banglanewspaper

শরীয়তপুরের নড়িয়া উপজেলায় বাবাকে বটি দিয়ে কুপিয়ে হত্যা করেছে ছেলে। এ সময় মাকেও গুরুতর জখম করা হয়েছে। রোববার বিকেল ৫টার দিকে উপজেলার ভোজেশ্বর ইউনিয়নের আনাখন্ড গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। নিহতের নাম আব্দুর রহিম বেপারী (৪৮)।

পরে ঘাতক ছেলে নাঈম ইসলামকে (২২) স্থানীয়রা ধরে পুলিশে দিয়েছে।

পুলিশ ও স্থানীয়রা জানিয়েছে, নাঈম নেশাখোর। এর আগেও তিনি পরিবারের সদস্যদের নানা সময়ে মারধর করেছেন।

ভোজেশ্বর ইউনিয়ন পরিষদের ১ নম্বর ওয়ার্ডের মেম্বার আব্দুস সালাম বেপারী জানান, পেশায় মাছ ব্যবসায়ী আব্দুর রহিম বেপারী যশোর থেকে পোনা কিনে বিকেল ৫টার দিকে বাড়িতে আসেন। ঘরের জিনিসপত্র এলোমেলো দেখে স্ত্রী পিয়ারা বেগমের সঙ্গে তার কথা কাটাকাটি হয়। এরই মধ্যে নেশাখোর ছেলে নাঈম বটি হাতে সেখানে হাজির হন। মাকে এলোপাথাড়ি কুপিয়ে জখম করেন। বাবা ঠেকাকে গেলে তার ওপর চড়াও হন তিনি।

এ সময় রহিম বেপারীর গলায় ও পিঠে বটির কোপ লাগে। মাটিতে পড়ে গেলে নাঈম তার পায়ে কোপ দেন। এতে রগ কেটে ঘটনাস্থলেই তার মৃত্যু হয়।আর্তচিৎকারে প্রতিবেশীরা এসে পিয়ারা বেগমকে উদ্ধার করে শরীয়তপুর সদর হাসপাতালে ভর্তি করেন। আর নাঈমকে আটক করে পুলিশে খবর দেন।

রহিম বেপারীর চাচাতো ভাই আব্দুল লতিফ বেপারী জানান, নাঈম দীর্ঘদিন ধরে মাদকাসক্ত। প্রায়ই পরিবারের লোকজনকে মারধর করতো। অনেক চেষ্টা করেও তাকে সংশোধন করানো যায়নি।

নড়িয়া থানার ওসি মঞ্জুরুল হক আকন্দ জানান, নাঈমকে আটক করা হয়েছে। মামলার পর তার বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নেয়া হবে।

ময়নাতদন্ত শেষে লাশ পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়। ইতোমধ্যে তাকে দাফন হয়েছে বলেও জানান তিনি।

ট্যাগ: bdnewshour24 মাদকসেবী বটির কোপ