banglanewspaper

কাল শুরু হচ্ছে ভারতের সাথে বহু কাঙ্ক্ষিত নৌ পথে যাত্রীবাহী জাহাজ চলাচল। নারায়ণগঞ্জ থেকে বাংলাদেশের একটি এবং কলকাতা থেকে ছাড়বে ভারতের অন্য একটি জাহাজ। এ উপলক্ষে সব প্রস্তুতি সম্পন্ন করে এনেছে দুই সরকারের সংশ্লিষ্ট দফতরগুলো।

আর পরীক্ষামূলক এ সফর সফল হলে আগামীতে অন্যান্য দেশের সাথেও নৌপথে যাত্রী পরিবহন চালুর পরিকল্পনা রয়েছে সরকারের।

৭০ বছর পর আবারো সৃষ্টি হচ্ছে জাহাজের যাত্রী হয়ে নৌ পথে ভারতে যাওয়ার সুযোগ। ২০১৫ সালে দুই দেশের মধ্যে সমঝোতার পর ২০১৮ সালের অক্টোবর মাসে হয় এসওপি স্বাক্ষর। তার ৫ মাসের মাথায় ২৯ মার্চ শুরু হচ্ছে জাহাজের চলাচল।

এদিন সন্ধ্যায় নারায়ণগঞ্জের মেরিএন্ডারসন জেটি থেকে ছেড়ে যাবে জাহাজ এমভি মধুমতি। কলকাতায় পৌঁছাবে পহেলা এপ্রিল। চাঁদপুর, বরিশাল, মংলা, আংটিহারা, হলদিয়া হয়ে এটি যাবে ভারত। একই দিন কলকাতা থেকে ঢাকার উদ্দেশ্যে ছাড়বে আরেকটি জাহাজ আর ভি বেঙ্গল।

প্রথম সফরে ভারত থেকে সাতজন ইতালীয় নাগরিকসহ আসছেন ২০ জন; আর বাংলাদেশ থেকে যাচ্ছেন ৬৫ জন যাত্রী।

বিআইডব্লিউটিএ-এর চেয়ারম্যান কমডোর এম মাহবুব-উল ইসলাম বলেন, 'আমাদের সবকিছু প্রস্তুত রয়েছে। ভারত থেকে আসবে জাহাজ বেঙ্গল গঙ্গা। তাদের রিপোর্টের ভিত্তিতে যেসব কাগজপত্র দেয়ার কথা সেগুলি দেয়া হয়েছে। বাংলাদেশ থেকে যে জাহাজটা যাচ্ছে, তাদের সবকিছু কাগজপত্র এবং যাত্রীদের লিস্ট অন্য সকল বিষয় দেখে পারমিট দেয়া হয়েছে।'

নৌ পরিবহন মন্ত্রণালয়ের সচিব আব্দুস সামাদ বলেন, নৌ পর্যটনকে বৃদ্ধি করা। মানুষের সাথে যোগাযোগ বৃদ্ধি ও সম্পর্ক বৃদ্ধি করা; এটি ভারতের শুরু হচ্ছে। ভবিষ্যতে শ্রীলঙ্কা শুরু হবে। একই সাথে পার্শ্ববর্তী অন্যদেশের সাথেও শুরু হবে।

বাংলাদেশ থেকে ভ্রমণে যাওয়া যাত্রীদের জাহাজ ভাড়া ধরা হয়েছে আসনভেদে দেড় হাজার থেকে ১৫ হাজার টাকা। ৮৯৬ কিলোমিটারের এ যাত্রা সফল হলে আগামীতে এটিকে আসাম- গোহাটির দিকে সম্প্রসারণ করা হবে। এছাড়া অন্যান্য দেশের সঙ্গেও করা হবে যাত্রীবাহী জাহাজ চলাচলের চুক্তি।

নৌ পরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী বলেন, ২৯ তারিখে এটা চালু করার পর আমরা দেখবো এটা কমার্শিয়াভাবে কতটুকু কার্যকর। তবে, এটা শুধু এই অঞ্চলে সীমাবদ্ধ থাকবে না। এর বাইরে নেয়া হবে।

প্রাথমিকভাবে প্রতি মাসে একবার হলেও পরে চাহিদা মতো সপ্তাহে একটি করে সফরের ব্যবস্থা করা হবে।

ট্যাগ: bdnewshour24 জাহাজে ভারত