banglanewspaper

হুমকির সামনে মাথা নোয়াননি। বরং থানায় গিয়েছেন। করেছেন ধর্ষণের মামলা। তার জেরে প্রাণ হারাতে হলো এক তরুণীকে। বাড়ি থেকে তাকে তুলে নিয়ে গুলি করে খুন করল অভিযুক্ত যুবক। ভারতের গুরুগ্রাম-ফরিদাবাদ এক্সপ্রেসওয়ের খুশবু চক থেকে ওই তরুণীর দেহ উদ্ধার হয়েছে।

পুলিশ সূত্রে জানায়, নিহত ওই তরুণী আদতে হরিয়ানার করনালের বাসিন্দা। গত চার বছর ধরে গুরুগ্রামে একটি পানশালায় নর্তকী ছিলেন। ওই পানশালাতেই বাউন্সার হিসেবে কাজ করত অভিযুক্ত সন্দীপ কুমার। একসময় দুজনের মধ্যে ঘনিষ্ঠতা ছিল। কিন্তু ২০১৭ সালের মার্চ মাসে সন্দীপের বিরুদ্ধে থানায় যান ওই তরুণী। ধর্ষণের মামলা দায়ের করেন। তার অভিযোগের ভিত্তিতে সন্দীপকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। যদিও পরে জামিনে ছাড়া পেয়ে যায় সে।

জামিনে ছাড়া পাওয়ার পর থেকেই নির্যাতিতাকে উত্ত্যক্ত করছিল অভিযুক্ত সন্দীপ কুমার। মামলা তুলে নিতে চাপ দিচ্ছিল। এমনকি হুমকি দিচ্ছিল তার পরিবারকেও। কিন্তু তাতে ভয় পেয়ে পিছিয়ে আসেননি নির্যাতিতা। শুক্রবার ধর্ষণ মামলার শুনানি ছিল গুরুগ্রাম আদালতে। তার বয়ান রেকর্ড করতে যাওয়ার কথা ছিল তার। কিন্তু তার আগে নাথুপুরে তার বাড়িতে চড়াও হয় অভিযুক্ত।

নির্যাতিতার মায়ের দাবি, মেয়ের সঙ্গে আদালতে যাবেন বলে করনাল থেকে গুরুগ্রাম গিয়েছিলেন তিনি। শুক্রবার সকাল ৬টার দিকে আচমকাই তাদের বাড়িতে গাড়ি নিয়ে হাজির হয় সন্দীপ। নির্যাতিতার সঙ্গে গাড়িতে বসে কিছুক্ষণ কথা বলতে চায় বলে জানায়। তাতে রাজি হননি নির্যাতিতা। কিন্তু জোর করে তাকে গাড়িতে নিয়ে গিয়ে বসায় অভিযুক্ত। তারপর আর এক মুহূর্তও নষ্ট করেনি। দ্রুতগতিতে গাড়ি নিয়ে বেরিয়ে যায় সে।

আনন্দবাজার জানায়, পরে বেশ কয়েকবার নির্যাতিতার মাকে ফোন করে অভিযুক্ত। মামলা তুলে না নিলে, তার মেয়েকে মেরে ফেলবে বলে হুমকি দেয়। তাতেও কাজ না হওয়ায় ওই তরুণীকে গুলি করে খুন করে সে। গুরুগ্রাম-ফরিদাবাদ এক্সপ্রেসওয়ের খুশবু চক এলাকায় দেহ ফেলে চম্পট দেয়।

গুরুগ্রাম পুলিশের জনসংযোগ বিভাগের প্রধান সুভাষ বোকান জানান, ‘স্থানীয় সূত্রে খবর পেয়ে ওই তরুণীর দেহ উদ্ধার করে পুলিশ। বুকে, মাথায়, মোট চারবার গুলি করা হয়েছিল তাকে। ঘটনার পর থেকেই ফেরার সন্দীপ। ফরিদাবাদের তিগাঁওয়ের বাসিন্দা সে। তার বিরুদ্ধে বয়ান দিয়েছেন নির্যাতিতার মা। ডিএলএফ ফেজ-১ থানায় তার বিরুদ্ধে ৩০২ (খুন) এবং বেআইনি অস্ত্র আইনে মামলা করা হয়েছে। শুরু হয়েছে তদন্ত।’

ট্যাগ: bdnewshour24 হত্যা