banglanewspaper

পিরোজপুর প্রতিনিধি: উপজেলার দৈহারী ইউনিয়নে আদালতের আদেশ অমান্য করে বিরোধীয় সম্পত্তিতে ঘর উত্তোলন করার অভিযোগ পাওয়া গেছে।

সরজমিনে দেখা যায়, দৈহারী ইউনিয়নের ৩৫ নং চিনাবুনিয়া মৌজার এস এ ৪২ নং খতিয়ানের ৩৩২ নং দাগে ১৭ শতক কবলা দলিলের জমি নিয়ে বিরোধ চলে আসছে বড়ই বাড়ী গ্রামের ফরিদ উদ্দিনের সন্তান মোছা: লাইবিন,মো: মিরাজ,মো: আসাদ,মো: শাখাওয়াত হোসেন ও মৃত সফিজউদ্দিনের ছেলে মোঃ ফরিদ এবং মো: মসলেম আলীর ছেলে মো: সাইদুলের সাথে।

মামলার কাগজ পত্রে দেখা যায় এই সম্পত্তি নিয়ে ২০ ডিসেম্ভর ২০১৬ পিরোজপুর অতিরিক্ত জেলাম্যাজিস্ট্রেট আদালতে হাসেম আলী মামলা করেন। যার ফলে বিগত বছর ৫ নভেম্বর বিজ্ঞ আদালত ফৌজদারী কার্যবিধির ১৪৪ ধারা জারী করে উভয় পক্ষের প্রবেশ বারিত করে। এদিকে আদালতের আদেশ অমান্য করে লাইবিন (৩২) ও অন্যান্য বিবাদীরা ওই জমিতে পুকুর কেটে, বসত ঘর স্থাপন করে জমির শ্রেনী পরিবর্তন করে ফেলেছে। 

বিষয়টি নিয়ে বাদী হাসেম আলী বলেন আদালতের ১৪৪ ধারার আদেশের পরও লাইবিন ও তার সঙ্গীরা জমিতে প্রবেশ করে পুকুর কাটা ও ঘর স্থাপন করলে আমি পিরোজপুর পুলিশ সুপারের কাছে এবং স্বরুপকাঠি কাউখালির দায়িত্বে থাকা সার্কেল এসপির বরাবরে আবেদন করি। তারা উভয়ই নেছারাবাদ অফিসার্স ইনচার্জকে বিষয়টি গুরুত্বের সাথে দেখতে বললেও থানা প্রশাসন বিবাদীদের পক্ষেই কাজ করছে। তারা সেখানে গিয়ে অর্থের বিনিময়ে লাইবিনকে ঘর তোলার অনুমতি দিয়ে আসে বলে হাসেম মিয়া জানান।

হাসেম মিয়া বলেন, লাইবিনের স্বামী সাইদুল ২০০৪ সালে ১৩ ডিসেম্বর বেতাগী থানায় অস্ত্রসহ ধরা পরে ৫/৮৭ নং মামলায় বেশ কয়েক বছর সাজা খাটে। হাসেম আরো বলেন বার্মা থেকে আসা অবৈধ অস্ত্র লাইবিনের মাধ্যমে পিরোজপুর জেলা সহ বিভিন্য স্থানে বিক্রি করে এই গং। আর এই অস্ত্রের ভয় দেখিয়ে আমাকে খুন করার জন্য বার বার হুমকি দিয়েছে। এজন্য পিরোজপুর জেলা এসপি এবং স্বরুপকাঠি ও কাউখালির সার্কেল এসপির বরাবরে জীবন বাঁচাতে ৩ ফেব্রুয়ারী ২০১৯ আবেদন করি। 

এ সকল অভিযোগের বিষয়ে লাইবিন বলেন, সকল মামলাই শেষ হয়ে গেছে। গত মঙ্গলবার পুলিশ এসেছিল তারা আমাদেরকে ঘর তুলতে বলেছে আমরা ঘর তুলছি।

ট্যাগ: bdnewshour24 পিরোজপুর স্বরূপকাঠী