banglanewspaper

পিরোজপুর প্রতিনিধি : পিরোজপুরের মঠবাড়িয়ায় গলায় ফাঁস দিয়ে খাদিজা বেগম (১৯) নামের এক নব গৃহবধুর রহস্যময় আত্মহত্যার ঘটনা ঘটেছে।

সোমবার দুপুরে থানা পুলিশ উপজেলার দক্ষিণ সোনাখালী গ্রাম থেকে ওই নিহত নববধুর স্বামীর বাড়ি থেকে লাশ উদ্বার করে ময়না তদন্তের জন্য পিরোজপুর জেলা মর্গে পাঠিয়েছে। নিহত খাদিজার স্বামী জাকারিয়া বরগুনা শহরে একটি ফার্ট ফুডের দোকানে কাজ করে। 

মঠবাড়িয়া থানার এসআই শওকাত হোসেন জানান, গত ২ মাস আগে উপজেলার উত্তর মিঠাখালী (মাঝেরপুল) গ্রামের নুর আলমের মেয়ে নিহত খাদিজার সাথে একই উপজেলার দক্ষিন সোনাখালী গ্রামের ইউনুছ হাওলাদারের ছেলে জাকারিয়া এর সাথে পারিবারিক প্রস্তাবের মাধ্যমে বিয়ে হয়। থবর পেয়ে দক্ষিন সোনাখালী গ্রামের জাকারিয়ার বাড়ি থেকে লাশ উদ্ধার করি।

নিহত খাদিজার শ্বশুর ইউনুছ জানায়, সোমবার সকালে ঘুম থেকে উঠে যথারীতি সাংসারিক কাজ কর্ম করছিল খাদিজা। কিন্তু কিছুক্ষণ পর তার শাশুড়ী তার ঘরের ভিতর তার পুত্র বধুকে গলায় ওড়না পেচানো অবস্থায় ঝুলতে থাকতে দেখেন। পরে থানায় খবর দিলে পুলিশ গিয়ে লাশ উদ্বার করে।   

নিহত খাদিজার খালা লিপু জানান, শ্বশুরবাড়ির লোকদের সাথে বিয়ের পর থেকেই পারিবারিক কলহ চলে আসছিল। মেয়ের জামাইয়ের সাথেও ভাল সম্পর্ক ছিলনা। তবে শশুর বাড়ির লোকজন কৌশল করে আমার বোনের মেয়ে খাদিজাকে মেরে ফেলেছে।

এ ব্যাপারে মঠবাড়িয়া থানার ওসি মো. শওকত আনোয়ার জানান, খাদিজার নিহত হওয়ার ঘটনায় থানায় একটি অপমৃত্যুর মামলার হয়েছে। লাশ ময়নাতদন্তের জন্য পিরোজপুর জেলা মর্গে পাঠানো হয়েছে। তবে আদৌ এটি আত্মহত্যা নাকি হত্যাকান্ড তা লাশের ময়না তদন্তের রির্পোট পেলে  তদন্ত সাপেক্ষে বলা যাবে।
 

ট্যাগ: bdnewshour24 পিরোজপুর মঠবাড়িয়া