banglanewspaper

রাজধানীতে নিরাপদ হিসেবে স্বীকৃতি পাওয়ার পর দিনই তিনটি খাবার হোটেলকে এক লাখ টাকা করে জরিমানা গুণতে হলো বাসি খাবার বিক্রি ও নোংরা পরিবেশের দায়ে। এই ঘটনাটি নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষের সিদ্ধান্তকেই প্রশ্নের মুখে ফেলে দিয়েছে।

হোটেল তিনটি হলো সেগুনবাগিচার ভোঁজ বাংলার স্বাদ, বাগিচা রেস্টুরেন্ট অ্যান্ড পার্টি সেন্টার এবং ইনজয় রেস্টুরেন্ট অ্যান্ড ফাস্ট ফুড।

সোমবার (২১ জানুয়ারি) জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদফতরের অভিযানে এই আদেশ আসে। অভিযানটি পরিচালনা করেন অধিদপ্তরের ঢাকা জেলা কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক আব্দুল জব্বার মণ্ডল ও জান্নাতুল ফেরদাউস।

আগের দিন ঢাকার ৫৭টি রেস্টুরেন্টকে মান বিবেচনায় ‘এ-প্লাস’ (উত্তম) ও ‘এ’ (ভালো) গ্রেডের স্বীকৃতি দেয় বাংলাদেশ নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষ। এর মধ্যে ১৮টি ‘এ-প্লাস’ এবং ৩৯টি ‘এ’ গ্রেড পায়। জরিমানা হওয়া তিনটি প্রতিষ্ঠান পেয়েছিল ‘এ’ গ্রেড।

অভিযান পরিচালনাকারী আব্দুল জব্বার মন্ডল বলেন, বাগিচা রেস্টুরেন্টে অভিযানে গিয়ে নোংরা অপরিছন্ন পরিবেশে খাবার তৈরির চিত্র দেখা যায়। তাদের ফ্রিজে কয়েকদিনের বাসি খাবার রাখা ছিল। তারা সেসব খাবার ক্রেতাদের কাছে বিক্রি করছে। এছাড়াও তারা ১৬ টাকার সফট ড্রিংকস ২৫ টাকায় বিক্রি করছে। আইন অনুযায়ী এটি একটি দণ্ডনীয় অপরাধ।

একইভাবে ভোঁজ বাংলার স্বাদ (রেস্টুরেন্ট)-এ গিয়ে নোংরা অপরিছন্ন পরিবেশে খাবার তৈরি ও পুরনো বোতলে বোরহানি বিক্রির চিত্র দেখা যায়। ইনজয় রেস্টুরেন্টে মেয়াদোত্তীর্ণ দই বিক্রির প্রমাণ মিলেছে। এছাড়াও তাদের কোনো পণ্যের মূল্য তালিকা ছিল না।

এই কর্মকর্তা আরও জানান, তিনটি প্রতিষ্ঠানই তাদের ভুল স্বীকার করে। একই সঙ্গে আগামী দুই এক দিনের মধ্যে সংশোধনের প্রতিশ্রুতি দিয়েছে।

অভিযানে প্রেসলি বেকারিকেও ৩৫ হাজার টাকা এবং তওফিস ফ্যামিলি কর্নারকে ১০ হাজার টাকা জারিমানা করা হয়।

ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালক বলেন, বাংলাদেশ নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষ তাদের মান দেখে স্টিকার দিয়েছে। এখন তারা নিয়ম না মানলে আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা নেয়া হবে। তাদের আমরা তদারকি করব। এরই অংশ হিসেবে আজকে তিনটিকে জরিমানা করা হয়েছে।

ট্যাগ: bdnewshour24 জরিমানা