banglanewspaper

রাজধানীতে গ্রিন লাইন পরিবহনের একটি বাসের চাপায় পা হারানো প্রাইভেটকার চালক রাসেল সরকারকে আদালতের আদেশ সত্ত্বেও ক্ষতিপূরণের ৫০ লাখ টাকা পরিশোধ না করায় ক্ষোভ প্রকাশ করে হাইকোর্ট বলেছেন, ‘যতবড় বিজনেস ম্যান হোক না কেন, কেউই আইনের ঊর্ধ্বে হয়ে যান নি। একটা সীমা থাকা দরকার। ক্ষতিপূরণের টাকা পরিশোধ না করলে প্রয়োজনে গ্রিন লাইনের পরিবহনের সব গাড়ির চলাচল বন্ধ করে দেওয়া হবে। সব গাড়ি সিজ করে নিলামে বিক্রির ব্যবস্থা করে রাসেলকে টাকা দেওয়া হবে।’

বৃহস্পতিবার (৪ এপ্রিল) ক্ষতিপূরণের অগ্রগতির বিষয়ে শুনানিকালে বিচারপতি এফ আর এম নাজমুল আহসান ও বিচারপতি কে এম কামরুল কাদেরের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ এসব মন্তব্য করেন।

একইসঙ্গে আদালতের আদেশ পালন না করায় বৃহস্পতিবার দুপুর দুইটার মধ্যে পরিবহনটির ব্যবস্থাপককে তলব করেছেন আদালত।

আদালতে রিটের পক্ষে শুনানিতে ছিলেন আইনজীবী খন্দকার শামসুল হক রেজা। অন্যদিকে, গ্রিন লাইন পরিবহনের পক্ষে ছিলেন আইনজীবী মো. অজি উল্লাহ।

শুনানির শুরুতে আইনজীবী খন্দকার শামসুল হক রেজা আদালতকে বলেন, ‘ক্ষতিপূরণের আদেশের পর গ্রিন লাইন পরিবহনের কেউ কোনও যোগাযোগ করেন নি, টাকাও দেন নি। তাদের মালিককে স্ব-শরীরে হাজির হওয়ার নির্দেশ দেন।’

এ সময় গ্রিন লাইন পরিবহনের আইনজীবী মো. অজি উল্লাহ আদালতকে বলেন, ‘আমি সব সময় তাদেরকে আদালতের আদেশ জানিয়ে এসেছি।’ আদালত বলেন, ‘এর (গ্রিন লাইনের) মালিক কে?’ জবাবে অজি উল্লাহ বলেন, ‘মো. আলাউদ্দিন। তিনি চিকিৎসার জন্য দেশের বাইরে রয়েছেন।’ আদালত জানতে চান, ‘কোথায় আছেন এবং কবে আসবেন?’ জবাবে আইনজীবী অজি উল্লাহ বলেন, ‘আমি জানার চেষ্টা করছি।’

এরপর আদালত বলেন, ‘ব্যবসা তো বন্ধ নেই, ব্যবসা তো চলছে? ম্যানেজারকে ডাকেন। ম্যানেজারের কাছ থেকে পজিটিভ কিছু না পেলে আমরা গ্রিন লাইন পরিবহনের সব বাস সিজ করে নিলামে বিক্রির ব্যবস্থা করবো। আমরা সব স্টপ করে দেবো। একটা সীমা থাকা দরকার। কেউ আইনের ঊর্ধ্বে হয়ে যান নি।’

পরে আদালত বৃহস্পতিবার দুপুর ২টার মধ্যে গ্রিন লাইনের ব্যবস্থাপককে আদালতে হাজির হতে বলেন। দুপুর ২টার পর এ বিষয়ে পুনরায় শুনানি হবে বলেও আদালত আদেশ দেন।

ট্যাগ: bdnewshour24 হাইকোর্ট