banglanewspaper

কিশোরগঞ্জের ভৈরবে  ধর্ষণের মামলায় প্রেমিক রুবেলকে জেল হাজতে পাঠিয়েছেন পুলিশ। প্রেমিক রুবেল ও প্রেমিকা শাহিদার বাড়ি শিমুলকান্দির চানপুরে।

জানা যায়, তাদের সাথে  প্রায় সাত বছরের প্রেম। কয়েক মাস যাবত প্রেমিকার বিয়ের প্রস্তাবে সাড়া দেন না প্রেমিক। পরে সুযোগ পেয়ে প্রেমিককে ঝাপটে ধরে প্রেমিকার একই কথা আমাকে বিয়ে করো।

পরে বিষয়টি গড়িয়ে যায় পুলিশের হাতে। প্রেমিককে থানা হাজতে টানা দুই দিন আটকে রাখা হয়। নাছোড়বান্দা প্রেমিক আগে বিয়ে করতে রাজি হলেও এখন বেঁকে বসেছেন। এখন আর বিয়ে করবেন না। তাই সাত বছর প্রেমে শেষে প্রেমিকের বিরুদ্ধে ধর্ষণ মামলা দিয়েছেন প্রেমিকা।

রুবেল হাজী আসমত কলেজের অনার্স তৃতীয় বর্ষের পরিক্ষার্থী ও শাহিদা জিল্লুর রহমান মহিলা কলেজে অনার্স তৃতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী। তারা প্রায় সাত বছর ধরে প্রেম করছে। বিয়ের প্রস্তাবে রাজি না হওয়া একবার শাহিদা আত্মহত্যার চেষ্টা করে ব্যর্থ হন।

এরপর থেকে যোগাযোগ কমিয়ে দেয় প্রেমিক রুবেল। কিন্তু ততদিনে শাহিদার বিয়ের বেশ কয়েকটি সমন্ধ ফিরে যাওয়ায় তিনি দিশেহারা হয়ে পড়েন। বৃহস্পতিবার বিকেলে রুবেল পরীক্ষা শেষে কেন্দ্র থেকে বের হতেই শাহিদা পেছন থেকে তাকে ঝাপটে ধরে।

এর সুষ্ঠু সমাধানের জন্য প্রেমিক-প্রেমিকাকে থানা পুলিশের হাতে সোর্পদ করেন তিনি। প্রেমিকার অভিযোগে প্রেমিককে হাজতে আটকে রাখা হয়। আর বিয়ের দাবিতে দুইদিন থানায় অবস্থান নেন প্রেমিকা।

খবর পেয়ে দুই পক্ষের লোকজন থানা এসেও কোনো সমাধানে পৌঁছাতে পারেননি। অবশেষে রুবেলের বিরুদ্ধে শাহিদা ধর্ষণ মামলা দায়ের করেন।

এ বিষয়ে আসামি রুবেল বলে, আমার সাথে সাহিদার যোগাযোগ ছিল তবে ওর সাথে কোন দিন শারিরীক সম্পর্ক হয় নাই। এই মিথ্যা অপবাদ দেওয়ায় ওকে বিয়ে করবো না। আমি জেলে তবুও মিথ্যার কাছে মাথানত করবো না। আল্লাহ আছেন সত্য প্রকাশ হবেই।

এই বিষয়ে রুবেলের চাচা জাহাঙ্গীর বলেন, আমার ভাতিজা পড়ালেখার পাশাপাশি ঢাকা একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠান চাকরি করে। এই মেয়ের সাথে গত ২ বছর যাবৎ কোন সম্পর্ক নাই। তার আমার ভাইয়ের টাকার লোভে তারা মিথ্যা মামলা দিছে। এই মেয়ের মা চরিএ ভাল না এর আগে ৩ বার বিয়ে হয়েছে। এই মেয়ের বাবার চরিএ ও ভাল না ওর বাবাও আগে ২ বিয়া করছে। এই কারনে আমরা ভাতিজাকে বিয়ে করাতে চাই নাই তাই পুলিশকে টাকা দিয়া থানায় রাইখা ২ দিন মারছে পরে বিয়েতে রাজি না হওয়ায় ওরে কোর্টে পাঠাইছে।

এদিকে অনার্স তৃতীয় বর্ষের পরিক্ষার্থী রুবেলের বাকি পরীক্ষায় অংশ নেয়া অনিশ্চিত হয়ে গেছে।

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে ভৈরব থানার ইনস্পেক্টর (তদন্ত) বাহালুল খান বাহার বলেন, শাহিদার বাবা হাজী আব্দুল হক রুবেলকে প্রধান আসামি করে তিনজনের বিরুদ্ধে ধর্ষণের মামলা দায়ের করছেন।

ট্যাগ: bdnewshour24 ধর্ষণ