banglanewspaper

জনপ্রিয় সামাজিক মাধ্যম ইউটিউবে নানা বিতর্কিত ভিডিও আপলোপড করা যে ভুল হয়েছে, সেটা বুঝতে পেরেছেন সালমান মুক্তাদির। অতীতের এই কাজের জন্য তার এখন অনুতাপও হচ্ছে। বলেছেন, সরকার নিরাপদ ইন্টারনেট নামে যে কাজে হাত দিয়েছে, তাতে তার সমর্থন আছে। তিনি একজন দূত হিসেবে কাজ করতে চান।

সাম্প্রতিক সময়ের সবচেয়ে আলোচিত ইউটিউবারের নাম সালমান মুক্তাদির। স্বয়ং তথ্য প্রযুক্তি মন্ত্রী মোস্তফা জব্বার সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে পোস্ট করে জানতে চেয়েছিলেন সালমানের অবস্থান। এরপর মঙ্গলবার ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) সাইবার ক্রাইম ইউনিটে তাকে চার ঘণ্টা জিজ্ঞাসাবাদের জন্য নেয়া হয়। গতকালই সেই আলোচিত মিউজিক ভিডিও ‘অভদ্র প্রেম’ সরিয়ে ফেলা হয় সালমানের ইউটিউব চ্যানেল থেকে। এর একদিন পর বুধবার ফেসবুক লাইভে আসেন সালমান। লাইভে তিনি বলেন, ‘আমি আমার ভুল বুঝতে পেরেছি এবং অতীত কর্মকা-ের জন্য অনুতপ্ত।’

‘নিরাপদ ইন্টারনেটের’ বিষয়ে সরকারের স্লোগানে সমর্থনও জানান সালমান মুক্তাদির। বলেন, ‘আমি আশাবাদী এই ক্যা¤েপইনের একজন অ্যাম্বাসেডর হতে পারব। সবাইকে আমন্ত্রণ জানাব ক্যা¤েপইনটিতে অংশগ্রহণ করার জন্য।’

সবাই যেন এই ক্যাম্পেইনকে সাধুবাদ জানায় সেই আহ্বানও জানিয়েছেন আলোচিত এই অভিনেতা।

সালমান মুক্তাদির ইউটিউবে যেসব ভিডিও দিয়েছেন তার মধ্যে তুমুল আলোচিত তার ‘অভদ্র প্রেম’ শিরোনামে মিউজিক ভিডিওটি। আর এই বিষয়টি নিয়েই তার সঙ্গে ঘণ্টা চারেক কথা বলেছে পুলিশ।

সালমান পুলিশকে জানিয়েছেন, তিনি এই গানটি তৈরি করেছেন ভারতের জন্য। আর এখন বাংলাদেশ থেকে এই ভিডিওটি আর দেখা যাচ্ছে না।

ফেসবুক লাইভে সালমান বলেন, ‘আমার একটা গান প্রকাশ হয়েছিল অভদ্র প্রেম শিরোনামে। যেই গানটি বাংলাদেশে পরিপ্রেক্ষিতে খুব বেশি তর্ক-বিতর্কের সৃষ্টি করে। গানটির জন্য সাইবার ক্রাইম ডিপার্টমেন্ট আমার সঙ্গে যোগাযোগ করে এবং আমাকে বলে এটা আমাদের দেশের কনটেক্সেটের বিপরীতে যায়। গানটি আমাকে নামিয়ে ফেলতে বলা হয়। আমি গানটি নামিয়ে দেওয়ার জন্য রাজি হয়েছি এবং পরে অনলাইন থেকে নামিয়ে দিয়েছি।’

খ্যাতিমান এই অভিনেতা ও ইউটিউবার বলেন, ‘ওই ভিডিওটি কোনোভাবেই আমাদের দেশের জন্য এক্সেপ্টেবল ছিল না। আমি চেষ্টা করব গানটির ভিডিও আমাদের দেশের উপযোগী করে নির্মাণ করার জন্য।’

ট্যাগ: bdnewshour24