banglanewspaper

জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে হাইকোর্টের দেওয়া ১০ বছরের সাজার বিরুদ্ধে ও জামিন চেয়ে আপিল আবেদন করেছেন তার আইনজীবীরা।

বৃহস্পতিবার খালেদা জিয়ার পক্ষে তার আইনজীবীরা আপিল বিভাগের সংশ্লিষ্ট শাখায় আবেদনটি করেন বলে জানিয়েছেন খালেদার আইনজীবী ব্যারিস্টার কায়সার কামাল। তিনি জানান, আবেদনের সঙ্গে জামিনও চেয়েছেন খালেদা জিয়া।

জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় গত বছরের ৮ ফেব্রুয়ারি খালেদা জিয়াকে পাঁচ বছর কারাদণ্ডাদেশ দেন বিচারিক আদালত। একইসঙ্গে খালেদা জিয়ার ছেলে তারেক রহমানসহ মামলার অন্য পাঁচ আসামির প্রত্যেককে ১০ বছর করে সশ্রম কারাদণ্ড দেওয়া হয়।

বাকি চার আসামি হলেন সাবেক মুখ্য সচিব কামাল উদ্দিন সিদ্দিকী, সাবেক সাংসদ ও ব্যবসায়ী কাজী সালিমুল হক কামাল, ব্যবসায়ী শরফুদ্দিন আহমেদ এবং জিয়াউর রহমানের ভাগ্নে মমিনুর রহমান। এরমধ্যে পলাতক আছেন তারেক রহমান, কামাল উদ্দিন সিদ্দিকী ও মমিনুর রহমান। পাশাপাশি ছয় আসামির প্রত্যেককে দুই কোটি ১০ লাখ টাকা করে জরিমানাও করা হয়।

রায় ঘোষণার পরপরই খালেদা জিয়াকে নাজিম উদ্দিন রোডের পুরনো কেন্দ্রীয় কারাগারে নিয়ে যাওয়া হয়। এখনো তিনি সেখানেই আছেন।

রায়ের ১১ দিন পর ওই বছরের ১৯ ফেব্রুয়ারি বিকালে রায়ের সার্টিফায়েড কপি (অনুলিপি) হাতে পান খালেদা জিয়ার আইনজীবীরা। এরপর ২০ ফেব্রুয়ারি হাইকোর্টের সংশ্লিষ্ট শাখায় বিচারিক আদালতের রায়ের বিরুদ্ধে আপিল করা হয়। পাশাপাশি এ মামলায় খালেদা জিয়ার সাজা বৃদ্ধি চেয়ে রিভিশন আবেদন করে দুদক।

ওই বছরের ৩০ অক্টোবর নিম্ন আদালতের দেওয়া পাঁচ বছরের সাজার বিরুদ্ধে করা দুদকের রিভিশন আবেদন গ্রহণ করে খালেদা জিয়ার সাজা বাড়িয়ে ১০ বছরের কারাদণ্ডাদেশ দেন হাইকোর্ট। বৃহস্পতিবার হাইকোর্টের দেওয়া আদেশের বিরুদ্ধে আপিল করেন বিএনপি প্রধানের আইনজীবীরা।

ট্যাগ: bdnewshour24 খালেদা