banglanewspaper

চকবাজারের চুড়িহাট্টায় অগ্নিকাণ্ডের ঘটনাকে অনাকাঙ্ক্ষিত দুর্ঘটনা বলা যাবে না বলে মন্তব্য করেছেন হাইকোর্ট। নিমতলীর অগ্নিকাণ্ডে শতাধিক প্রাণহানির পরও পুরনো ঢাকা থেকে রাসায়নিকের গুদামগুলো না সরানোয় উষ্মা প্রকাশ করে আদালত বলছে, চকবাজারের অগ্নিকাণ্ডের দায় কাউকে না কাউকে নিতেই হবে।

গত বুধবার দিবাগত রাতে ভয়াবহ ওই অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় বিচার বিভাগীয় তদন্ত, ক্ষতিপূরণ ও নির্দেশনা চেয়ে করা তিনটি রিট আবেদন সোমবার শুনানির জন্য উপস্থাপন করা হলে বিচারপতি এফ আর এম নাজমুল আহাসান ও বিচারপতি কে এম কামরুল কাদেরের হাইকোর্ট বেঞ্চ থেকে এ মন্তব্য আসে।

২০১০ সালে নিমতলীর অগ্নিকাণ্ডে শাতধিক প্রাণহানি ও ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতির জন্য রাসায়নিকের কারখানা ও গুদামগুলোকে চিহ্নিত করে পুরনো ঢাকা থেকে সেগুলো সরিয়ে নিতে সুপারিশ করেছিল তদন্ত কমিটি।

স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের উচ্চ পর্যায়ের কমিটির সুপারিশগুলো বাস্তবায়ন হলে চকবাজারের এই দুর্ঘটনা হয়ত ঘটত না মন্তব্য করে বিচারক বলেন, ‘পুরান ঢাকার ওইসব এলাকার বাড়ির মালিকরা তাদের বাসা দুই-তিনগুণ বেশিতে গোডাউন হিসেবে ভাড়া দেন। আর নিজেরা থাকেন গুলশান-বনানীতে। সিটি কর্পোরেশন এসব দেখেও না দেখার ভান করে থাকে। পরে ভয়াবহ সব দুর্ঘটনায় মারা যায় সাধারণ মানুষ।’

‘আমরা পত্রিকায় দেখেছি নিমতলীর অগ্নিকাণ্ডের ঘটনার পরে প্রধানমন্ত্রী দুটি মেয়েকে দত্তক নিয়েছিলেন। আবার চকবাজারের অগ্নিকাণ্ডের পর পরই উনি তা মনিটরিং করেছেন।’

বিচারক বলেন, ‘উনি অনেক করছেন। কিন্তু উনি একা তো এ দেশটা চালাতে পারবেন না। সবারই তো দায়িত্ব রয়েছে। আমাদের অর্থনৈতিক অনেক উন্নয়ন হয়েছে। কিন্তু এ ধরনের ঘটনা ঘটলে আমাদের দেশের ইমেজ (ভাবমূর্তি) নষ্ট হয়ে যাবে।’

পরে ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল এ বি এম আব্দুল্লাহ আল মাহমুদ বাশারের আবেদনে আগামীকাল মঙ্গলবার দুপুর দুইটায় অ্যাটর্নি জেনারেলের উপস্থিতিতে রিট আবেদনগুলোর শুনানির সময় নির্ধারণ করে দেয় আদালত।

আবেদনকারীদের পক্ষে আইনজীবী ছিলেন রুহুল কুদ্দুস কাজল, ইউনুস আলী আকন্দ, নূর মোহাম্মদ আজমী, খন্দকার মো. সায়েদুল কাউছার।

রবিবার হাইকোর্টে চারটি রিট আবেদন ও একটি সম্পূরক আবেদন করা হয়। এসব আবেদনে অগ্নিকাণ্ডে হতাহতদের পরিবারের জন্য ক্ষতিপূরণ চাওয়ার পাশাপাশি কেমিকেলের গুদাম-কারখানা অপসারণ ও বাণিজ্যিকভাবে মজুদ করা গ্যাস সিলিন্ডার অপসারণের নির্দেশনা চাওয়া হয়েছে।

এছাড়াও ২০১০ সালের নিমতলী অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় উচ্চ আদালতের নির্দেশে গঠিত তদন্ত কমিটির ১৭ দফা সুপারিশ বাস্তবায়নের নির্দেশনা চাওয়া হয়েছে এসব আবেদনে।

ট্যাগ: bdnewshour24