banglanewspaper

জ্যোতির্বিজ্ঞানের আগ্রযাত্রায় আমরা সবাই জানি যে, চাঁদের নিজস্ব কোনও আলো নেই। সূর্যের আলোতেই রাতের আকাশ আলোকিত করে চাঁদ। আর এই চাঁদ কখনও উদিত হয় না। অনবরত ঘুরতে থাকায় অবস্থান পরিবর্তনের কারণে সূর্য আড়াল হলেই চাঁদ দেখা যায়। 

বিশ্ববাসীর কাছে রহস্যময় এই চাঁদ নিয়ে কৌতুহলের শেষ নেই। সাহিত্যেও এই চাঁদ উঠে এসেছে নানা রূপকে, উপমায়। 

সর্বশেষ পূর্ণগ্রাস চন্দ্রগ্রহণ দেখা গিয়েছিল ২০১৮ সালের ২৭ জুলাই। এবার পৃথিবীর মানুষের আরও একবার দেখতে পাবে কুসুম কোমল লাল আভার চাঁদ। মহাবিশ্বের অমোঘ নিয়মে সোমবারও আকাশে উঠবে লাল চাঁদ। 

এদিন পূর্ণ চন্দ্রগ্রাস ঘটবে। এ সময়ের চাঁদকে বলা হয় 'সুপার ব্লাড মুন'। ন্যাশনাল জিওগ্রাফিকের প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়েছে। 

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, সোমবার সকাল ৮টা ৩৬ মিনিট ৩০ সেকেন্ড বিএসটিতে গ্রহণ শুরু হয়ে দুপুর ১টা ৪৮ মিনিট বিএসটিতে শেষ হবে। সকাল ১১টা ১২ মিনিট ১৬ সেকেন্ড বিএসটিতে কেন্দ্রীয় গ্রহণ ঘটবে। পৃথিবী থেকে দেখা যাবে 'সুপার ব্লাড মুন'। 

তবে বাংলাদেশের মানুষের কাছে একটু আক্ষেপেরই খবর। কারণ এই লাল চাঁদ বাংলাদেশে দেখা যাবে না।

এ নিয়ে জ্যোতির্বিজ্ঞানীরা বলছেন, গ্রহণের সময় পৃথিবী থেকে চন্দ্রপৃষ্ঠ লাল আভায় উছলে উঠতে দেখা যাবে। পৃথিবী থেকে প্রসারিত আলো চাঁদের অন্ধকার স্থানে গিয়ে পড়ার কারণে এমনটি হবে। নীল ও বেগুনি বর্ণের তুলনায় লাল রঙের তরঙ্গ দৈর্ঘ্য বেশি ছড়াবে বলে এই চাঁদ হবে লাল বলের মতো।

উত্তর ও দক্ষিণ আমেরিকায় গ্রহণটি পুরোপুরিভাবে এবং পশ্চিম ইউরোপ ও উত্তর-পশ্চিম আফ্রিকার কিছু স্থানে আংশিকভাবে এই লাল চাঁদ দেখা যাবে বলে বাংলাদেশ আবহাওয়া অধিদফতর সূত্র জানিয়েছে।

২০২১ সালের ২৬ জুন আবার দেখা যাবে পূর্ণগ্রাস চন্দ্রগ্রহণ। 

ট্যাগ: bdnewshour24 চাঁদ