banglanewspaper

ঈশাত জামান মুন্না, লালমনিরহাট প্রতিনিধি: আসন্ন উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে মনোনয়ন নিয়ে বিরোধের জেরে লালমনিরহাটের আদিতমারী উপজেলা আওয়ামী লীগের দুই গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনায় ৬ জনকে আটক করেছে পুলিশ।

রোববার (১০ ফেব্রুয়ারি) বিকেলে আদিতমারী হাসপাতালে চিকিৎসাধীন থাকা অবস্থায় বেড থেকে তাদের আটক করে পুলিশ। এরআগে, রোববার বেলা ১২টার দিকে আদিতমারী উপজেলা আওয়ামী লীগের কার্যালয়ের সামনে এ সংঘর্ষর  ঘটনা ঘটে।

আটককৃতরা হলেন, নয়ন মিয়া (২৪), রুবেল (৩৫), আব্দুল্লাহ (১৯), রনি মিয়া (২২), মোজাম্মেল হক (৪০) ও আলতাব হোসেন (৪৬)। তারা সবাই আদিতমারী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি ছিলেন।

পুলিশ জানায়, আসন্ন উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পেয়েছেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সাপ্টিবাড়ি ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) চেয়ারম্যান রফিকুল আলম। এদিকে, উপজেলা চেয়ারম্যান পদে দলীয় মনোনয়ন চেয়েছিলেন জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক শহীদ সামছুল ইসলাম সুরুজের ছেলে ও বর্তমান উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি শওকত আলীর ভাতিজা ইমরুল কায়েস ফারুক। যিনি গত নির্বাচনে বিদ্রোহী প্রার্থী হিসেবে ধানের শীষের প্রার্থীর কাছে অল্প ব্যবধানে হারেন।

এছাড়াও জেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহঃ সভাপতি সিরাজুল হকও মনোনয়ন প্রত্যাশী ছিলেন। রফিকুল আলমকে দলীয় মনোনয়ন দেওয়ায় অন্য দুই মনোনয়ন প্রত্যাশীর মধ্যে ক্ষোভ সৃষ্টি হয়েছে। দলীয় মনোনয়ন নিয়ে রোববার ঢাকা থেকে রংপুর হয়ে বাড়ি ফিরছিলেন রফিকুল আলম। তাকে ফুলেল শুভেচ্ছা জানাতে তার অনুসারীরা সকালে মোটরসাইকেল শোভাযাত্রা নিয়ে গংগাচড়া শেখ হাসিনা সেতুর দিকে যাচ্ছিলেন। পথে উপজেলা আওয়ামী লীগের কার্যালয়ের সামনে এলে মনোনয়ন বি তদের অনুসারীরা তাদের পথ রোধ করে। এতে দুই গ্রুপের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে। থেমে থেমে বিক্ষিপ্ত হামলার ঘটনায় ৩ পুলিশসহ উভয়পক্ষের ১৪ জন আহত হন।

এসময় ভাঙচুর করা হয় ১৫/২০টি মোটরসাইকেল। আহতদের উদ্ধার করে লালমনিরহাট সদর ও আদিতমারী হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। খবর পেয়ে পুলিশ গিয়ে ১৬ রাউন্ড রাবার বুলেট ছুড়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। আশংকাজনক অবস্থায় আহত উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারন সম্পাদক মাইদুল ইসলাম বাবুসহ (৩০) ৪জনকে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

এ ঘটনায় পুলিশ জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আদিতমারী হাসপাতালে চিকিৎসাধিন ৬ জনকে আটক করে থানায় নিয়েছে বলে নিশ্চিত করেন আদিতমারী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জরুরী বিভাগের দায়িত্ব থাকা উপ সহকারী কমিউনিটি মেডিকেল অফিসার সৌরভ কুমার দত্ত্ব।

লালমনিরহাটের সহকারী পুলিশ সুপার (এএসপি সদর সার্কেল) আমিনুল ইসলাম জানান, জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ৬ জনকে আটক করা হয়েছে। পরিস্থিতি পুলিশের নিয়ন্ত্রনে রয়েছে। এ ঘটনায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে। দুই পক্ষের কেউ মামলা না দিলে পুলিশ বাদি হয়ে মামলা করা হবে বলেও জানান তিনি।

ট্যাগ: bdnewshour24 লালমনিরহাট