banglanewspaper

সৌদি আরবের ক্ষমতাসীন রাজপরিবারের সদস্যরা যুবরাজ সালমানের রাজা হওয়ার পথ বন্ধে বিভিন্ন উদ্যোগ নিচ্ছে। সৌদি সাংবাদিক জামাল খাসোগিকে হত্যার পর আন্তর্জাতিক সমালোচনার পরিপ্রেক্ষিতে তারা এই আন্দোলন চালাচ্ছে বলে রাজপরিবারের ঘনিষ্ঠ বিভিন্ন সূত্র জানায় বার্তা সংস্থা রয়টার্সকে।

মঙ্গলবার সংশ্লিষ্ট সূত্রের উদ্ধৃতি দিয়ে রয়টার্স জানায়, ঊর্ধ্বতন মার্কিন কর্মকর্তারা সম্প্রতি সৌদি উপদেষ্টাদের জানিয়েছেন তারা কিং সালমানের উত্তরসূরি হিসেবে যুবরাজ আহমেদ বিন আব্দুলাজিজকে সমর্থন করবেন। তিনি প্রায় ৪০ বছর ধরে সৌদির উপ-স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করেছেন।

আল সৌদ পরিবারের শক্তিশালী কয়েকটি শাখার কয়েক ডজন যুবরাজ এবং তাদের ভাইয়েরা রাজার উত্তরসূরির জায়গায় পরিবর্তন চায়। কিন্তু যুবরাজ সালমানের বাবা ৮২ বছর বয়সী কিং সালমান বেঁচে থাকতে তারা কোনও পদক্ষেপ নিবে না বলে জানায় সূত্রগুলি।

তবে রাজা তার প্রিয় ছেলের বিরুদ্ধেও যাবেন বলে তারা মনে করেন না, বলা হয় রয়টার্সের প্রতিবেদনে।

বরং, রাজার মৃত্যুর পর যুবরাজ সালমানের চাচা প্রিন্স আহমেদকে সিংহাসনে বসানোর বিষয়ে আলোচনা করছে পরিবারের সদস্যরা।

কিং সালমানের একমাত্র জীবিত ভাই প্রিন্স আহমেদ পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে সঙ্গে নিরাপত্তা বাহিনী এবং পশ্চিমা শক্তিগুলোরও সমর্থন পাবেন, জানায় সৌদি সূত্রগুলো। প্রিন্স আহমেদ বা তার মুখপাত্র রয়টার্সকে এবিষয়ে কোনও মন্তব্য দেননি। দুই মাস বিদেশে অবস্থান করার পর প্রিন্স আহমেদ অক্টোবর মাসে রিয়াদে ফিরে যান।

সফরকালে তিনি সৌদির শাসকদের সমালোচনা করেন। লন্ডনে তার বাসভবনের বাইরে আল সৌদ পরিবারের পতন চেয়ে বিক্ষোভকারীদের শ্লোগানেরও জবাব দেন তিনি। রাজপরিবারের জ্যেষ্ঠ সদস্যদের নিয়ে গঠিত অ্যালেজিয়েন্স কাউন্সিলের যে তিন জন সদস্য ২০১৭ সালে সালমানকে ক্রাউন প্রিন্স ঘোষণা করার বিরোধিতা করেছিল, তাদের একজন হচ্ছেন প্রিন্স আহমেদ।

শত শত যুবরাজ রয়েছে সৌদ রাজবংশে। ইউরোপের রাজতন্ত্রগুলোর মতো স্বাভাবিকভাবেই সেখানে বাবার বড় ছেলে সিংহাসনের উত্তরাধিকারী হন না। এর বদলে, প্রথা অনুযায়ী রাজা ও প্রতিটি গোষ্ঠীর পরিবারের জ্যেষ্ঠ সদস্যরা মিলে সবচেয়ে উপযুক্ত একজন শাসককে নির্বাচন করেন।
সৌদি সূত্রগুলো বলছে, তারা নিশ্চিত প্রিন্স আহমেদ যুবরাজ সালমানের চালু করা সংস্কার বাতিল করবেন না, বর্তমান সামরিক ক্রয় চুক্তিগুলো বহাল রাখবেন, এবং পরিবারের মধ্যে ঐক্য ফিরিয়ে আনবেন।

তবে একজন জ্যেষ্ঠ মার্কিন কর্মকর্তা বলছেন, যুবরাজ সালমানের নির্দেশে খাসোগিকে হত্যা করা হয়েছে বলে সিআইএ মন্তব্য করলেও, হোয়াইট হাউজ এখনই যুবরাজের সঙ্গে দূরত্ব তৈরি করতে উৎসুক নয়। তবে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প এই হত্যার বিষয়ে চূড়ান্ত প্রতিবেদন পেলে অবস্থা বদলে যেতে পারে।

ট্যাগ: bdnewshour24 যুবরাজ সালমান সৌদির রাজা