banglanewspaper

মনির হোসেন জীবন, নিজস্ব প্রতিনিধি: ১৬ ডিসেম্বর। ৪৭তম মহান বিজয় দিবসে বীর শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে বাহারি ফুলে আর বর্ণিল সাজে সেজেছে সাভারের জাতীয় স্মৃতিসৌধ। উৎসাহের কমতি নেই সাধারণ মানুষের।

ইতিমধ্যে নিরাপত্তাসহ সব ধরনের প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছে প্রশাসন। এখন কেবল অপেক্ষার পালা ভোর হলেও ঢ্ল নামবে সাধারণ জনগণের। শ্রদ্ধা জানাবে জাতির বীর শহীদদের।

বিজয় দিবসের প্রথম প্রহরে রাষ্ট্রপতি আব্দুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার শ্রদ্ধার্ঘ্য নিবেদনের মধ্যে দিয়ে শুরু হবে ৪৭তম বিজয় দিবসের আনুষ্ঠানিকতা।

আর এই দিনই বীর শহীদদের শ্রদ্ধা জানাতে স্মৃতিসৌধের শহীদ বেদীতে জড়ো হবে লাখ লাখ মানুষ। দিবসকে ঘিরে সর্বোচ্চ নিরাপত্তা ও নজরদারী জোরদার করা হয়েছে পুরো স্মৃতিসৌধ এলাকা। 

একটি লাল সবুজ পতাকা। একটি মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস। সময়ের সাথে অনেক কিছু ঢাকা পড়ে যায়। বদল হয় বা বিলীন হয়ে যায় নানান স্মৃতি। তবে ১৯৭১ সালের মুক্তিযুদ্ধে শহীদ হওয়া বীর মুক্তিযোদ্ধাদের প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে ১৬ ডিসেম্বরে উৎসাহের কোন কমতি থাকে না। প্রতিবছরের মতো মহান বিজয় দিবস উপলক্ষ্যে মাসব্যাপী অক্লান্ত পরিশ্রম ও নিবিড় যত্নে জাতীয় স্মৃতিসৌধকে পরিস্কার পরিচ্ছন্নতার পাশাপাশি বাহারি ফুলে ফুলে সাজানো হয়েছে। শেষ হয়েছে লাইটিংসহ রং তুলির কাজ। নিরাপত্তার জন্য সৌধের ভেতরে ও বাইরে লাগানো হয়েছে সিসি ক্যামেরা। কয়েক হাজার নিরাপত্তা কর্মী নিয়োজিতসহ বাড়ানো হয়েছে সার্বক্ষণিক গোয়েন্দা নজরদারি। 

রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রী যথাযোগ্য মর্যাদায় দিবসটি পালনের জন্য প্রস্তুতি শেষ হয়েছে। তিন বাহিনীর সু-সজ্জিত দলের মহড়া।

১০৮ একর জমির উপর নির্মিত হয় জাতীয় স্মৃতিসৌধ তিনটি ধাপে নির্মিত হয়। ৪৫ মিটার উচ্চতা বিশিষ্ট বিভিন্ন ধাপে ৭টি মিনার, পুষ্পবেদী, গণসমাধী, আবাসিক গৃহ, কৃত্রিম হ্রাদসহ নানা অবকাঠামো রয়েছে।

স্মৃতিসৌধে পরিচ্ছন্নতার কাজ করে এমন কয়েকজনের সাথে কথা বলে জানা গেছে, কেবলমাত্র কর্মের জন্যই নয়, ১৬ ডিসেম্বরের কাজের আনন্দটা যেন একটু ভিন্ন মাত্রা নিয়ে আসে। বিজয়ের আনন্দটাই যেন মুখ্য তাদের কাছে। আর তাদের সুনিপুন হাতের কারুকার্যেই সুন্দর হয়ে উঠে পুরো স্মৃতিসৌধ।

আবার এই দিনটি ঘিরে শ্রদ্ধা আর ভালোবাসা নিয়ে নতুন প্রজম্মকে স্মৃতিসৌধকে সঙ্গে পরিচিত করতে উৎসাহের কমতি নেই সাধারন মানুষদের এমনটাই জানালেন কয়েকজন দর্শনার্থী।

গণপূর্ত বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী জোয়ারদার তাবেদুন নবী জানান, বিজয় দিবস উদযাপনের লক্ষ্যে ইতিমধ্যে সকল ধরণের প্রস্তুতি সম্পন্ন হয়েছে। স্মৃতিসৌধকে সাজানো হয়েছে বর্ণিল সাজে।

ঢাকা জেলা পুলিশ সুপার শাহ মিজান শাফিউর রহমান জানান, `সম্প্রতি যুক্তরাষ্ট্রের ঘটনা সামনে রেখে নিরাপত্তার বিষয়টি আরও জোরদার করা হয়েছে। কয়েক স্তুরের পাশাপাশি বাড়তি তৎপরতা বাড়ানো হয়েছে। '

ট্যাগ: bdnewshour24 বীর শহীদ জাতীয় স্মৃতিসৌধ