banglanewspaper

রোহিঙ্গা সংকটের জন্য মিয়ানমার সরকারকে দায়ী করে সমস্যা সমাধানে দেশটির প্রতি আহ্বান জানিয়েছে জাতিসংঘের শরণার্থী বিষয়ক সংস্থা ইউএনএইচসিআর। বৃহস্পতিবার (২১ মার্চ) রাজধানীর একটি হোটেলে সংবাদ সম্মেলনে সংস্থার সহকারী হাই কমিশনার ভলকার টার্ক এ আহ্বান জানান।

রোহিঙ্গা ইস্যুটি অত্যন্ত জটিল উল্লেখ করে তিনি বলেন, রোহিঙ্গাদের প্রত্যাবাসন শুরু করতে অনেক সময়ের প্রয়োজন। রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনে লক্ষ্যে জাতিসংঘের সঙ্গে চুক্তি সত্ত্বেও মিয়ানমার সরকার তাদের রাখাইনে প্রবেশ করতে দিচ্ছে না বলেও অভিযোগ করেন ভলকার টার্ক।

পাঁচ দিনের সফরে কক্সবাজারে রোহিঙ্গা শিবির পরিদর্শন এবং বাংলাদেশ সরকারের বিভিন্ন পর্যায়ে রোহিঙ্গা বিষয় নিয়ে আলোচনার পর বৃহস্পতিবার সংবাদ সম্মেলনে হাজির হন ইউএনএইচসিআরের সহকারী হাই কমিশনার ভলকার টার্ক। তিনি বলেন, লাখ লাখ রোহিঙ্গাকে আশ্রয় দেয়ায় বাংলাদেশের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেছে কক্সবাজারে আশ্রয় নেয়া রোহিঙ্গারা।

রোহিঙ্গারা তাদের নিজভূমিতে ফিরে যেতে চায় বলে জানান ইউএনএইচসিআরের এই কর্মকর্তা। বলেন, রোহিঙ্গাদের দ্রুত ও নিরাপদ প্রত্যাবাসনের জন্য মিয়ানমার সরকারকেই উদ্যোগ নিতে হবে।

ভলকার টার্ক বলেন, রোহিঙ্গারা এখানে অনেক নিরাপদে রয়েছে, তাই তারা সরকারের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেছে। তবে এক বছরের বেশি সময় অতিবাহিত হয়েছে। রোহিঙ্গারা স্বাভাবিক জীবনে ফিরে যেতে চায়। মূল সমস্যাটি যেহেতু মিয়ানমার সৃষ্টি করেছে তাই তাদেরকেই এর সমাধান করতে হবে। আমাদের ভুলে গেলে চলবে না রোহিঙ্গারা মিয়ানমারের নাগরিক।

পাঁচদিনের বাংলাদেশ সফরে সংকট সমাধানে বাংলাদেশ সরকারের সঙ্গে গঠনমূলক আলোচনা হয়েছে বলেও জানান তিনি। তিনি বলেন, রোহিঙ্গাদের মিয়ানমারে ফিরিয়ে নেয়ার ব্যাপারে বাংলাদেশের সরকারের সঙ্গে অত্যন্ত অর্থবহ ও গঠনমূলক আলোচনা হয়েছে।

এছাড়া, রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দেয়ায় বাংলাদেশের মানুষের ওপর যে প্রভাব পড়েছে সে জন্য রোহিঙ্গাদের পাশাপাশি ক্ষতিগ্রস্থদের জন্যো আন্তর্জাতিক সহায়তা প্রয়োজন। সে বিষয়েও আমাদের মধ্যে আলোচনা হয়েছে।

রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনে লক্ষ্যে জাতিসংঘের সঙ্গে চুক্তি সত্ত্বেও মিয়ানমার তাদের রাখাইনে প্রবেশ করতে দিচ্ছে না বলে অভিযোগ করেন ভলকার টার্ক। রাখাইন পরিস্থিতি অত্যন্ত জটিল উল্লেখ করে জাতিসংঘের এই কর্মকর্তা বলেন, রাখাইনের এডভাইসরি কমিশনের দেয়া সুপারিশ বাস্তবায়নের জন্য মিয়ানমারের সঙ্গে আলোচনা চালিয়ে যাচ্ছেন তারা।

ট্যাগ: bdnewshour24 রোহিঙ্গা