banglanewspaper

বাংলাদেশ-মিয়ানমার সীমান্ত পুরোপুরি বন্ধ করে দেয়া হয়েছে আর কোনো মিয়ানমারের নাগরিককে বাংলাদেশে ঢুকতে দেয়া হবে না বলে জানিয়েছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আবদুল মোমেন।

বুধবার (৬ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে বাংলাদেশে সফররত জাতিসংঘ শরণার্থী বিষয়ক সংস্থার (ইউএনএইচসিআর) বিশেষ দূত ও হলিউড অভিনেত্রী অ্যাঞ্জেলিনা জোলির সাথে বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এসব কথা বলেন।

সম্প্রতি রোহিঙ্গা মুসলিমদের পর রাখাইন থেকে প্রায় ‍দুই লক্ষাধিক বৌদ্ধ ও অন্যান্য উপজাতিদের বের করে দেয়া হয়েছে। এদের অনেকেই বাংলাদেশে প্রবেশ করেছে। অনেকেই প্রবেশের জন্য সীমান্তে অপেক্ষা করছে। 

এ বিষয়ে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, সীমান্ত আগেই বন্ধ ছিলো, এখন পুরোপুরি বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। ফলে আর কোনো রাখাইন অধিবাসী বাংলাদেশে ঢুকতে পারবে না।

সীমান্ত খুলে দিতে আন্তুর্জাতিক সম্প্রদায় যদি চাপ দেয় সেক্ষেত্রে বাংলাদেশ কি করবে- এমন প্রশ্নের জবাবে আবদুল মোমেন বলেন, ‘আমরা আগেই সীমান্ত খুলে দিয়েছি, ১০ লাখ রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠিকে আশ্রয় দিয়েছি, এখন অন্যরা তাদের সীমান্ত খুলুক।’

উল্লেখ্য, মিয়ানমারের সেনাবাহিনীর গণহত্যা ও নিষ্ঠুর নির্যাতনের মুখে রাখাইন রাজ্য থেকে পালিয়ে এসে বিভিন্ন সময়ে বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়েছে বাস্তুচ্যুত রোহিঙ্গা মুসলিমরা। সর্বশেষ ২০১৭ সালের আগস্টের পর ওই রাজ্য থেকে পালিয়ে বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়েছে ৭ লাখের বেশি রোহিঙ্গা নারী–পুরুষ। আগে ও বর্তমান মিলিয়ে বাংলাদেশে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গার সংখ্যা এখন ১১ লাখের বেশি। শিক্ষা, বাসস্থান, কর্ম, ভ্রমণ, ভোট ও স্বাস্থ্যসেবাসহ প্রায় সকল মানবাধিকার থেকে বঞ্চিত রোহিঙ্গারা মানবেতর জীবনযাপন করছে।

ট্যাগ: bdnewshour24 পররাষ্ট্রমন্ত্রী