banglanewspaper

আলফাজ সরকার আকাশ, শ্রীপুর (গাজীপুর) প্রতিনিধি: চারদিকে যখন আগুনের লেলিহান শিখায় মৃত্যুর মিছিল, বিস্ফোরণে ঝলছে যাওয়ার খবরে চলছে স্বজনদের আহাজারি ঠিক তখনও যেন প্রশাসনের নাকের ডগায় সড়কের পাশে ফুটপাতের জায়গায় গ্যাস সিলিন্ডার দিয়ে মরণ ফাঁদ সাজিয়ে রেখেছে দোকানীরা। 
৩ এপ্রিল সোমবার সকালে পৌর শহরের চৌরাস্তাসহ বিভিন্ন রাস্তার পাশে এমন চিত্র দেখা যায়। এছাড়াও  উপজেলার মাওনা, বরমীসহ  প্রায় সকল এলাকাতেও একই দৃশ্য চোখে পড়ে। 

যানবাহন চলাচলের রাস্তার কিনার ঘেঁষে এবং ফুটপাতের জায়গায় যত্রতত্র ভাবে দোকানীরা গ্যাস সিলিন্ডার সাজিয়ে  রেখেছে। এতে যে কোন সময় যানবাহনের ধাক্কায় বা সিলিন্ডার লিকেজ হয়ে  বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটেতে পারে বলে জানায় বিশেষজ্ঞরা।

গ্যাস সিলিন্ডার বিক্রি বা সরবরাহের জন্য ফায়ার সার্ভিসের লাইসেন্স ও অগ্নি নিরোধক যন্ত্র   প্রয়োজন হলেও এমন কথা জানেননা বলে জানায় অনেক দোকানী। এছাড়াও দোকানের নিরাপদ স্থানে সিলিন্ডার রাখার কথা থাকলেও সে নিয়ম যেন  মানছেনা অনেক দোকানী। 

শ্রীপুর বাজারে পণ্য কিনতে আসা আরফান সরকার জানান, চৌরাস্তাসহ স্কুল কলেজে যাওয়ার রাস্তার পাশে ও ফুটপাতের জায়গায় এভাবে গ্যাস সিলিন্ডার রাখার ফলে এক প্রকার আতংকে  চলাচল করতে হয় আমাদের।

এ সম্পর্কে শ্রীপুর ফায়ার স্টেশন ইজ্ঞিনিয়ার মোস্তাফিজুর রহমান জানান, গ্যাস সিলিন্ডার বিক্রির জন্য ফায়ার লাইসেন্স বাধ্যতামূলক। এছাড়াও ঝুকিপূর্ণ স্থানে সিলিন্ডার রাখার কোন নিয়ম নেই। যে সকল দোকানী ফুটপাতে সিলিন্ডার রাখে তাদের ব্যাপারে কর্তৃপক্ষকে জানানো হবে। 

একাধিক  দোকানীর সাথে উপরোক্ত বিষয়ে জানতে গেলে গেলে তারা কোন কথা বলতে রাজি হননি।

শ্রীপুর চৌরাস্তা মের্সাস ফাহাদ এন্টারপ্রাইজের সত্ত্ববাধিকারী মাওলানা মাহবুবুর রহমান জানান, আমি লাইসেন্স নিয়ে ব্যবসা করি। তবে রাস্তার পাশে ফুটপাতে গ্যাস সিলিন্ডার রাখার বিষয়টি এড়িয়ে যান তিনি। 

শ্রীপুর ফায়ার স্টেশন অফিসার রাম প্রশাদ পাল জানান, যদিও এ সকল সিলিন্ডার খুব সহজেই বিস্ফোরণ হয়না। তবে ঝুকিপূর্ণ  স্থানে সিলিন্ডার রাখা হলে এবং অগ্নি নিরোধক যন্ত্র না রাখা হলে যে কোন সময় বিস্ফোরণের আশংকা থেকেই যায়। 

গাজীপুর জেলা প্রশাসক ড. দেওয়ান মুহাম্মদ হুমায়ুন কবীর জানান, ঝুকিপূর্ণ স্থানে সিলিন্ডার রাখার বিষয়টি স্থানীয় প্রশাসনের মাধ্যমে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করা  হবে।

ট্যাগ: bdnewshour24 শ্রীপুর