banglanewspaper

গোলাম মোস্তফা রাঙ্গা: পারিবারিক কলহে আনসার ও ভিডিপি অফিসের পশ্চিম পার্শ্বে পুকুর পাড়ে সীমানা প্রাচীরের ভিতরে গাছের সাথে নিজের শার্ট বেধে আত্মহত্যার চেষ্টারত অবস্থায় ২২ বছর বয়সী ইব্রাহিম খলিল খোকনকে উদ্ধার করে দুই আনসার ব্যাটালিয়নের সদস্য কুড়িগ্রাম জেলায় মোতায়েনকৃত মনিটরিং মাঠকর্মী স্বপন খান।

১৭ ফেব্রুয়ারি দুপুর ১১টায় মনিটরিং মাঠকর্মী স্বপন খান পুকুরে গোসল করতে গিয়ে দেখতে পান অপরপ্রান্তে হেলে পড়া গাছে একটি যুবক ছেলে উঠে গায়ের শার্ট খুলে যেন কি করছে, একটু পরেই সে পুকুরের পানিতে পরে যায়। পুনরায় ছেলেটি গাছে উঠে তার গলায় কি যেন প্যাচাচ্ছে।

তিনি বিষয়টি বুঝতে পেরে দ্রুত ছুটে গিয়ে ছেলেটিকে ধরে ফেলেন এবং গলা হতে শার্ট দিয়ে তৈরি ফাঁস গিট খুলে উদ্ধার করে জেলা কমান্ড্যান্ট এফতেখারুল ইসলামের নিকট নিয়ে আসেন। তখনও ছেলেটিকে বিমর্ষ দেখাচ্ছিল। জেলা কমান্ড্যান্ট মোঃ এফতেখারুল ইসলাম যুবককে তার অফিসে বসিয়ে শান্ত করেন। এসময় ছেলেটি’র অভিভাবককে খবর দেওয়া হয়।

সার্কেল অ্যাডজুটান্ট তৌহিদ উজ জামান, উপজেলা আনসার ও ভিডিপি অফিসার সোলায়মান হোসেন, ইব্রাহিম খান, ফরহাদ আলম চৌধুরী, হিসাবরক্ষক গোলাম মোস্তফা রাঙ্গা, মহিলা আনসার আবু হেনা সিদ্দিকা, নিরাপত্তা প্রহরী মোঃ তাছির উদ্দিনের উপস্থিতিতে জেলা কমান্ড্যান্ট মোঃ এফতেখারুল ইসলাম যুবককে তার অভিভাবক নিকট অর্পন করেন।

আত্মহননের চেষ্টাকারী ইব্রাহিম খলিল (খোকন) কুড়িগ্রাম শহরের পশ্চিম মুন্সীপাড়ার নাজির হোসেন ও মোছাঃ হাছনা বানু’র ৬ষ্ঠ পুত্র।

পারিবারিক সূত্রে জানা যায় যে, ২২ বছর বয়সী মোঃ ইব্রাহিম খলিল (খোকন) গত ১ বছর ধরে বিয়ের দেওয়ার জন্য পরিবারকে চাপ দিয়ে আসছেন। কিন্তু অভাব অনটনের কারণে পর্যাপ্ত ঘর না থাকায় তাকে বিয়া দিতে অপারগতা প্রকাশ করে তার পরিবারের লোকজন।

অপর দিকে ইব্রাহিম খলিল খোকন জানান, সে রাজমিস্ত্রীর কাজ করেন এবং বর্তমান সে তার বড় ভাইয়ের হোটেলে মেসিয়ার হিসেবে কাজ করছেন। দুবছর আগে সে চট্টগ্রামে থাকাকালীন ঢাকার এক মেয়ে সাথে মোবাইলে প্রেম করেন। মেয়েটির অন্যত্র বিয়ে হওয়ায় সেই দুঃখ ভুলে থাকার জন্য তিনি বাড়ি ফিরে আসেন এবং বিয়ে করে সংসারী হতে চান। তারা সাত ভাই। তার বড় পাঁচ ভাই বিয়ে করেছেন। কিন্তু বাড়ীর কেউ তাকে বিয়ে দিতে চান না, উল্টো প্রতিনিয়তই দুর্ব্যবহার করেন।

তার মা বলেন, ‘আত্মহত্যার উদ্দেশ্যে ঘুমের বড়ি খেয়েছিলেন।’

তার বাবা বলেন, ‘আমাদের আর্থিক সংকটের কারণে ঘর কম থাকায় তারা ছোট দুই ভাই একই ঘরে থাকে। সে বিয়ে করলে কোথায় থাকবে এবং বউকে কি খাওয়াবে। সেই কারণে তাকে বিয়ে দেওয়া সম্ভব হচ্ছে না।’

তিনি আরো জানান, ‘কুড়িগ্রাম টেক্সটাইল মিলের পাশেই ১২ শতক জমি ক্রয় করা হয়েছে। সে চাইলে সেখানে ঘর তুলে বিয়ে করে বসবাস করতে পারে।’

প্রত্যক্ষদর্শী টাইস মিস্ত্রি এনামুল ইসলাম ও লেবার আনারুল ইসলাম জানান আমরা আনসার-ভিডিপি অফিসের পুকুরের ঘাটলায় টাইস লাগানোর কাজ করতেছিলাম। একবার খেয়াল করি ইব্রাহিম খলিল খোকন বাউন্ডারী ওয়াল টপকে পুকুরের পশ্চিম পাড়ে এসে একের পর এক সিগারেট খাচ্ছে। একসময় সে গাছে উঠে। আমরা ভাবছিলাম গাছ থেকে শুকনা খরি পারবে। আমরা আমাদের মত করে কাজ করছিলাম। 

ট্যাগ: bdnewshour24 যুবকের প্রাণ আনসার সদস্য