banglanewspaper

দক্ষিণ অ্যামেরিকার দেশ ভেনেজুয়েলার রাজনৈতিক সঙ্কট মোকাবেলায় বিকল্প উপায় হিসেবে সেখানে মার্কিন সৈন্য মোতায়নের কথা ভাবছেন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। সেনা মোতায়েন প্রসঙ্গে রবিবার (৩ ফেব্রুয়ারি) মার্কিন গণমাধ্যমে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে ট্রাম্প বলেন, ‘আমি এটা বলতে চাচ্ছি না, কিন্তু এটাই মনে হচ্ছে কোন একটি বিকল্প পথ হতে পারে।’

এসময় তিনি জানান, মাদুরো তার সাথে মাসখানেক আগে বৈঠক করতে চাইলে তিনি তা নাকচ করে দেন।

সাক্ষাতকারে ট্রাম্প ভেনেজুয়েলার বিরোধী দলীয় নেতা গুইদোকে একজন তরুণ ও উদ্যমী নেতা বলেও স্বীকৃতি দেন।

ভেনেজুয়েলায় চলছে বড় রকমের রাজনৈতিক সঙ্কট। একদিকে প্রেসিডেন্ট নিকোলাস মাদুরো অন্যদিকে বিরোধী নেতা হুয়ান গুইদো পরস্পরের বিরুদ্ধে অবস্থান নেয়ায় সেখানে বিরাট রকমের রাজনৈতিক সঙ্কট দেখা দিয়েছে। 

সঙ্কটের সূত্রপাত গত মে মাসে। সেসময় ভেনেজুয়েলায় সাধারণ নির্বাচনে জয়লাভের মাধ্যমে দ্বিতীয় মেয়াদে প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হন মাদুরো। চলতি মাসের শুরুতে শপথ নেন বামপন্থি এ রাজনীতিক। তবে বিরোধীরা প্রথম থেকেই কারচুপির অভিযোগ তুলে নতুন নির্বাচনের দাবি জানিয়ে আসছে। 

মাদুরোবিরোধী বিক্ষোভ তুঙ্গে ওঠার পর ২৩ জানুয়ারি নিজেকে অন্তর্বর্তীকালীন প্রেসিডেন্ট ঘোষণা করেন ৩৫ বছর বয়সী বিরোধী নেতা হুয়ান গুইদো। চলমান রাজনৈতিক সঙ্কটে যুক্তরাষ্ট্র দেশটির বিরোধী দলীয় নেতা ও স্বঘোষিত অন্তর্বর্তীকালীন প্রেসিডেন্ট হুয়ান গুইদোকে পূর্ণ সমর্থন জানায়। শুধু তাই নয় মার্কিন সরকার তাৎক্ষণিকভাবে ভেনিজুয়েলার তেল খাতের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে।

এদিকে, ইউরোপের বিভিন্ন দেশ যেমন- যুক্তরাজ্য, স্পেন, ফ্রান্স, জার্মানিও স্বঘোষিত প্রেসিডেন্ট গুইদোকে সমর্থন জানিয়ে মাদুরোর নিকট অতিদ্রুতই অন্তর্বর্তীকালীন নির্বাচন অনুষ্ঠানের দাবি জানিয়েছে।

অন্যদিকে রাশিয়া, চায়না ও তুরস্ক বর্তমান সঙ্কটে দেশটির প্রেসিডেন্ট নিকোলাস মাদুরোর পাশে থাকার কথা জানিয়েছে।

ভেনেজুয়েলার এই রাজনৈতিক অচলাবস্থা কাটার কোনো সম্ভাবনা এখনো দেখা যাচ্ছে না। ‘বিতর্কিত' প্রেসিডেন্ট নিকোলাস মাদুরো ক্ষমতা ছাড়ার বা নতুন নির্বাচনের দাবি মানতে নারাজ। 

ট্যাগ: bdnewshour24 ভেনেজুয়েলা সেনা মোতায়ন যুক্তরাষ্ট্র