তিনি বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সুস্থ ও সমৃদ্ধ বাংলাদেশ বাস্তবয়নের চেষ্টা করছেন।

ট্যাগ: bdnewshour24 পাবনা-৪