banglanewspaper

আলফাজ সরকার আকাশ, শ্রীপুর(গাজীপুর) প্রতিনিধিঃ গাজীপুরের শ্রীপুরে সাবরেজিষ্ট্রার ও দলিল লিখকদের দ্বন্ধে টানা ২২ দিনের কর্মবিরতীতে কর্মচাঞ্চল্য হারিয়েছে রেজিষ্ট্রি অফিস। সেই সাথে সরকার হারাচ্ছে রাজস্ব।

এদিকে টানা তিন সপ্তাহ ধরে দলিল নিবন্ধন না হওয়ায় ও অফিসের কার্যক্রম বন্ধ থাকায় সাধারণ মানুষ চরম ভোগান্তিতে পড়েছে বলে জানায় একাধিক ভুক্তভোগী।

২০ ফেব্রুয়ারী শ্রীপুর সাবরেজিষ্ট্রি অফিস ঘুরে দেখা যায়, ইকবাল হোসেন নামের এক যুবক জমি বিক্রির টাকায় বিদেশে চাকুরীর জন্য যাওয়ার কথা থাকলেও সে এখন দিশেহারা। কেননা, জমি বিক্রির সব প্রস্তুতি সম্পন্ন করেও রেজিষ্ট্রি করতে না পারায় তিনি চরম বিপাকে পড়েছেন।

পৌর এলাকার আলমগীর হোসেন জানান, তিনি জমি বন্ধক রেখে ব্যাংক থেকে ঋণ নেন বাড়ী নির্মাণের জন্য। অধিকাংশ টাকা কিস্তির মাধ্যমে পরিশোধ করতে পারলেও জমি বিক্রি ছাড়া বাকী টাকা নির্ধারিত সময়ে পরিশোধ করা সম্ভব নয়। তাই তার জমি রেজিষ্ট্রি না করতে পারলে ব্যাপক সমস্যায় পড়তে হবে বলে জানান তিনি।

এদিকে চিকিৎসা ও ঋণ পরিশোধের জন্য নগদ অর্থের প্রয়োজন আয়েশা খাতুন নামে এক মহিলা তার জমি বিক্রির জন্য বায়নাপত্র দলিল করেন । কিন্তু এখন জমি রেজিষ্ট্রি করতে না পারায় বাকী টাকাও পাচ্ছেন না।

রেজিষ্ট্রি অফিস সূত্রে জানা গেছে, গত ৩০ জানুয়ারি বিদায়ী সাব-রেজিস্ট্রার সৈয়দ নজরুল ইসলাম সর্বশেষ অফিস করেন। তিনি অবসরে যাওয়ার পর গত ৬ ফেব্রুয়ারি গাজীপুর সদর সাব-রেজিস্ট্রী ও যৌথ সাব-রেজিস্ট্রী অফিসের  দায়িত্বে থাকা সাব-রেজিস্ট্রার মো. মনিরুল ইসলাম (মনি) কে শ্রীপুর সাব-রেজিস্ট্রী অফিসের খন্ডকালীন দায়িত্ব দেয়া হয়। তিনি যোগদানের দিন দলিল লিখক ও স্ট্যাম্প ভেন্ডার সমিতির কর্মকর্তারা খন্ডকালীন নিযুক্ত সাব-রেজিস্ট্রারের সাথে অফিস পরিচালনার বিভিন্ন বিষয়াদি নিয়া আলোচনা করেন।

কিন্তু আলোচনা ফলপ্রসূ না হওয়ায় নিয়মিত সাব-রেজিস্ট্রার নিয়োগ এবং অফিসকে দূর্নীতি ও দালাল মুক্ত করতে স্থানীয় দলিল লিখক ও ষ্ট্যাম্প ভেন্ডার সমিতি কলম বিরতী পালনের ঘোষনা দিয়ে প্রতিদিনই তারা অফিসের সামনে অবস্থান কর্মসূচী, বিক্ষোভ মিছিল করে আসছেন। অবস্থান কর্মসূচী চলাকালে দু’পক্ষের লোকজনের মধ্যে কয়েকটি বিচ্ছিন্ন ঘটনাও ঘটে। 

দলিল লিখক সমিতির সভাপতি শাহজাহান মন্ডল জানান, ‘গাজীপুর সদর সাব-রেজিস্ট্রী ও যৌথ সাব-রেজিস্ট্রী অফিসের  দায়িত্বে থাকা দায়িত্বপ্রাপ্ত সাব-রেজিস্ট্রার মো. মনিরুল ইসলাম (মনি) একজন সমালোচিত ব্যক্তি। উনার বিরুদ্ধে ঘুষ, দূর্নিতি সহ বিভিন্ন অনিয়মের অভিযোগ সম্পর্কে আমরা শুনেছি। তাই আমরা অন্য একজন নিয়মিত সাব-রেজিস্ট্রার চাই।’

খন্ডকালীন সাব-রেজিস্ট্রার মনিরুল ইসলাম (মনি) জানান, ‘আমি এই অফিসের দায়িত্বে এসে কয়েকটি দলিল করেছি। পূর্বে এ অফিসে বনের জমি রেজিষ্ট্রি হওয়ার ঘটনা আছে।  তারা আমাকে এমন কাজ করতে বললে আমি না করেছি। তাই তারা আমাকে চায়না।  উনারা আমাকে কোন প্রমাণ ছাড়াই সমালোচিত করতে পারেন না।’

তিনি জানান, ‘আমি সরকারী কর্মকর্তা সরকারী নির্দেশে আমি এখানে এসেছি, আমার আদেশ বহাল থাকাকালীন আমাকে অফিসে আসতেই হবে এবং আমি আসতে বাধ্য।’

গাজীপুর জেলা নিবন্ধক মুন্সী মোখলেছুর রহমান জানান, ‘এ অচলাবস্থা নিরসনে ইতিমধ্যেই প্রধান নিবন্ধককে অবহিত করা হয়েছে। অফিসের কার্যক্রম স্বাভাবিক করতে তদন্ত কমিটি গঠন করার পর তদন্ত হয়েছে। প্রতিবেদন পাওয়ার পর উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নির্দেশে শীঘ্রই অচলাবস্থা নিরসন হবে বলে আমি মনে করি।’

ট্যাগ: bdnewshour24 শ্রীপুর