banglanewspaper

ফেঞ্চুগঞ্জ প্রতিনিধি: ফেঞ্চুগঞ্জে মাইজগাঁও রেলষ্টেশনে কনকনে ঠাণ্ডায় শীতার্ত বৃদ্ধা লোকের গায়ে কম্বল জড়িয়ে দিয়েছেন ফেঞ্চুগঞ্জ উপজেলা পরিষদের প্যানেল চেয়ারম্যান-০১ ও ভাইস চেয়ারম্যান মোহাম্মদ শহিদুর রহমান রুমান।

রবিবার মধ্যরাতে রাতে ফেঞ্চুগঞ্জ উপজেলার মাইজগাঁও রেলষ্টেশন সহ রাস্তায় ঘুমানো অসহায় লোকজনের গায়ে তিনি কম্বল জড়িয়ে দেন। ষ্টেশনের পিলারের পাশে ঘুমিয়ে রয়েছেন মানিক মিয়া। গায়ের চাঁদর দিয়ে শরীর ঢেকে রেখেছেন। ঠান্ডায় শরীর ঝিম হওয়ার মত অবস্থা। সে সময় বৃদ্ধা মানিক মিয়াকে ঘুম থেকে ডেকে জাগিয়ে বুকে কম্বল জড়িয়ে দিলেন রুমান। 

গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ত্রাণ তহবিল থেকে সাংসদ মাহমুদ উস সামাদ চৌধুরীর পক্ষে ফেঞ্চুগঞ্জ উপজেলা পরিষদের সার্বিক সহযোগিতায় শীতার্ত, অসহায় ও দুস্থ মানুষদের মধ্যে তিনি এ সময় ৫০টি কম্বল বিতরণ করেন।

বিভিন্ন এলাকার খুপড়ী ঘরগুলোতে অসহায় মানুষদের মাঝে নিজ হাতে শীতবস্ত্র তুলে দেন রুমান।  রাতের আধারে ঘুম থেকে উঠে রুমানের হাত থেকে অপ্রত্যাশিতভাবে একটি কম্বল হাতে পেয়ে অত্যান্ত খুশি এসব অসহায় মানুষগুলো।  অসহায় মানুষগুলো আবেগ জড়িত কণ্ঠে বলেন, আমাদের এখানে আগে কোনোদিনই কেউ এভাবে শীতবস্ত্র দেয়নি।

ফেঞ্চুগঞ্জ উপজেলা পরিষদের প্যানেল চেয়ারম্যান-০১ ও ভাইস চেয়ারম্যান শহিদুর রহমান রুমান বলেন, বিত্তবান মানুষ গরম কাপড় ক্রয় করে শীত নিবারণ করলেও গরীব-ছিন্নমূল মানুষেরা টাকার অভাবে ক্রয় করতে পারছে না শীতের গরম কাপড়।  তাই অসহায় দরিদ্র, ছিন্নমুল ও নিম্ন আয়ের মানুষের জীবনে নেমে এসেছে চরম দূর্ভোগ।  প্রচন্ড ঠান্ডার কারণে দিনমজুর শ্রেনীর মানুষ শ্রমিকের কাজে যেতে পারছে না।  রাতে বিভিন্ন স্থানে শীতার্ত মানুষ শীতে কষ্ট করেন।  এরাই প্রকৃত শীতার্ত।  তাদের কষ্ট কিছুটা লাঘব করার জন্য রাতে বের হওয়া।

ট্যাগ: bdnewshour24 ফেঞ্চুগঞ্জ