banglanewspaper

ইসলাম ধর্মে মদ কঠোরভাবে নিষিদ্ধ, এর প্রচারও হারাম। কিন্তু ক্রিকেটের অনেক দলেরই স্পন্সর বিভিন্ন মদের কোম্পানি। সঙ্গত কারণে মুসলিম ক্রিকেটাররা আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে মদের লোগো সম্বলিত জার্সি পরা থেকে বিরত থাকেন। সেই সুবিধা ক্রিকেটের নিয়ন্ত্রক সংস্থা-আইসিসিই দিয়েছে।

এবার আইসিসির পথেই হাটছে ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগ-আইপিএল কর্তৃপক্ষ। চলমান দ্বাদশ আসরে অনেক দলেরই স্পন্সর হয়েছে বিভিন্ন মদের কোম্পানি। ফলে দলের জার্সিতে সেগুলোর লোগো সম্বলিত থাকছে। তবে মুসলিম খেলোয়াড়রা চাইলে মদের ব্র্যান্ডের লোগো ছাড়া জার্সি পরতে পারবেন।

রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স বেঙ্গালুরুর উর্ধ্বতন কর্মকর্তা জানিয়েছেন, তাদের দলে এ সুবিধা পাচ্ছেন দুই মুসলিম ক্রিকেটার। অলরাউন্ডার মঈন আলি ও পেসার মোহাম্মদ সিরাজকে সেই সুযোগ করে দেয়া হয়েছে।

তিনি বলেন, মুসলিম ক্রিকেটাররা সাধারণত মদ ও তামাক প্রচারবিরোধী। আমাদের দলের হয়ে খেলছেন মঈন আলি ও মোহাম্মদ সিরাজ। মদের লোগো না পরে খেলার জন্য তারা আমাদের অনুরোধ করেছিল। তাদের বিশ্বাসের কথা মনে রেখে আমরা ওদের অনুরোধ গ্রহণ করেছি। ধর্মীয় সংবেদনশীলতা সম্পর্কে আমরা খুব সচেতন।

চেন্নাই সুপার কিংসের প্রধান নির্বাহী কাশি বিশ্বনাথ জানিয়েছেন, তিনি বলেন, আমরা এখন পর্যন্ত কোনো অনুরোধ পাইনি। তবে খেলোয়াড়েরা চাইলে এ সুবিধা তারা নিতে পারবেন। এ সিদ্ধান্ত মুসলিম খেলোয়াড়দের ওপর ছেড়ে দিয়েছি। তারা চাইলে মদের ব্র্যান্ডের লোগো সম্বলিত জার্সি না পরে খেলতে পারবে।

এবারের আইপিএলে উল্লেখযোগ্যসংখ্যক মুসলিম ক্রিকেটার রয়েছেন সানরাইজার্স হায়দরাবাদ এবং কিংস ইলেভেন পাঞ্জাবে। হায়দরাবাদে আছেন রশিদ খান, মোহাম্মদ নবী (আফগানিস্তান), সাকিব আল হাসান (বাংলাদেশ), খালীল আহমেদ, শাহবাজ নাদিম ও ইউসুফ পাঠান (ভারত)। পাঞ্জাবে আছেন মোহাম্মদ শামী ও সরফরাজ খান (ভারত), মুজিব উর রহমান (আফগানিস্তান)।

ট্যাগ: bdnewshour24 আইপিএল